kalerkantho

শনিবার । ২১ ফাল্গুন ১৪২৭। ৬ মার্চ ২০২১। ২১ রজব ১৪৪২

ধামরাইয়ে অবৈধভাবে বহুতল ভবন নির্মাণ চলছে সরকারি সম্পত্তিতে

ধামরাই (ঢাকা) প্রতিনিধি   

২৮ জানুয়ারি, ২০২১ ১১:১২ | পড়া যাবে ২ মিনিটে



ধামরাইয়ে অবৈধভাবে বহুতল ভবন নির্মাণ চলছে সরকারি সম্পত্তিতে

ঢাকার ধামরাইয়ে সরকারি সম্পত্তিতে অবৈধভাবে বহুতল ভবন নির্মাণ করা হচ্ছে বলে অভিযোগ পাওয়া গেছে। ইউনিয়ন ভূমি অফিসের কর্মকর্তাদের বাধা উপেক্ষা করে এ ভবন নির্মাণের কাজ চলছে দ্রুত গতিতে। ঘটনাটি ঘটছে উপজেলার বাইশাকান্দা ইউনিয়নের বেরশ গ্রামে। 

ভূমি অফিস থেকে জানা গেছে, বেরশ মৌজার ১২৯ এসএ দাগ রূপান্তরে আরএস ১২৬ নং দাগে ৩.১৮ একর ভিপি (ভিপি কেস নং ২০১/৭৫) সম্পত্তি বেরশ গ্রামের মৃত সুকুমার মজুমদারের ছেলে অবসরপ্রাপ্ত সরকারি চাকরিজীবী সুরুজ কুমার মজুমদারের নামে লিজ দেওয়া হয়েছে। এর মধ্যে প্রায় পাঁচ শতাংশ ভূমিতে সংশ্লিষ্ট দপ্তরের বিনা অনুমতিতে অবৈধভাবে বহুতল ভবন নির্মাণ করছেন সুরুজ কুমার মজুমদার। 
গতকাল বুধবার সরেজমিনে গিয়ে এর সত্যতা পাওয়া গেছে।  

এ বিষয়ে জানতে সুরুজ কুমার মজুমদারের মুঠোফোনে যোগাযোগ করা হয়। তিনি দু’রকম কথা বলেছেন। তিনি একবার বলেন সরকারের সঙ্গে মামলা করে ডিক্রি পেয়েছি। আবার বলছেন আমার ক্রয়কৃত জমিতে বহুতল ভবন নির্মাণ করছি।

এদিকে কাগজপত্র ঘেঁটে দেখা যায়, বাংলা ১৪২৬ সন পর্যন্ত তিনি ওই ভূমির লিজ মানি পরিশোধ করেছেন। তবে প্রশ্ন থেকে যায় ক্রয়কৃত জমি হলে কেন লিজ মানি পরিশোধ করেছেন তিনি?

যাদবপুর ইউনিয়ন ভূমি সহকারী কর্মকর্তা সালেহ আহমেদ বলেন, সুরুজ কুমার মজুমদারের জমিতে নয়, ভিপি সম্পত্তিতেই তিনি কর্তৃপক্ষের বিনা অনুমতিতে অবৈধভাবে বহুতল ভবন নির্মাণ করছেন। ঘটনাস্থলে গিয়ে বাধা দিয়েছি। কিন্তু তিনি তা মানেননি। আমি সহকারী কমিশনারকে (ভূমি) জানিয়েছি। 

এ বিষয়ে সহকারী কমিশনার (ভূমি) অন্তরা হালদার বলেন, ভিপি সম্পত্তিতে কর্তৃপক্ষের অনুমতি সাপেক্ষে টিনের ঘর বা সেমি পাকা ঘর নির্মাণ করা যাবে। কিন্তু বহুতল ভবন নির্মাণ করা যাবে না। যদি করে থাকে তাহলে তদন্ত সাপেক্ষে প্রয়োজনীয় ব্যবস্থা গ্রহণ করা হবে। এ ছাড়া তিনি বলেন, মামলায় ডিক্রি হলেও জেলা প্রশাসকের কাছ থেকে অবমুক্ত করতে হবে। এর আগে কর্তৃপক্ষের অনুমোদন ছাড়া কোনো ধরনের কাজ করা যাবে না।  

মন্তব্য



সাতদিনের সেরা