kalerkantho

বুধবার । ১৩ মাঘ ১৪২৭। ২৭ জানুয়ারি ২০২১। ১৩ জমাদিউস সানি ১৪৪২

গোলাপী বেগমের জন্য শুভসংঘের 'গোলাপী স্টোর'

লালমনিরহাট প্রতিনিধি   

২৮ নভেম্বর, ২০২০ ২১:২১ | পড়া যাবে ৪ মিনিটে



গোলাপী বেগমের জন্য শুভসংঘের 'গোলাপী স্টোর'

'লালমনিরহাটে বর্বরতা: এক পা মাথার ওপর আরেক পা হাতে' শিরোনামে গত ১১ জুন কালের কন্ঠ’র প্রথম পাতায় একটি খবর প্রকাশিত হয়। সেখানে বলা হয়, 'আমি শ্বাস নিতে পারছি না’- যুক্তরাষ্ট্রে পুলিশের হেফাজতে নিহত কৃষ্ণাঙ্গ জর্জ ফ্লয়েডের এই বাক্য এখন মানুষের মুখে মুখে। নিন্দা-ধিক্কার-প্রতিবাদে গর্জে উঠেছে পুরো বিশ্ব। আমাদের দেশের মমিনুল ইসলামের কাহিনিও কোথায় যেন ফ্লয়েডের সঙ্গে মিলে যায়। বৃদ্ধ-অসুস্থ মায়ের চিকিৎসার জন্য অটো (শ্যালো ইঞ্জিনচালিত ইজি বাইক) থেকে দুই লিটার তেল চুরির দায়ে ১৮ বছর বয়সী এই তরুণ লালমনিরহাটের এক প্রভাবশালী ব্যক্তির বেধড়ক মারধরের শিকার হন। লালমনিরহাট সদর থানায় নির্যাতনের বর্ণনা দিতে গিয়ে মমিনুল বলেন, 'হাতে টাকা নেই, বাড়িতে মা অসুস্থ, তাই অটো (ইজি বাইক) থেকে দুই লিটার তেল নিয়েছিলাম। অটোর চালক আমাকে ধরে দুটি থাপ্পড় মেরে ছেড়ে দেন। এরপর এক মুরব্বি এসে আমাকে আবারও আটকে রড দিয়ে পিঠে বাড়ি দেন। গলার ওপর পা তুলে দেন। আমি অনেক হাত-পা ধরেছি, কিন্তু কথা না শুনে তিনি মারধর করতে থাকেন। আর দু-তিন মিনিট হলে আমি ওখানেই মারা যেতাম...।' 

নির্যাতনের শিকার সেই মমিনুলের মা গোলাপী বেগমকে 'বাঁচার অবলম্বন' করে দেওয়ার সীদ্ধান্ত নেয় শুভসংঘ। সেই অনুযায়ী আজ শনিবার দুপুরে তাকে 'গোলাপী স্টোর' হস্তান্তর করা হয়। একটি নতুন দোকানঘর তৈরি করে দেওয়ার পাশাপাশি কিছু মালামালও কিনে দেওয়া হয়েছে। পরিবারটি থাকে সরকারিভাবে গৃহহীনদের জন্য তৈরি লালমনিরহাট পৌর শহরের সাপটানা ১নম্বর আবাসনের একটি ঘরে। শারীরিকভাবে অসুস্থ এই নারীর ডাল-ভাত জোটে বোন আনোয়ারা বেগমের দয়ায়। তার বোন অন্যের বাড়িতে ঝিঁয়ের কাজ করে যা পান তা দিয়ে নিজে চলেন, চালিয়ে নেন গোলাপীকেও। 
বোনের সহায়তায় কোনো রকমে দিন কাটলেও নিজের চিকিৎসা করাতে পারেন না ওই নারী। কর্মহীন সেই গোলাপীর এখন হয়তো ফিরবে সুদিন। কারণ তিনি এখন 'গোলাপী স্টোরের' মালিক। সেই আবাসনের পাশেই তৈরি করা হয়েছে দোকানঘরটি।

দোকানটি উদ্বোধন উপলক্ষে পাশেই আয়োজন করা হয় আলোচনা অনুষ্ঠানের। এতে প্রধান অতিথি হিসেবে উপস্থিত ছিলেন লালমনিরহাটের জেলা প্রশাসক মো. আবু জাফর। অনুষ্ঠানে বক্তব্য রাখেন কবি ও সমাজকর্মী ফেরদৌসী রহমান বিউটি, লালমনিরহাট সদর উপজেলা পরিষদের ভাইস চেয়ারম্যান জাবেদ হোসেন বক্কর, শুভসংঘ’র কেন্দ্রিয় সিনিয়র সহসভাপতি ও কালের কণ্ঠর রংপুর ব্যুরো প্রধান স্বপন চৌধুরী, লালমনিরহাট প্রেসক্লাবের সাধারণ সম্পাদক ও এসএ টিভির প্রতিনিধি আশিকুর রহমান ডিফেন্স এবং সাপটানা ১ নম্বর আবাসন বহুমুখী সমবায় সমিতির সভাপতি রাশেদ ইসলাম।

বাংলাট্রিবিউন ও বণিক বার্তার লালমনিরহাট প্রতিনিধি মোয়াজ্জেম হোসেনের সঞ্চালনায় শুরুতে কালের কন্ঠ ও শুভসংঘের পক্ষে সবাইকে শুভেচ্ছা জানিয়ে স্বাগত বক্তব্য রাখেন কালের কণ্ঠর লালমনিরহাট প্রতিনিধি হায়দার আলী বাবু।
 
জেলা প্রশাসক তাঁর বক্তব্যের শুরুতে শুভসংঘকে ধন্যবাদ ও সাধুবাদ জানিয়ে বলেন, একটি অসহায় পরিবারের পাশে দাঁড়িয়ে একটি মানবিক উদ্যোগ নিয়েছে শুভসংঘ। আর এতে আমাদের যুক্ত করায় আমরা কৃতজ্ঞ। জেলা প্রশাসনের পক্ষ থেকে গোলাপী বেগমকে সর্বাত্মক সহযোগিতা করা হবে।

ফেরদৌসী রহমান বিউটি বলেন, গোলাপী বেগমকে একটি দোকানঘর হস্তান্তরের ঘটনাটি খুব বড় না হলেও এটি একটি মহৎ উদ্যোগ। মমিনুলের ঘটনাটি আমাদের সবাইকে নাড়া দিয়েছিল। যে কারণে তার মায়ের পাশে দাঁড়িয়েছে কালের কণ্ঠ শুভসংঘ। এজন্য আমরা উদ্যেক্তাদের ধন্যবাদ জানাচ্ছি।

স্বপন চৌধুরী বলেন, 'কালের কণ্ঠ পাঠক সংগঠন হিসাবে শুভসংঘ যাত্রা শুরু করলেও এটি এখন দেশের বৃহৎ একটি স্বেচ্ছাসেবী-সামাজিক সংগঠন। যার নেতৃত্বে রয়েছেন দুই বাংলার জনপ্রিয় কথাসাহিত্যিক ও কালের কণ্ঠ সম্পাদক ইমদাদুল হক মিলন।'

মন্তব্য



সাতদিনের সেরা