kalerkantho

মঙ্গলবার। ৫ মাঘ ১৪২৭। ১৯ জানুয়ারি ২০২১। ৫ জমাদিউস সানি ১৪৪২

লাকসামে নিখোঁজের ৩দিন পর ডোবায় মিলল কিশোরের মরদেহ

লাকসাম (কুমিল্লা) প্রতিনিধি   

২৮ নভেম্বর, ২০২০ ১৩:২৭ | পড়া যাবে ২ মিনিটে



লাকসামে নিখোঁজের ৩দিন পর ডোবায় মিলল কিশোরের মরদেহ

নিখোঁজ হওয়ার তিন দিন পর কুমিল্লার লাকসাম পৌরশহরের কোমারডোগা এলাকার জনৈক ছোবহান মিয়ার একটি ডোবা থেকে গতকাল শুক্রবার (২৭ নভেম্বর) লাকসাম থানা পুলিশ আজাদ আহম্মেদ মুন্না (১৩) নামে এক কিশোরের মরদেহ উদ্ধার করেছে।

নিহত ওই কিশোর সিলেটের সুনামগঞ্জ জেলার দোয়ারা বাজার উপজেলার বড়হরি গ্রামের মঞ্জিল মিয়ার ছেলে। সে মা-বাবাসহ প্রায় এক বছর ধরে লাকসাম পৌর এলাকার গন্ডামারা গ্রামে মামার বাড়িতে বসবাস করতো।

পুলিশ ও পারিবারিক সূত্রে জানা গেছে, গত মঙ্গলবার (২৪ নভেম্বর) বিকেলে মুন্না ফুচকা খাওয়ার কথা বলে মায়ের কাছ থেকে ২০ টাকা নিয়ে ঘর থেকে বের হয়ে আর ফেরেনি। সন্ধার পরও বাড়ি ফিরে না আসায় পরিবার সদস্যরা তাকে নানা জায়গায় অনেক খোঁজাখুজি করেও না পেয়ে তার মা মনোয়ারা বেগম পরদিন বুধবার সকালে লাকসাম থানায় একটি সাধারণ ডায়েরী (জিডি) করেন।

এদিকে গতকাল শুক্রবার সকালে ওই এলাকার কয়েকজন কিশোর ক্রিকেট খেলতে গিয়ে বল হারিয়ে ফেলে। এ সময় তারা ক্রিকেট বল খুঁজতে গিয়ে ডোবায় একটি মরদেহ দেখতে পেয়ে চিৎকার দিলে আশেপাশের লোকজন ছুটে এসে মরদেহটি চিনতে পেরে স্বজনদের খবর দেয়। ওই কিশোরের স্বজনেরা ঘটনাস্থলে এসে মুন্নার মরদেহ শনাক্ত করে পুলিশে খবর দেয়।

সংবাদ পেয়ে লাকসাম থানা পুলিশ ঘটনাস্থলে পৌঁছে কিশোর মুন্নার মরদেহ উদ্ধার করে। নিহত ওই কিশোরের স্বজনদের দাবি এটি একটি পরিকল্পিত হত্যাকাণ্ড।

লাকসাম থানার অফিসার ইনচার্জ (ওসি) মো. নিজাম উদ্দিন ঘটনার সত্যতা নিশ্চিত করে বলেন, মরদেহটি উদ্ধার করে ময়নাতদন্তের জন্য কুমিল্লা মেডিক্যাল কলেজ (কুমেক) হাসপাতাল মর্গে পাঠানো হয়েছে। তিনি আরো বলেন, প্রকৃত ঘটনা উদঘাটনে বিষয়টি অত্যন্ত সূক্ষ্মভাবে তদন্ত করা হচ্ছে।

মন্তব্য



সাতদিনের সেরা