kalerkantho

সোমবার । ২৩ ফাল্গুন ১৪২৭। ৮ মার্চ ২০২১। ২৩ রজব ১৪৪২

এইচএসসি পাসেই চক্ষু বিশেষজ্ঞ, ১৩ বছর ধরে করছেন অপারেশন!

অনলাইন ডেস্ক   

১৯ ডিসেম্বর, ২০২০ ০৭:৪৮ | পড়া যাবে ৩ মিনিটে



এইচএসসি পাসেই চক্ষু বিশেষজ্ঞ, ১৩ বছর ধরে করছেন অপারেশন!

র‍্যাবের অভিযান, ইনসেটে ভুয়া ডাক্তার আশরাফুল ইসলাম। ছবি: সংগৃহীত

এমবিবিএস ডিগ্রি নেই, পাস  করেছেন মাত্র এইচএসসি। তবুও ডাক্তার পদবি ব্যবহার করে দীর্ঘ ১৩ বছর ধরে দিচ্ছেন চিকিৎসা সেবা। করেছেন চোখের মতো স্পর্শকাতর অপারেশন। এমনই এক ভুয়া চক্ষু বিশেষজ্ঞের সন্ধান মিলেছে নাটোরের বাগাতিপাড়ায়। শুক্রবার (১৮ ডিসেম্বর) র‌্যাবের অভিযানে উপজেলার দয়ারামপুর বাজার থেকে আশরাফুল ইসলাম (৬০) নামের ভুয়া ওই চিকিৎসককে আটকের পর কারাদণ্ড দিয়েছেন র‌্যাবের ভ্রাম্যমাণ আদালত।

র‌্যাব ও স্থানীয় সূত্র জানায়, আশরাফুল ইসলাম দীর্ঘদিন ধরে বাগাতিপাড়া উপজেলার দয়রামপুর বাজারে রোগী দেখেন। এইচএসসি পাস করে তিনি ডাক্তার পদবি ব্যবহার করে সেখানে মানুষের চোখের চিকিৎসা দেন। দীর্ঘ ১৩ বছর ধরে ওই বাজারে তিনি এ কাজটি করছেন। বাজারের ‘কেয়া চশমা ঘর’ নামের একটি দোকানে বসে তিনি এই ভুয়া ডাক্তারি করে আসছিলেন। সেখানে সাইনবোর্ডে তিনি নামের আগে ডা. পদবি ব্যবহার করেন এবং নিজেকে নাটোর জেলার গুরুদাসপুর চক্ষু হাসপাতালের চক্ষু বিশেষজ্ঞ ও ইনচার্জ হিসেবে উল্লেখ করেন।

বিষয়টি র‌্যাবের নজরে এলে শুক্রবার র‌্যাব-৫ এর সিপিসি-২ এর এএসপি মাসুদ পারভেজের নেতৃত্বে ওই বাজারে এক অভিযান পরিচালনা করেন। সেখানে কেয়া চশমা ঘর থেকে আশরাফুল ইসলামকে আটক করা হয়। একই সাথে কেয়া চশমা ঘর এর সত্ত্বাধিকারী আক্কাস আলীকেও আটক করে র‌্যাব। আটকের পর তাদেরকে সেখানে পরিচালিত র‌্যাবের এক ভ্রাম্যমাণ আদালতে হাজির করা হয়।
সেখানে এমবিবিএস না হয়েও ডাক্তার পদবি ব্যবহার এবং ১৩ বছর ধরে ব্যবস্থাপত্রসহ চোখের চিকিৎসা দেওয়ার দায়ে আশরাফুল ইসলামকে দুই বছরের বিনাশ্রম কারাদণ্ড এবং ৫০ হাজার টাকা অর্থদণ্ড অনাদায়ে আরো তিন মাসের বিনাশ্রম কারাদণ্ড দেন ভ্রাম্যমাণ আদালত। এছাড়া এমবিবিএস ডিগ্রিধারী না হওয়ার বিষয়টি জেনেও দোকানের বিক্রি ও ব্যবস্থাপনার স্বার্থে ভুয়া চিকিৎককে দোকানে বসিয়ে চিকিৎসা দেওয়ার সুযোগ করে দেওয়ার অপরাধে কেয়া চশমা ঘরের সত্ত্বাধিকারী আক্কাস আলীকে ৭৫ হাজার টাকা অর্থদণ্ড অনাদায়ে তিন মাসের বিনাশ্রম কারাদণ্ড দেন ভ্রাম্যমাণ আদালত।

তবে আশরাফুল ইসলাম সাংবাদিকদের কাছে দাবি করেছেন, তিনি এইচএসসি পাসের পর এক বছরের ডিপ্লোমা কোর্স সম্পন্ন করেছেন।

ভ্রাম্যমাণ আদালতের নির্বাহী ম্যাজিস্ট্রেট জিয়াউর রহমান বলেন, মেডিক্যাল ও ডেন্টাল কাউন্সিল আইন-২০১০ অনুযায়ী ভুয়া ডাক্তার আশরাফুল ইসলামকে এবং ভোক্তা অধিকার আইন-২০০৯ অনুযায়ী চশমার দোকান মালিককে সাজা দেওয়া হয়েছে।

মন্তব্য



সাতদিনের সেরা