kalerkantho

সোমবার । ১৬ ফাল্গুন ১৪২৭। ১ মার্চ ২০২১। ১৬ রজব ১৪৪২

মুক্তিযুদ্ধা না হয়েও ভোগ করছেন পূর্ণ সুবিধা, প্রতিবাদ করায় দুজনকে মারধর

সিরাজগঞ্জ প্রতিনিধি   

১৯ ফেব্রুয়ারি, ২০২১ ১৭:৩৮ | পড়া যাবে ৩ মিনিটে



মুক্তিযুদ্ধা না হয়েও ভোগ করছেন পূর্ণ সুবিধা, প্রতিবাদ করায় দুজনকে মারধর

সিরাজগঞ্জে মুক্তিযোদ্ধা না হয়েও মুক্তিযোদ্ধা ভাতাগ্রহণসহ বিভিন্ন সুযোগ-সুবিধা ভোগ করার অভিযোগ পত্রে স্বাক্ষর করায় দুই ব্যক্তিকে পিটিয়ে গুরুতর আহত করেছে ওই ভুয়া মুক্তিযোদ্ধার সন্তানেরা। বৃহস্পতিবার রাতে জেলার কাজিপুর উপজেলার গান্ধাইল গ্রামে এ ঘটনা ঘটে। গুরুতর আহত অবস্থায় তাদের সিরাজগঞ্জ বঙ্গমাতা শেখ ফজিলাতুন্নেসা মুজিব জেনারেল হাসপাতালে ভর্তি করা হয়েছে। এ ঘটনায় মামলার প্রস্তুতি চলছে।

ঘটনার বিবরণে জানা গেছে, সিরাজগঞ্জ কাজিপুর উপজেলার গান্ধাইল গ্রামের সাবেক ইউপি সদস্য ও মৃত বাবর আলীল ছেলে আব্দুল বারীক ২০০৪ সালে মুক্তিযোদ্ধার তালিায় নিজের নাম উঠানোর মধ্যে দিয়ে এলাকায় প্রভাবশালী মুক্তিযোদ্ধা বনে যান। এর পর থেকে দাপটের সাথে মুক্তিযোদ্ধার সনদে ছেলে এবং মেয়েকে কোটায় চাকরি নিয়ে দেন। কিন্তু স্থানীয়দের মতে মুক্তিযুদ্ধ চলাকালে তার বয়স ছিল ১০/১২। এবং সেসময় তিনি বিভিন্ন বাড়িতে রাখালের কাজ করতেন। কিন্তু ২০০৪ সালে স্থানীয় ইউপি চেয়ারম্যানের যোগসাজসে নিজেকে মুক্তিযোদ্ধা হিসেবে প্রতিষ্ঠিত করে এলাকায় ত্রাসের রাজত্ব চালাতে থাকেন। কিন্তু স্থানীয়দের মতে সেকখনও মুক্তিযুদ্ধে অংশ নেননি এবং প্রকৃত মুক্তিযোদ্ধা না। এরই ধারা বাহিকতায় একই গ্রামের আজাহার আলী নামে এক ব্যক্তি আব্দুল বারীক মুক্তিযোদ্ধা না দাবি করে মুক্তিযোদ্ধা বিষয়ক মন্ত্রণালয়ে একটি আবেদন করেন এবং জেলা প্রাশাসকসহ বিভিন্ন দপ্তরে পত্রটি পাঠান। 

স্থানীয় প্রশাসন আবেদনটি গুরুত্বের সাথে আমলে নিয়ে চলতি বছরের ৩০ জানুয়ারি কাজিপুর উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা তাকে প্রকৃত মুক্তিযোদ্ধার সনদসহ প্রয়োজনীয় নথি নিয়ে হাজির হতে বলেন। তবে এখন পর্যন্ত যাচাই বাছাইয়ের ফলাল প্রকাশ না হলেও বৃহস্পতিবার রাতে আব্দুল বারীক তার ছেলে ইউনিয়ন যুবলীগের সেক্রেটারি আশরাফুল ইসলাম এবং আনোয়ার হোসেনকে সাথে নিয়ে দেশীয় ধারালো অস্ত্র দিয়ে পথ অবরোধ করে আবেদনকারী আজাহার আলী এবং প্রতিবেশী আলমগীর হোসেনকে এলাপাথারী পিটিয়ে গুরুতর আহত করে। এ সময় তাদের চিৎকারে স্থানীয়রা ছুটে এসে তাদের উদ্ধার করে নিরাপদ চিকিৎসার সিরাজগঞ্জে পাঠায়। বর্তমানে তারা সিরাজগঞ্জ ২৫০ শয্যা বিশিষ্ট বঙ্গমাতা শেখ ফজিলাতুন্নেসা মুজিব জেনারেল হাসপাতালে ৪০৪ নং বেডে ভর্তি আছেন।

এ বিষয়ে আহতদের স্বজনরা জানায় একজন অ-মুক্তিযোদ্ধার বিরুদ্ধে সোচ্চার ভূমিকার জন্য আজাহার আলী ও আলমগীরকে যেভাবে পিটানো হয়েছে আমরা তার তদন্তপূর্বক বিচার চাই।

এ বিষয়ে ঘটনার মূল নায়ক বিতর্কিত মুক্তিযোদ্ধা আব্দুল বারীক জানান, ঘটনাটি আমি জানি। তবে বর্তমানে আমি বগুড়াতে আছি। দু’একদিন পরে কাজিপুরে আসব। এর চেয়ে বেশি কিছু বলতে পারব না।

এ বিষয়ে কাজিপুর থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) পঞ্চনন্দ সরকার জানান, এখনও কোনো মামলা হয়নি। মামলা হলে তদন্তপূর্বক দোষীদের বিরুদ্ধে ব্যবস্থা নেওয়া হবে। 

মন্তব্য



সাতদিনের সেরা