kalerkantho

বুধবার । ১ বৈশাখ ১৪২৮। ১৪ এপ্রিল ২০২১। ১ রমজান ১৪৪২

কাউন্সিলর প্রার্থী হলেন চা বিক্রেতা করিম

‘জনগণ চাইলে আমারে রাগের ভোট দেলতো পারে’

আঞ্চলিক প্রতিনিধি, ময়মনসিংহ   

১২ ফেব্রুয়ারি, ২০২১ ১৪:৩৩ | পড়া যাবে ২ মিনিটে



‘জনগণ চাইলে আমারে রাগের ভোট দেলতো পারে’

‘গত বছর এলাকার এক প্রার্থীর পক্ষ অইয়া নির্বাচনের আগে ব্যতিক্রম প্রচার করছি। বুকে পিঠে তাঁর প্রতীক লাগাইছি। মানুষ আমারে চাইয়া দেখছে। ওই প্রার্থী অনেক ভোটে পাসও করছে। তহন মনে চাইতো আমি যদি নির্বাচন করতে পারতাম। আল্লায় এইবার আমারে নির্বাচন করাইতাছে। চা বেইচ্চ্যা ও রিকশা চালানোর টেহা জমাইয়া ফরম কিইন্যা জমা দিছিলাম। আতো (হাতে) নগদ টেহা পয়সা নাই। দিনে যা আয় রোজগার অয় তাই সংসারে খরচ করি। আজগোয়া পানির বোতল প্রতীক পাইছি। কাউন্সিলর অইতাল্লেও চা বেচবাম ও রিকশা চালাইয়াবাম। যাতে মানুষ দুর্নীতিবাজ না কয়। আর জনগণ চাইলে আমারে দুর্নীতির বিরুদ্ধে রাগের ভোট দেলতো পারে। এই আশায় আইছ’। আজ শুক্রবার সকালে নির্বাচনী প্রতীক পাওয়ার পর এভাবে নিজের কথা ব্যক্ত করেন ময়মনসিংহের নান্দাইল পৌরসভার ৮ নং ওয়ার্ডের কাউন্সিলর প্রার্থী আব্দুল করিম (৬২)।

আব্দুল করিমের বাড়ি পৌরসভার চন্ডীপাশা মহল্লায়। দীর্ঘ প্রায় ৪০ বছর ধরে তিনি চা বিক্রি ছাড়াও রিকশা চালিয়ে জীবিকা নির্বাহ করছেন। ময়মনসিংহ-কিশোরগঞ্জ মহাসড়কের স্থানীয় নান্দাইল নতুন বাজার এলাকায় সড়কের পাশেই সওজের জায়গায় রয়েছে চায়ের দোকান। বাড়িতে ভীটে ছাড়া আর কিছুই নেই। প্রায় ১০ সদস্যের সংসারের খরচ জোগান হয় রিকশা চালিয়ে ও চা বিক্রি করে। এক ছেলে মমিন মিয়া (২২) তাকে চায়ের দোকানে সহযোগিতা করে। সকাল থেকে গভীর রাত পর্যন্ত চা বিক্রি চলে। করিম জানান, বেশ কয়েক বছর ধরে তিনি নির্বাচন করার জন্য মনস্থির করেছেন। এ ঘটনাটি প্রতিবেশীরা জানালে তাঁরাও উৎসাহ দেন নির্বাচন করার জন্য। করিম বলেন, নির্বাচনের মধ্যেও আমি এক বেলা চা বেচবাম বাকি সময় ভোট চাইয়াম।  মাছে মধ্যে রিকশাও চালাইয়াম। মানুষ বুঝক কাউন্সিলর অইলেও আমি এই কামই করবাম। তাঁরার সেবায় সবসময় নিয়োজিত থাকবাম। জনগণ ইচ্ছা করলে আমারে রাগের ভোটও দেলতো পারে। 

এ পৌরসভায় ভোট হবে আগামি ২৮ ফেব্রুয়ারি ইভিএমে।

মন্তব্য



সাতদিনের সেরা