kalerkantho

রবিবার । ১৫ ফাল্গুন ১৪২৭। ২৮ ফেব্রুয়ারি ২০২১। ১৫ রজব ১৪৪২

অভিনব কৌশলে প্রতারণা, অবশেষে ধরা

দিনাজপুর প্রতিনিধি   

১৭ ডিসেম্বর, ২০২০ ২২:৩৯ | পড়া যাবে ২ মিনিটে



অভিনব কৌশলে প্রতারণা, অবশেষে ধরা

মনজুরুল ইসলাম (২৬)।

অসহায় ও দরিদ্র মানুষকে সরকারি বিভিন্ন ভাতা পাইয়ে দেওয়ার নামে টাকা নিয়ে প্রতারণা করার অভিযোগে মনজুরুল ইসলাম (২৬) নামের এক যুবককে আটক করে পুলিশ দিয়েছেন এলাকাবাসী। এ ঘটনায় উপজেলা সমাজসেবা অফিসার শুভ্রপ্রকাশ চক্রবর্তী ওই যুবকের বিরুদ্ধে থানায় লিখিত অভিযোগ করেছেন।

বৃহস্পতিবার দুপুরে দিনাজপুরের নবাবগঞ্জ উপজেলার কুসদহ ইউনিয়নে খলিফাপাড়া গ্রাম থেকে তাকে আটক করা হয়। আটক মনজুরুল ইসলাম জেলার বিরামপুর উপজেলার দিওড় ইউনিয়নের বিকশাও গ্রামের রেজাউল ইসলামের ছেলে। নবাবগঞ্জ থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) আশোক কুমার চৌহান বিষয়টি নিশ্চিত করেছেন।

স্থানীয় কুসদহ ইউনিয়নের চেয়ারম্যান সায়েম সবুজ বলেন, ‘বেশ কয়েক মাস আগে থেকেই কুসদহ ইউনিয়নের সাধারণ মানুষের কাছে গিয়ে কখনো বয়স্কভাতা, বিধবাভাতা, আবার কখনো ভাতাভুগীদের ব্যাংকে টাকা রাখাসহ বিভিন্নভাবে প্রতারণা করে আসছিল। এমন অভিযোগে ইউনিয়নে মাইকিং করে প্রতারণার ফাঁদে পা না দেওয়ার জন্য জনগণকে অনুরোধ করা হয়।’ 

বৃহস্পতিবার দুপুরে খলিফাপাড়া ইসরাফিল নামের এক ব্যক্তির বাড়িতে গিয়ে ভাতা উত্তোলোনের টাকা থেকে ব্যাংকে সঞ্চয় করার প্রস্তাব দিয়ে টাকা হাতিয়ে নেওয়ার চেষ্টা করেন ওই যুবক। পরে ওই ব্যক্তি স্থানীয় ইউপি সদস্য সাদিকুল ইসলামকে খবর দিলে তিনি এসে ওই যুবককে আটক করে থানা পুলিশকে সোপর্দ করে।

উপজেলা সমাজসেবা অফিসার শুভ্রপ্রকাশ চক্রবর্তী বলেন, ‘উপজেলার বিভিন্নগ্রামের মানুষের কাছ থেকে অভিনব কায়দায় প্রতারণার অভিযোগ পেয়ে গত মাসের ৯ তারিখে নবাবগঞ্জ থানায় একটি সাধারণ ডায়েরি করা হয়। আজ তার বিরুদ্ধে থানায় লিখিত অভিযোগ করা হয়েছে।’

নবাবগঞ্জ থানার ওসি অশোক কুমার চৌহান বলেন, ‘এলাকাবাসী ওই যুবককে আটক করে থানায় খবর দিলে পুলিশ গিয়ে তাকে থানায় নিয়ে আসে। আটক যুবক বিভিন্ন সময় যুবকের বিরুদ্ধে থানায় প্রতারণার মামলা করা হয়েছে।

মন্তব্য



সাতদিনের সেরা