kalerkantho

রবিবার। ৩ মাঘ ১৪২৭। ১৭ জানুয়ারি ২০২১। ৩ জমাদিউস সানি ১৪৪২

ওয়াপদা বেড়ি বাঁধের বেহাল দশা, উপকূলবাসী আতঙ্কে

সাতক্ষীরা প্রতিনিধি   

২৭ নভেম্বর, ২০২০ ২১:৪৪ | পড়া যাবে ২ মিনিটে



ওয়াপদা বেড়ি বাঁধের বেহাল দশা, উপকূলবাসী আতঙ্কে

রক্ষণাবেক্ষণ আর সংস্কারের অভাবে শ্যামনগর উপকূলের কৈখালী আরবিজি ক্যাম্প সংলগ্ন কালুন্দী নদীর ওয়াপদা বেড়ি-বাঁধটি বেহাল দশায় পরিণত হয়েছে। যেকোনো সময় নদী ভাঙনের কবলে প্লাবিত হতে পারে কৈখালী ইউনিয়নসহ শত শত বিঘা মৎস্য ঘের। জরাজীর্ণ বেড়ি-বাধের কারণে নদী ভাঙন আতঙ্ক রাতের ঘুম কেড়েছে ইউনিয়নবাসীর।

সরেজমিনে স্থানীয়রা জানায়, কৈখালী আরবিজি কম্পানির ক্যাম্প সংলগ্ন ওয়াবদা বেড়ি-বাঁধটি দীর্ঘদিন অবহেলিত থাকলেও ঊর্ধ্বতন কর্তৃপক্ষ কোনো প্রকার পদক্ষেপ নেয়নি। শ্যামনগর উপজেলার বাংলাদেশ-ভারত সীমান্ত ঘেঁষা এই ইউনিয়নের লোকজন ও মৎস্য চাষিরা প্রতিনিয়ত জীবনের  ঝুঁকি নিয়ে বসবাস করে আসছি। ইতিমধ্যে ভাঙন দেখা দিয়েছে। যেকোনো সময় বড় ধরনের দুর্ঘটনা ঘটতে পারে। প্লাবিত হতে পারে পুরো ইউনিয়ন ও শত শত বিঘা মৎস্য ঘের। স্থানীয়রা আরও জানায়, নদী ভাঙনের আতঙ্কে আমাদের রাতের ঘুম কেড়ে নিয়েছে।

এ বিষয়ে কৈখালী ইউপি চেয়ারম্যান শেখ আব্দুর রহিম বলেন, ওয়াপদা ভেড়ি-বাঁধ দেখার দায়িত্ব পানি উন্নয়ন বোর্ডের। আমি ইতিপূর্বে আমার জনবল নিয়ে ভেড়ি-বাঁধ ঠিক করেছি এবং সামনে এক শত দিনের কর্মসূচির লোক নিয়ে সংস্কার করব’।

পানি উন্নয়ন বোর্ড শ্যামনগরের এসও মাসুদ রানা বলেন, আমরা আম্পানে ক্ষতিগ্রস্ত ভেড়ি-বাঁধ গুলো সংস্কার করেছি। বাকি জায়গাগুলো পর্যায়ক্রমে সংস্কার করা হবে। সরকারের নির্দেশনায় পানি উন্নয়ন বোর্ড একটি প্রকল্প হাতে নিয়েছে। সীমান্তবর্তী এলাকার ক্ষতিগ্রস্ত ভেড়ি-বাঁধ সংস্কার করা হবে’।

নদী ভাঙন রোধে ইউনিয়নবাসীর সার্বিক নিরাপত্তার স্বার্থে কৈখালীর কালিন্দী নদীর বেড়ি-বাঁধ সংস্কারের জন্য সংশ্লিষ্ট কর্তৃপক্ষের জরুরি হস্তক্ষেপ কামনা করা হয়েছে।

মন্তব্য



সাতদিনের সেরা