kalerkantho

বৃহস্পতিবার । ১৯ ফাল্গুন ১৪২৭। ৪ মার্চ ২০২১। ১৯ রজব ১৪৪২

খুলনা বিশ্ববিদ্যালয়

৩ শিক্ষকের চাকরিচ্যুতি কেন অবৈধ ঘোষিত হবে না জানতে চেয়েছেন আদালত

খুলনা বিশ্ববিদ্যালয় প্রতিনিধি   

৯ ফেব্রুয়ারি, ২০২১ ১৮:০৪ | পড়া যাবে ২ মিনিটে



৩ শিক্ষকের চাকরিচ্যুতি কেন অবৈধ ঘোষিত হবে না জানতে চেয়েছেন আদালত

খুলনা বিশ্ববিদ্যালয়ের এক শিক্ষককে বরখাস্ত ও দুই শিক্ষককে অপসারণের সিদ্ধান্তের আদেশ কেন অবৈধ ঘোষণা করা হবে না তা জানতে চেয়েছেন উচ্চ আদালত। আগামী চার সপ্তাহের মধ্যে বিশ্ববিদ্যালয় কর্তৃপক্ষকে তা জানাতে রুল জারি করা হয়েছে। মঙ্গলবার বিচারপতি কামরুল ইসলাম মোল্লা ও বিচারপতি মো. মুজিবর রহমান মিয়ার সমন্বয়ে গঠিত হাইকোর্ট বেঞ্চ ওই আদেশ জারি করেন। পাশাপাশি মামলা নিস্পত্তি না হওয়া পযন্ত বিশ্ববিদ্যালয়ের সিন্ডিকেট সভার আদেশ স্থগিত করে ওই তিন শিক্ষককে চাকরিতে বহাল রাখারও নির্দেশ দিয়েছেন আদালত।

ওই তিন শিক্ষকের আইনজীবী ব্যারিস্টার জ্যোতিময় বড়ুয়া জানান, গত বৃহস্পতিবার ওই তিন শিক্ষক উচ্চ আদালতে বিশ্ববিদ্যালয় সিন্ডিকেট সভার সিদ্ধান্ত প্রত্যাহার চেয়ে রিট আবেদন করেন। চারদিন পর ওই রিটের শুনানি অনুষ্ঠিত হয়েছে। আদালতের দ্বৈত বেঞ্চ মামলা নিষ্পত্তি না হওয়া পযন্ত তাঁদের চাকরি চালিয়ে যাওয়ার আদেশ দিয়েছেন। পাশাপাশি কেন ওই সিদ্ধান্ত অবৈধ ঘোষণা করা হবে না তা বিশ্ববিদ্যালয় কর্তৃপক্ষের কাছে জানতে চেয়েছেন।

তিনি বলেন, যেহেতু ওই তিন শিক্ষক এখনো তাঁদের দায়িত্ব হস্তান্তর করেননি তাই তাঁদের খুলনা বিশ্ববিদ্যালয়ে শিক্ষক হিসেবে কাজ চালিয়ে যেতে কোনো আইনি বাঁধা নেই।

পাঁচ দফা দাবিতে আন্দোলনরত শিক্ষার্থীদের 'উসকানি' দেওয়ার অভিযোগে খুলনা বিশ্ববিদ্যালয়ের বাংলা ডিসিপ্লিনের (বিভাগ) সহকারী অধ্যাপক মো. আবুল ফজলকে বরখাস্ত, একই ডিসিপ্লিনের প্রভাষক শাকিলা আলম এবং ইতিহাস ও সভ্যতা বিভাগের প্রভাষক হৈমন্তী শুক্লা কাবেরীকে অপসারণ করার সিদ্ধান্ত নেয় বিশ্ববিদ্যালয় কর্তৃপক্ষ। গত ২৩ জানুয়ারি বিশ্ববিদ্যালয় সিন্ডিকেটের ২১২ তম সভায় ওই সিদ্ধান্ত নেওয়া হয়। 

আবুল ফজল কালের কণ্ঠকে বলেন, উচ্চ আদালতের প্রতি সবসময়ই আস্থা ছিল। আদালতের এই আদেশের মধ্য দিয়ে ন্যায় প্রতিষ্ঠিত হয়েছে। 

বিশ্ববিদ্যালয়ের রেজিস্ট্রার (ভারপ্রাপ্ত) প্রফেসর খান গোলাম কুদ্দুস বলেন, এখনো কাগজপত্র হাতে পাইনি। পেলে বিশ্ববিদ্যালয় কতৃপক্ষ বিধি মোতাবেক ব্যবস্থা গ্রহণ করবে।

মন্তব্য



সাতদিনের সেরা