kalerkantho

শনিবার । ২১ ফাল্গুন ১৪২৭। ৬ মার্চ ২০২১। ২১ রজব ১৪৪২

টহলরত পুলিশের ওপর মাদক কারবারিদের সশস্ত্র হামলা

নিজস্ব প্রতিবেদক, বগুড়া   

১৭ ডিসেম্বর, ২০২০ ২০:০৬ | পড়া যাবে ২ মিনিটে



টহলরত পুলিশের ওপর মাদক কারবারিদের সশস্ত্র হামলা

বগুড়ার শেরপুরে টহল পুলিশের ওপর হামলা চালিয়েছে সংঘবদ্ধ মাদক কারবারি ও তাদের স্বজনরা। এতে টাউন ফাঁড়ি পুলিশের দুই সদস্য গুরুতর আহত হয়েছেন।

আহতরা হলেন-পুলিশের সহকারি উপপরিদর্শক (এএসআই) আনিছুর রহমান ও পুলিশ কনস্টেবল রফিকুল ইসলাম, বর্তমানে স্থানীয় উপজেলা স্বাস্থ্যকমপ্লেক্সে চিকিৎসাধীন অবস্থায় রয়েছেন।

বুধবার (১৬ ডিসেম্বর) রাতে পৌরশহরের উত্তরসাহাপাড়া এলাকার শীর্ষ মাদক ব্যবসায়ী মোহাম্মদ আলীকে ধরতে টাউন ফাঁড়ি পুলিশের একটি টহল দল তার বাড়িতে অভিযান চালান। এ সময় ওই মাদক ব্যবসায়ী ও তার স্বজনরা অস্ত্রসস্ত্র নিয়ে পুলিশের ওপর হামলা চালায়।

এ ঘটনায় বৃহস্পতিবার (১৭ ডিসেম্বর) দুপুরে সরকারি কাজে বাধা ও পুলিশের ওপর হামলা-মারপিটের অভিযোগ এনে শেরপুর থানায় একটি মামলা করা হয়েছে। মামলায় তিনজনের নাম উল্লেখসহ আরো অজ্ঞাত ৮-৯ জন ব্যক্তিকে আসামি করা হয়েছে। এরমধ্যে উত্তর সাহাপাড়া এলাকার মৃত নান্টু মিয়ার ছেলে মোহাম্মদ আলীকে (৩০) গ্রেপ্তার করেছে পুলিশ।

মামলা সূত্রে জানা যায়, শেরপুর টাউন ফাঁড়ির সহকারি উপপরিদর্শক (এএসআই) আনিছুর  রহমান পুলিশ ফোর্স নিয়ে আইন শৃঙ্খলা রক্ষায় শহরে টহল দিচ্ছিলেন। একইসঙ্গে গ্রেপ্তারি পয়োয়ানা জারি থাকা ব্যক্তিদের ধরতেও চেষ্টা চালাচ্ছিলেন তারা। একপর্যায়ে গোপন সংবাদের ভিত্তিতে জানতে পারেন মাদক ও চুরি-ছিনতাই মামলার পলাতক আসামি মোহাম্মদ আলী নিজ বাড়িতে অবস্থান করছেন। এ খবর পেয়েই টহল পুলিশের দলটি তাকে ধরতে তার বাড়িতে হানা দেয়। বিষয়টি আঁচ করতে পেরে শীর্ষ মাদক কারবারি ও তার স্বজনরা সংঘবদ্ধ হয়ে পুলিশের ওপর হামলা চালায়। এমনকি তাদের বেধড়ক মারপিটে পুলিশ কনস্টেবল রফিকুল ইসলামের মাথা ফেটে যায়। এ ছাড়া পুলিশের এএসআই আনিছুর রহমানও আহত হয়েছে।

শেরপুর থানার পুলিশ পরিদর্শক (তদন্ত) এসএম আবুল কালাম আজাদ বলেন, এ ঘটনায় মামলা হয়েছে। গ্রেপ্তারকৃত মাদক কারবারিকে বৃহস্পতিবার সন্ধ্যায় আদালতের মাধ্যমে কারাগারে পাঠানো হয়েছে। এ ছাড়া মামলার অভিযুক্ত অন্যদের ধরতে পুলিশি অভিযান অব্যাহত রয়েছে।

মন্তব্য



সাতদিনের সেরা