kalerkantho

বৃহস্পতিবার । ১৯ ফাল্গুন ১৪২৭। ৪ মার্চ ২০২১। ১৯ রজব ১৪৪২

কোটালীপাড়ায় রাস্তা নির্মাণে বাধা, এলাকাবাসীর ক্ষোভ

কোটালীপাড়া (গোপালগঞ্জ) প্রতিনিধি   

২৫ জানুয়ারি, ২০২১ ১৬:৫৯ | পড়া যাবে ২ মিনিটে



কোটালীপাড়ায় রাস্তা নির্মাণে বাধা, এলাকাবাসীর ক্ষোভ

গোপালগঞ্জের কোটালীপাড়া উপজেলায় রাস্তা নির্মাণ কাজে বাধা দেওয়ায় এলাকাবাসীর মাঝে ক্ষোভের সৃষ্টি হয়েছে। অপরদিকে, নির্ধারিত সময়ের মধ্যে এ রাস্তা নির্মাণ করা না হলে বরাদ্দকৃত অর্থ ফেরত যাবে বলে জানিয়েছে স্থানীয় ইউপি চেয়ারম্যান।

জানা গেছে, প্রধানমন্ত্রীর বিশেষ প্রকল্পের আওতায় উপজেলার কলাবাড়ি ইউনিয়নের সাবেক মেম্বার চিত্ত সরকারের বাড়ি থেকে উপেন্দ্রনাথ সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয় হয়ে রাজৈর-কোটালীপাড়া সড়ক পর্যন্ত ১৬ শ মিটার মাটির রাস্তা নির্মাণের জন্য ৬৫ লাখ টাকা বরাদ্ধ দেওয়া হয়েছে।

গত কয়েকদিন আগে এ রাস্তা নির্মাণের কাজ শুরু হয়। কিন্তু চিত্ত সরকারের বাড়ি হতে উত্তর দিকে ৩ শ মিটার রাস্তা নির্মাণের পরে স্থানীয় নিরোদ বালা ও রণদা বালা এই রাস্তা নির্মাণ কাজে বাধা প্রদান করেন। তাদের বাধার ফলে রাস্তাটি নির্মাণে অনিশ্চয়তা দেখা দিয়েছে। যার ফলে এলাকাবাসীর মাঝে ক্ষোভের সৃষ্টি হয়েছে।

কলাবাড়ি ইউনিয়নের সাবেক মেম্বার চিত্ত সরকার বলেন, রাস্তাটি নির্মাণ হলে এ এলাকার প্রায় ৫/৭টি গ্রামের কয়েক হাজার লোকের স্কুল, কলেজ, হাট-বাজারে যেতে সুবিধা হবে। কিন্তু আমাদের এলাকার নিরোদ বালা ও রণদা বালা রাস্তা নির্মাণে বাধা দেওয়ায় আমাদের অনেক দিনের স্বপ্ন মুখ থুবড়ে পড়েছে। আমরা চাই দ্রুততম সময়ের মধ্যে যেন রাস্তাটি নির্মাণ করা হয়।

কলাবাড়ি রাধাকান্ত উচ্চ বিদ্যালয়ের শিক্ষার্থী অনামিকা রায় ও বৃষ্টি বিশ্বাস বলেন, বর্ষা মৌসুমে আমাদের নৌকা নিয়ে স্কুলে যেতে হয়। যার ফলে আমরা সময়মতো স্কুলে যেতে পারি না। রাস্তাটি নির্মাণ হলে আমাদের আর নৌকা নিয়ে স্কুলে যেতে হবে না। আমরা সঠিক সময়ে স্কুলে যেতে পারব।

কলাবাড়ি ইউনিয়ন পরিষদের চেয়ারম্যান মাইকেল ওয়া বলেন, নিরোদ বালা ও রণদা বালা অবৈধভাবে রাস্তা নির্মাণ কাজে বাধা দিয়েছেন। তারা যে স্থানে নিজেদের জায়গা দাবি করে এ রাস্তা নির্মাণে বধা দিয়েছেন সেটি সরকারি জায়গা। আমি বিষয়টি লিখিতভাবে উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা মহোদয়কে জানিয়েছি। যদি দ্রুত সময়ের মধ্যে রাস্তাটি নির্মাণ করা না তাহলে বরাদ্দকৃত অর্থ ফেরত চলে যাবে।

উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা এস এম মাহফুজুর রহমান বলেন, আমি বিষয়টি দেখার জন্য সংশ্লিষ্ট ইউনিয়নের তহশিলদারকে নির্দেশ দিয়েছি। তহশিলদার জায়গা মেপে আমাকে জানাবেন। আমরা দ্রুত সময়ের মধ্যে রাস্তা নির্মাণের ব্যবস্থা গ্রহণ করব। 

 

মন্তব্য



সাতদিনের সেরা