kalerkantho

মঙ্গলবার । ২৪ ফাল্গুন ১৪২৭। ৯ মার্চ ২০২১। ২৪ রজব ১৪৪২

সৌদিতে প্রেম-বিয়ে-সংসার, স্ত্রীর গহনা-টাকা নিয়ে পালিয়ে দেশে!

আঞ্চলিক প্রতিনিধি, ময়মনসিংহ   

১৪ ফেব্রুয়ারি, ২০২১ ২১:৫৫ | পড়া যাবে ৩ মিনিটে



সৌদিতে প্রেম-বিয়ে-সংসার, স্ত্রীর গহনা-টাকা নিয়ে পালিয়ে দেশে!

সৌদি আরবে অবস্থান করা অবস্থায় দুজনের পরিচয়। পরে প্রেম ও বিয়ে। আট মাস সংসারের পর স্ত্রীর জমানো টাকা ও ১০ ভরি সোনার গহনা নিয়ে পালিয়ে দেশে আসে স্বামী। খবর পেয়ে সপ্তাহ পর স্ত্রী স্বামীর গ্রামের বাড়িতে এসে অবস্থান নিলে সেখানেই মারধরের শিকার হন। এ অবস্থায় পুলিশ উদ্ধার করে থানায় নিয়ে আসে। রবিবার বিকেলে এ ঘটনা ঘটে ময়মনসিংহের নান্দাইলের জাহাঙ্গীরপুর ইউনিয়নের সুরাটি গ্রামে।

থানায় অবস্থান করা ওই নারী ও লিখিত অভিযোগ থেকে জানা যায়, টাঙ্গাইলের ভুয়াপুর উপজেলার মাইজবাড়ি গ্রামের মো. নুরুল ইসলামের মেয়ে মোসা. নুরজাহান বেগম গত প্রায় ১৩ বছর আগে সৌদি আরবে যায় কাজের সন্ধানে। সেখানে একটি মাদরাসায় ও একটি দোকানে কাজ নেন। এর মধ্যে পরিচয় ঘটে ময়মনসিংহের নান্দাইল উপজেলার দক্ষিণ জাহাঙ্গীরপুর গ্রামের মো. জজ মিয়ার ছেলে সোহাগ মিয়ার (২৫) সঙ্গে। পরিচয়ের একপর্যায়ে দুজনের মধ্যে সম্পর্ক গড়ে উঠলে ২০২০ সালের ৪ মে বিয়ে হয়।

ভুক্তভোগী নারী জানান, সংসার চলা অবস্থায় বাড়িতে ঘর করার কথা বলে কয়েক দফায় স্বামী সোহাগ মিয়া তাঁর কাছ থেকে প্রায় ৩০ লাখ টাকা নেয়। সোহাগ তাঁকে জানায়, কয়েক বছর চাকরি করার পর তাঁরা দুজনে আর সৌদি আরবে থাকবে না। দেশে এসে পড়বে। স্বামীর কথামতোই সব কিছু চলতে থাকে। এ অবস্থায় গত ১৭ জানুয়ারি দুজনের কর্মস্থলে চলে গেলে রাতে এসে দেখতে পান স্বামী সোহাগ মিয়া বাসায় আসেনি। পরদিন অনেক জায়গায় খোঁজাখুজি করেও তাঁর কোনো সন্ধান পাওয়া যায়নি।

এর মধ্যে সোহাগের এক মামা (সৌদিপ্রবাসী) সবুজ মিয়ার মাধ্যমে জানতে পারেন সোহাগ দেশে চলে গেছে। পরে বাসায় খোঁজ করে দেখতে পান তাঁর ড্রয়ারে থাকা নগদ আড়াই লাখ টাকা ও সোকেসে থাকা বিভিন্ন গহনা (যার পরিমাণ প্রায় ১০ ভরি) খোয়া যায়। এ ঘটনার এক সপ্তাহ পর তিনি দেশে এসে সরাসরি স্বামীর গ্রামের বাড়িতে এসে দেখা পেলেও স্ত্রী হিসেবে তাকে অস্বীকার করে বিভিন্ন ধরনের হুমকি-ধমকি দিয়ে লাপাত্তা হয়ে যায়। এরপর থেকে গত এক সপ্তাহ ধরে তিনি স্বামীর অপেক্ষায় থাকলেও রবিবার স্বামীর বাবা ও পরিবারের অন্যরা তাঁকে গলাধাক্কা দিয়ে বের করার চেষ্টার পর ব্যাপক মারধর করে। খবর পেয়ে পুলিশ উদ্ধার করে থানায় নিয়ে আসে।

নান্দাইল থানার ওসি মিজানুর রহমান জানান, ঘটনার সুত্রপাত সৌদি আরবে। তারপরও স্বামীর বাড়িতে লাঞ্ছিত হওয়ার ঘটনায় ওই নারীর কাছ থেকে একটি লিখিত অভিযোগ নেওয়া হয়েছে। তদন্তসাপেক্ষে আইনি ব্যবস্থা নেওয়া হবে।

মন্তব্য



সাতদিনের সেরা