kalerkantho

শনিবার । ১৪ ফাল্গুন ১৪২৭। ২৭ ফেব্রুয়ারি ২০২১। ১৪ রজব ১৪৪২

নলছিটি পৌরসভা

আওয়ামী লীগের উন্নয়নের প্রতিশ্রুতি, বিএনপির দাবি সুষ্ঠু নির্বাচন

ঝালকাঠি প্রতিনিধি   

২৪ জানুয়ারি, ২০২১ ১৭:২৯ | পড়া যাবে ৩ মিনিটে



আওয়ামী লীগের উন্নয়নের প্রতিশ্রুতি, বিএনপির দাবি সুষ্ঠু নির্বাচন

ঢাকা সিটির পরই ১৮৬৫ সালে গঠিত হয় ঝালকাঠি জেলার নলছিটি পৌরসভা। দীর্ঘদিন কেটে গেলেও এ পৌরসভায় উন্নয়নের ছোঁয়া লাগেনি। রাস্তাঘাটের বেহাল অবস্থা। এখনো সবখানে পৌঁছায়নি বিদ্যুৎ। এ অবস্থায় তৃতীয় ধাপে আগামী ৩০ জানুয়ারি হতে যাচ্ছে নলছিটি পৌরসভা নির্বাচন। রাস্তাঘাটের উন্নয়ন ও আধুনিক পৌরসভা গড়ে তোলার প্রত্যয় নিয়ে মাঠে নেমেছেন মেয়র প্রার্থীরা। শুধু প্রতিশ্রুতির মধ্যে সীমাবদ্ধ নয়, যিনি প্রকৃত উন্নয়ন করবেন তাকেই ভোট দিয়ে মেয়র নির্বাচিত করতে চান ভোটাররা।

লঞ্চ কিংবা সড়কপথে নলছিটি পৌরসভায় প্রবেশ করলেই দেখা যাবে খানাখন্দে ভরা রাস্তাঘাট। এর মধ্যে প্রধান সড়ক দিয়ে যানবাহন চলাচল তো দূরের কথা পথচারীদের হাটাই দায়। বর্ষায় কাদা, আর শীতে খানাখন্দে ধুলোবালিতে একাকার। শহরের বেশকিছু এলাকায় রয়েছে কাচা রাস্তা, কোথাও খালের ওপর বাঁশের সাঁকোই ভরসা। ময়লা আবর্জনা ফেলার নির্দিষ্ট কোনো স্থান নেই। এ অবস্থায় আগামী ৩০ জানুয়ারি নলছিটি পৌরসভার নির্বাচনকে ঘিরে মেয়র ও কাউন্সিলর প্রার্থীরা শুরু করেছেন গণসংযোগ।

নির্বাচনে মেয়র পদে নৌকা প্রতীক নিয়ে আব্দুল ওয়াহেদ খান, ধানের শীষ প্রতীকে মো. মজিবুর রহমান ও হাতপাখা প্রতীকে মাওলানা মো. শাহ জালাল। এ ছাড়াও আওয়ামী লীগের বিদ্রোহী প্রার্থী কে এম মাছুদ খানের প্রার্থীতা আটকে আছে আদালতে। এদিকে ৯টি ওয়ার্ডে সাধারণ কাউন্সিল প্রার্থী ৪০ ও সংরক্ষিত ১৩জন নারী প্রার্থী লড়ছেন এ নির্বাচনে।

নলছিটি পৌরসভার ২৪ হাজার ১০১জন ভোটার রয়েছেন। এরমধ্যে ১২ হাজার ৫১জন নারী ও ১২ হাজার ৫০জন পুরুষ ভোটার। সুষ্ঠু, শান্তিপূর্ণ ও নিরপেক্ষ নির্বাচনের দাবি জানিয়েছেন এখানকার ভোটাররা।

নলছিটি পৌরসভার সারদল এলাকার বাসিন্দা একরামুল কবির রাসেল বলেন, আমরা সবসময়ই মুখিয়ে থাকি একটি সুষ্ঠু নির্বাচনের দিকে। কারণ আমাদের হাতে একটিই ক্ষমতা আছে, সেটা ভোটাধিকার প্রয়োগ করার। স্থানীয় সরকার নির্বাচনের সময় আমাদের এলাকার উন্নয়নের বিষয়টি উঠে আসে। নলছিটি একটি প্রাচীনতম পৌরসভা হওয়া সত্ত্বেও এখানের বাসিন্দারা সবধরনের সুবিধা থেকে বঞ্চিত।

শহরের ব্যবসায়ী দেলোয়ার হোসেন পান্নু বলেন, ১৮৬৫ সালের পৌরসভায় যে উন্নয়ন হওয়ার কথা ছিল, তা এখানে চোখে পড়বে না। আমরা একজন দক্ষ ও গুণী ব্যক্তিকে মেয়র হিসেবে দেখতে চাই। এ ধরনের প্রার্থীকে ভোট দিয়ে বিজয়ী করলে এলাকার উন্নয়ন হবে।

সংস্কৃতিকর্মী শাহীন আহম্মেদ বলেন, পৌরসভায় টেকসই উন্নয়ন করতে হবে। যাতে শহরের রাস্তাঘাটের উন্নয়ন, বিদ্যুত পৌঁছানো ও শিক্ষাপ্রতিষ্ঠান গড়ে ওঠে। এলাকায় থাকবে না কোনো মাদক ও সন্ত্রাসের বিচরণ। এগুলো যিনি করতে পারবেন তাকেই মেয়র হিসেবে দেখতে চাই।

ভোটারদের চাহিদার সঙ্গে একমত পোষণ করে আওয়ামী লীগ মনোনিত মেয়র প্রার্থী আবদুল ওয়াহেদ খান বলেন, আমি নির্বাচিত হলে দ্বিতীয় শ্রেণি থেকে নলছিটি পৌরসভাকে প্রথম শ্রেণিতে উন্নীত করা হবে। 

সুষ্ঠু নির্বাচন দাবি করে বিএনপি মনোনিত মেয়র প্রার্থী মো. মজিবুর রহমান বলেন, জনগণের একটাই চাওয়া সুষ্ঠু নির্বাচন। সুষ্ঠু ও শান্তিপূর্ণ নির্বাচন হলে আমার বিজয় শতভাগ। টেকসই উন্নয়ন করে পৌরসভাকে একটি মডেল পৌরসভায় রূপান্তর করার প্রতিশ্রুতি তার।

জেলা রিটার্নিং কর্মকর্তা মো. ওয়াহেদুজ্জামান বলেন, ১১ জানুয়ারি প্রতীক বরাদ্দের পর শান্তিপূর্ণভাবে প্রার্থীরা প্রচার প্রচারণা চালিয়ে যাচ্ছেন। এখন পর্যন্ত আচরণবিধি লঙ্ঘনের কোনো অভিযোগ পাওয়া যায়নি। আশাকরি সুষ্ঠু ও শান্তিপূর্ণভাবেই নির্বাচন অনুষ্ঠিত হবে।

মন্তব্য



সাতদিনের সেরা