kalerkantho

শুক্রবার । ১৩ ফাল্গুন ১৪২৭। ২৬ ফেব্রুয়ারি ২০২১। ১৩ রজব ১৪৪২

ঘরের আড়ায় ঝুলছিলেন গৃহবধূ, স্বামী লাপাত্তা

আঞ্চলিক প্রতিনিধি, রংপুর   

১৯ ডিসেম্বর, ২০২০ ১২:৫০ | পড়া যাবে ২ মিনিটে



ঘরের আড়ায় ঝুলছিলেন গৃহবধূ, স্বামী লাপাত্তা

রংপুরের মিঠাপুকুরে নাসরিন বেগম (২৩) নামে এক গৃহবধূকে হত্যার পর লাশ ঝুলিয়ে রাখার অভিযোগ পাওয়া গেছে। আজ শনিবার (১৯ ডিসেম্বর) সকালে উপজেলার পায়রাবন্দ ইউনিয়নের কেশবপুর তকেয়াপাড়া থেকে তার লাশ উদ্ধার করেছে পুলিশ। এদিকে ঘটনার পর বাড়ি ছেড়ে পালিয়েছে নিহতের স্বামী রাজু মিয়া। ঘটনাস্থল পরিদর্শন করেছেন অতিরিক্ত পুলিশ সুপার কামরুজ্জামান। লাশ উদ্ধার করে ময়না তদন্তের জন্য রংপুর মেডিক্যাল কলেজ হাসপাতালের মর্গে পাঠানো হয়।

নিহতের স্বজন ও প্রতিবেশীদের সূত্রে জানা যায়, সাত বছর আগে রংপুর সদরের লক্ষনপাড়া গ্রামের ইলিয়াস আলীর মেয়ে নাসরিনের সঙ্গে রাজু মিয়ার বিয়ে হয়। বিয়ের কিছু দিন পর থেকে নাসরিন বেগমের সঙ্গে তার স্বামী রাজুর দাম্পত্য কলহ লেগেই ছিল। তাদের সংসারে ফাহিমা নামে ছয় বছরের এক কন্যাসন্তান রয়েছে। কিছুদিন আগে রাজু স্ত্রী নাসরিনের অনুমতি ছাড়াই গোপনে দ্বিতীয় বিয়ে করেন। এ নিয়ে স্বামী-স্ত্রীর মধ্যে বিবাদ লেগেই ছিল। এ নিয়ে গ্রাম্য সালিস-বৈঠক করে আপস করা হয়। ঘটনার দিন গত শুক্রবার রাত ১০টার দিকে স্বামী-স্ত্রীর মধ্যে আবারো বাগ্‌বিতণ্ডা ও হাতাহাতির ঘটনা ঘটে।

এদিকে আজ সকালের দিকে প্রতিবেশীরা জানতে পায় শোবার ঘরের আড়ার সঙ্গে নাসরিনের লাশ ঝুলছিল। খবর পেয়ে মিঠাপুকুর পুলিশ ঘর থেকে তার লাশ উদ্ধার করে। নিহতের পরিবারের দাবি হত্যার পর নাসরিনের লাশ ঘরের আড়ার সঙ্গে ঝুলিয়ে দিয়ে পালিয়েছে পাষণ্ড রাজু।

নিহতের ভাই মোকলেছার রহমান বলেন, বিয়ের পর থেকে আমার বোনকে নানা অজুহাতে মারধর করত রাজু। এ নিয়ে বহুবার মীমাংসা করে দেওয়া হয়। গতকাল আমার বোনকে বেদম মারপিট করে রাজু। প্রতিবেশীদের মাধ্যমে জানি আমার বোন মারা গেছে। আমার ধারণা বোনকে পিটিয়ে হত্যার পর রাজু লাশ ঝুলিয়ে দিয়ে বাড়ি ছেড়ে পালিয়ে গেছে।

এলাকাবাসী জানায়, রাজু মিয়া স্থানীয় একটি গার্মেন্টে শ্রমিকের কাজ করেন। সে মাদক সেবনসহ জুয়ার সঙ্গে জড়িত ছিল। তার বিরুদ্ধে এলাকায় বহু অপকর্মের অভিযোগ রয়েছে।

মিঠাপুকুর থানার ওসি আমিরুজ্জামান বলেন, এটি হত্যা না আত্মহত্যা তাৎক্ষণিকভাবে বলা যাচ্ছে না। মৃত্যুর সঠিক কারণ জানতে লাশ উদ্ধার করে মর্গে পাঠানো হয়েছে। বাড়ি ছেড়ে পালিয়েছে রাজু ও তার স্বজনরা। এ কারণে কাউকে গ্রেপ্তার করা যায়নি। 

মন্তব্য



সাতদিনের সেরা