kalerkantho

শনিবার । ১৪ ফাল্গুন ১৪২৭। ২৭ ফেব্রুয়ারি ২০২১। ১৪ রজব ১৪৪২

ডাকাতির প্রস্তুতিকালে আন্ত জেলা ডাকাতদলের চার সদস্য আটক

বামনা (বরগুনা) প্রতিনিধি   

৬ ডিসেম্বর, ২০২০ ০১:২৯ | পড়া যাবে ২ মিনিটে



ডাকাতির প্রস্তুতিকালে আন্ত জেলা ডাকাতদলের চার সদস্য আটক

বরগুনার বামনা উপজেলার ঢুষখালী গ্রামের ডাকাতির প্রস্তুতিকালে স্থানীয় জনতা টের পেয়ে ডাকাতদের ধাওয়া করলে সোনাখালী গ্রামের দীঘিরপাড় নামক স্থানে আন্ত জেলা ডাকাতদলের চার সদস্যকে আটক করেন তারা। পরে বামনা থানা পুলিশকে খবর দিলে পুলিশ ঘটনাস্থলে এসে জনতার হাত থেকে ডাকাতদের উদ্ধার করে থানায় নিয়ে আসেন। এ সময় তারা ডাকাতদের কাছ থেকে দেশীয় অস্ত্র, বোমা তৈরির সারঞ্জামাদি ও একটি এলইডি টিভি মনিটর উদ্ধার করে পুলিশ।

ডাকতরা গতকাল শনিবার দিবাগত রাত ৯টার দিকে ঢুষখালী গ্রামের এক সেনা সদস্যের বাড়িতে ডাকাতির প্রস্তুতিকালে স্থানীয়রা টের পেয়ে তাদের ধরে ফেলে।

গ্রেপ্তারকৃত ওই ডাকাতরা হলেন ঢুষখালী গ্রামের লালু মোল্লার ছেলে সগির মোল্লা (৪৫), একই গ্রামের সাহেব আলীর ছেলে রুমান (২২) লক্ষ্মীপুর জেলার রায়পুর গ্রামের মো. মুনসুরের ছেলে মো. মনির (২৮) ও পটুয়াখালী সদর উপজেলার হেতালিয়া বাধঘাট এলাকার মো. মানিকের ছেলে আল-আমীন (২৪)। 

ডাকাতদলের প্রস্তুতি নিতে প্রথম দেখতে পাওয়া স্থানীয় গ্রাম পুলিশ মো. সোহাগ জানান, আমি ঢুষখালীর একটি বাগানে কয়েকজনকে ঢুকতে দেখি। পরে স্থানীয় লোকদের নিয়ে আমরা তাদের ধাওয়া করি। প্রায় ৮-১০ জনের এই ডাকাতদলের সদস্য জনগণের ধাওয়া খেয়ে পালাতে থাকে ও একটি বোমা ফাটিয়ে আমাদের ভয় দেখায়। তারা দৌড়ে সোনাখালী দিঘিরপাড়ে এলে কয়েক শ জনতা মিলে এদের মধ্য থেকে চারজনকে ধরে গণধোলাই দেয়। বাকিরা পালিয়ে যায়। পরে পুলিশ এসে তাদের গ্রেপ্তার করে থানায় নিয়ে যায়।

বামনা থানার অফিসার ইনচার্জ মো. হাবিবুর রহমান বলেন, পুলিশ ও জনতা মিলে ওই আন্ত জেলা ডাকাতদলের চার সদস্যকে গ্রেপ্তার করে। তাদের বিরুদ্ধে মামলা নিয়ে বরগুনা জেলহাজতে পাঠানো হবে। 

মন্তব্য



সাতদিনের সেরা