kalerkantho

বৃহস্পতিবার । ১২ ফাল্গুন ১৪২৭। ২৫ ফেব্রুয়ারি ২০২১। ১২ রজব ১৪৪২

সেই নারী মাঝির আশা পূরণ করলেন প্রধানমন্ত্রী

শরীয়তপুর প্রতিনিধি   

১১ ফেব্রুয়ারি, ২০২১ ১৫:০৫ | পড়া যাবে ২ মিনিটে



সেই নারী মাঝির আশা পূরণ করলেন প্রধানমন্ত্রী

মিলন নেছা

শরীয়তপুরের গোসাইরহাট উপজেলার জয়ন্তী নদীর খেয়া ঘাটের নারী মাঝি মিলন নেছা। দীর্ঘদিন ধরে নৌকা টানেন তিনি। নদীর এপার আর ওপার করতে করতে মিলন নেছার কেটে গেছে দীর্ঘ আট বছর। দীর্ঘ ৩০ বছর ধরেই নৌকায় বসবাস তার।

উপজেলার ধীপুর গ্রামের মৃত কালু ব্যাপারীর বড় মেয়ে মিলন নেছা (৫২)। জীবনের শেষ সঞ্চয় দিয়ে চার শতক জমি কিনেছেন। কিন্তু ঘর তুলতে পারেননি। বড় ইচ্ছা ছিল একটি ঘর হলে সন্তান নিয়ে থাকবেন।

সম্প্রতি বিভিন্ন গণমাধ্যমে তাকে নিয়ে সংবাদ প্রকাশিত হলে বিষয়টি নজরে আসে প্রধানমন্ত্রীর। পরে তার কার্যালয় থেকে মিলন নেছাকে একটি ঘর নির্মাণ করে দেওয়ার জন্য জেলা প্রশাসনকে নির্দেশ দেওয়া হয়। গতকাল বুধবার (১০ ফেব্রুয়ারি) বিকেলে মিলন নেছার ঘরের কাজের উদ্বোধন করেন শরীয়তপুরের জেলা প্রশাসক পারভেজ হাসান।

মিলন নেছা জানান, নৌকায় রান্না-খাওয়া, নৌকায়ই বসবাস তার। নৌকা পারাপার করে কিছু টাকা সঞ্চয় করেছেন। জীবনের শেষ সঞ্চয় দিয়ে চার শতক জমিও কিনেছেন তিনি। কিন্তু ঘর তুলতে পারেননি। তার স্বামী রহম আলী সরদার ১৫ বছর আগে তাকে ও দুই ছেলেকে রেখে অন্যত্র বিয়ে করে চলে গেছেন। বড় ছেলে আব্দুল খালেক (২৬) বিয়ে করে আলাদা থাকেন। নদীর পাড়ে ছাউনি নৌকায় ছোট ছেলে আব্দুল মালেককে (২২) নিয়ে থাকেন তিনি।

মিলন নেছা বলেন, 'আগে নৌকায় মানুষ পারাপার করতাম, নৌকায়ই থাকতাম। প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা আমাকে ঘর দিছে। সন্তানদের নিয়ে ঘরে থাকবো। আমি খুবই খুশি।'

জেলা প্রশাসক পারভেজ হাসান বলেন, মুজিববর্ষে মাননীয় প্রধানমন্ত্রী গৃহহীন-ভূমিহীনদের ঘর ও জমি প্রদানের কার্যক্রম নিয়েছেন। তারই অংশ হিসেবে আজ আমরা শরীয়তপুরের নারী খেয়াঘাটের মাঝি মিলন নেছাকে একটি ঘর করে দিচ্ছি।

মন্তব্য



সাতদিনের সেরা