kalerkantho

শনিবার । ২১ ফাল্গুন ১৪২৭। ৬ মার্চ ২০২১। ২১ রজব ১৪৪২

৬ ঘণ্টা পর বেনাপোলে আমদানি-রপ্তানি সচল

বেনাপোল (যশোর) প্রতিনিধি   

১৫ জানুয়ারি, ২০২১ ১৯:১৪ | পড়া যাবে ২ মিনিটে



৬ ঘণ্টা পর বেনাপোলে আমদানি-রপ্তানি সচল

ফাইল ছবি

প্রায় ৬ ঘণ্টা পর কাস্টমস ও সিএন্ডএফ এজেন্টস স্টাফ অ্যাসোসিয়েশনের মধ্যে সৃষ্ট জটিলতার অবসান হয়েছে। কর্মসূচি প্রত্যাহার করে নেওয়ায় সচল হয়েছে আমদানি-রপ্তানি কার্যক্রম।

বেনাপোল বন্দরে চোরাচালানে সহযোগিতার অভিযোগসহ বিভিন্ন অভিযোগ এনে বৃহস্পতিবার দুপুর ১২টা থেকে স্টাফ সদস্যরা কর্মবিরতি ডাক দিয়ে কাস্টমস কার্গো শাখার কার্যক্রম বন্ধ করে দেয়। একই সাঙ্গে কাস্টমস হাউজের সামনে বিক্ষোভ প্রতিবাদ সভা করে। ১০ দফা দাবিসহ চলমান সমস্যার সমাধান না হওয়া পর্যন্ত পণ্য খালাস বন্ধ থাকবে বলে জানানো হয়।

সিঅ্যান্ডএফ স্টাফ এ্যাসোসিয়েশনের সাধারণ সম্পাদক সাজেদুর রহমান জানান, অপরাধ করবে ভারতীয় ট্রাকচালক আর তার দোষ পড়বে সিঅ্যান্ডএফ স্টাফদের ওপর। এটা কোনোভাবে গ্রহণযোগ্য না। যে কারণে প্রতিবাদমুখর হয় সিঅ্যান্ডএফ স্টাফরা। এতে করে আমদানি-রপ্তানি বন্ধ থাকায় প্রবেশের অপেক্ষায় বন্দরের দুই পারে শত শত ট্রাক পণ্য নিয়ে আটকা পড়ে। এসব পণ্যের মধ্যে রয়েছে শিল্পকলকারখানার কাঁচামালসহ খাদ্য সামগ্রী ছিল।

পরে বৃহস্পতিবার দুপুরের পর কাস্টমস কর্তৃপক্ষের সঙ্গে আলোচনা হওয়ায় প্রায় ৬ ঘণ্টা পর কর্মবিরতি প্রত্যাহার করে নেওয়া হয়। সন্ধ্যা ৬টা থেকে পণ্য খালাস ও আমদানি-রপ্তানি সচল হয়েছে।

বেনাপোল সিএন্ডএফ স্টাফ অ্যাসোসিয়েশনের সভাপতি মুজিবর রহমান জানান, কাস্টমস কতৃপক্ষ ও সিএন্ডএফ নেতাকর্মীদের মধ্যে আলোচনা করে বিষয়টি সমাধান করা হয়েছে। ভুক্তভোগী আক্তারুজ্জামান আক্তারের কাস্টমস কার্ড ফিরিয়ে দিয়েছেন ও তার নামে কোনো মামলা হবে না বলে জানিয়েছেন কাস্টমস কতৃপক্ষ।

বেনাপোল কাস্টম হাউজের অতিরিক্ত কমিশনার ড. মো. নেয়ামুল ইসলাম জানান, বিষয়টি নিয়ে দুই পক্ষ আলোচনা করে সমাধান করা হয়েছে। পরে সিদ্ধান্ত হয়েছে ভারতীয় আমদানি ট্রাকে কোনো প্রকার অবৈধ পণ্য পাওয়া গেলে সেটার দায়ভার সিএন্ডএফ স্টাফ দায়ী থাকবে না। সেই সাথে চোরাচালান প্রতিরোধে কাস্টমস সদস্যদের আরো নিরাপত্তা জোরদার করার নির্দেশ দেওয়া হয়েছে। যাতে করে পরবর্তীতে এধরনের কোনো ঘটনা না ঘটে।

মন্তব্য



সাতদিনের সেরা