kalerkantho

মঙ্গলবার। ৫ মাঘ ১৪২৭। ১৯ জানুয়ারি ২০২১। ৫ জমাদিউস সানি ১৪৪২

'ভিক্ষাবৃত্তি জীবন নয়, জীবন হোক কর্মময়'

শফিক আদনান, কিশোরগঞ্জ   

২৮ নভেম্বর, ২০২০ ১৬:২৪ | পড়া যাবে ২ মিনিটে



'ভিক্ষাবৃত্তি জীবন নয়, জীবন হোক কর্মময়'

চারটি ছেলে জাহেরার। এর পরও নির্ভর করার মতো কেউ নেই এই বৃদ্ধার। ছেলেরা নিজেদের নিয়ে ব্যস্ত। ২০ বছর আগে স্বামীর মৃত্যুর পর নিজের সাধ-আহ্লাদ জলাঞ্জলি দিয়ে ছেলেদের আগলে রেখেছেন, বড় করেছেন। বাসাবাড়িতে কাজ করেছেন, ইটভাটায় খেটেছেন দিনের পর দিন। অপুষ্টি, অসুখ-বিসুখে বিপর্যস্ত এ নারীর শরীরে কাজ করে খাওয়ার আর শক্তি নেই। নেমেছিলেন ভিক্ষাবৃত্তিতে। এখানেও কত লজ্জা ও লাঞ্ছনা! কত না খেয়ে থাকার কষ্ট। ভাত জোটে তো নুন জোটে না, নুন জোটেতো ভাত থাকে না। এই অসহায় নারীর হাতে আজ (শনিবার) তুলে দেওয়া হয় একটি মুদি দোকানের চাবি।

কিশোরগঞ্জের করিমগঞ্জ উপজেলার কিরাটন ইউনিয়নের উত্তর বিলপাড়া গ্রামে মালামালসহ একটি দোকান করে দিয়েছে উপজেলা প্রশাসন। দোকানের মালিকানা পেয়ে খুশিতে কেঁদে ফেলেন জাহেরা। তিনি বলেন, ইচ্ছের বিরুদ্ধে তিনি এতদিন ভিক্ষা করেছেন। ভিক্ষায় মানুষের সম্মান থাকে না। এখন থেকে সম্মান নিয়ে বাঁচতে চান তিনি। জাহেরার মতো নিয়ামতপুর ইউনিয়নের ভয়রা গ্রামের বিধবা নারী সমলা বেগমের জীবনের কাহিনিও বেদনাময়। অবর্ণনীয় কষ্ট ছাড়া এ জীবনে তিনি কিছুই পাননি। তাঁকেও স্বাবলম্বী করতে দেওয়া হয়েছে মুদির দোকান। দোকান পেয়ে ভিক্ষা না করে বাকি জীবনটা দোকানের আয়-রোজগার দিয়ে পার করার অঙ্গীকার করেন তিনিও।

শুধু জাহেরা বা সমলা নয়, ৭৫টি হাঁস ও ৩০টি মুরগি উপহার দিয়ে নূরজাহান বেগমকে একটি খামার করে দেওয়া হয়েছে। একই সঙ্গে হাঁস-মুরগির তিন মাসের খাবারও দেওয়া হয় তাঁকে। তাঁদের মতো চরম অভাবী, যারা অবস্থার শিকার হয়ে ভিক্ষাবৃত্তিতে ছিলেন, এমন ১৪জন পুনর্বাসনের ব্যবস্থা করে উপজেলা প্রশাসন। দুজনকে মুদি দোকান, একজনকে হাঁস-মুরগির খামার, তিনজনকে রিকশা, তিনজনকে ভ্যানগাড়ি, সবজি দোকান, দুজনকে ছয়টি করে ছাগল ও একজনকে গাভি দেওয়া হয়। উপহার হিসেবে এগুলো পেয়ে অনেকে আবেগপ্রবণ হয়ে পড়েন।

কিশোরগঞ্জ-৩ (করিমগঞ্জ-তাড়াইল) আসনের সংসদ সদস্য মো. মুজিবুল হক চুন্নু এসব উপহার তাঁদের বুঝিয়ে দেন। ‘ভিক্ষাবৃত্তি জীবন নয়, জীবন হোক কর্মময়’ এ প্রতিপাদ্যকে সামনে রেখে সরকারের ভিক্ষুক পুনর্বাসন ও বিকল্প কর্মসংস্থান সৃষ্টি কর্মসূচির আওতায় তাদের এ সহায়তা দেওয়া হয়। 

মন্তব্য



সাতদিনের সেরা