kalerkantho

রবিবার। ৩ মাঘ ১৪২৭। ১৭ জানুয়ারি ২০২১। ৩ জমাদিউস সানি ১৪৪২

এসিল্যান্ডের মামলায় ঘরছাড়া ১৫০ পরিবার

কমলগঞ্জ (মৌলভীবাজার) প্রতিনিধি   

২৭ নভেম্বর, ২০২০ ২০:৪৬ | পড়া যাবে ২ মিনিটে



এসিল্যান্ডের মামলায় ঘরছাড়া ১৫০ পরিবার

মৌলভীবাজারের কমলগঞ্জে উপজেলা সহকারী ভূমি (এসিল্যান্ড) দায়েরকৃত মামলায় ১১ দিন যাবত ধরে ঘর ছাড়া রাজকান্দি গ্রামের ১৫০ পরিবার। এ মামলায় কলেজছাত্রসহ ১০ জনকে গ্রেপ্তার করেছে পুলিশ। গ্রেপ্তার এড়াতে ও পুলিশি হয়রানির ভয়ে গ্রাম নারী-পুরুষ শুন্য হয়ে পড়েছে। প্রতিটি বাড়িঘরের দরজায় ঝুলছে তালা। প্রতিরাতে পুলিশ হানা দেয় গ্রামে।

খাস জমিতে প্রধানমন্ত্রীর আশ্রয় প্রকল্পের ঘর নির্মাণকালে উপজেলা সহকারী কমিশনার (ভূমি)-এর ওপর হামলা, পুলিশ সদস্য আহত ও সরকারি কাজে বাধা দানের অভিযোগে ১৬ নভেম্বর রাতে ১৩ জনের নাম উল্লেখ করে দায়ের করা হয়। মামলায় অজ্ঞাত আরো ৫৩ জনকে আসামি করেছেন বাদী এসিল্যান্ড। 

গ্রামের কিশোরী সুমি বেগম জানায়, আমার ভাই আনকার মিয়া ঘটনার দিন আদমপুর বাজারে বেলাল ঠিকাদারের অধীনে রাজমিস্ত্রির কাজ করেন। তিনি সন্ধ্যার পর বাড়ি ফেরেন। রাতে পুলিশ এসে তাকে ধরে নিয়ে যায়।

রাজকান্দি গ্রামের মামলায় আটক কলেজছাত্র মিজানুর রহমানের বৃদ্ধা মা দুর্লভজান বিবি বলেন, আমার ছেলে হামলার ঘটনায় সাথে জড়িত নয়। সে তখন ছিল না। কিন্তু পুলিশ তাকে আটক করে নিয়ে গেছে। 

নাম প্রকাশে অনিচ্ছুক স্থানীয় কয়েকজন বাসিন্দা বলেন, রাজকান্দি গ্রামের বর্তমান পরিস্থিতি পেছনে ইসলামপুরের দুই প্রভাবশালী ভাইয়ের  রাজনৈতিক ও গোষ্টিগত দ্বন্দ্বের জের হিসাবে এমন ঘটনার জন্ম দিয়েছে। আর পুলিশের অভিযান মনে হয়েছে যুদ্ধের জন্য তারা মাঠে নেমেছে।

স্থানীয় ইসলামপুর ইউনিয়ন পরিষদের চেয়ারম্যান আব্দুল হান্নান ঘটনার সঙ্গে জড়িতদের দৃষ্টান্তমূলক শাস্তি দাবি করেন। তবে কোনো নিরাপরাধ মানুষ হয়রানির শিকার না হয় সে বিষয়ে খেয়াল রাখার জন্য প্রশাসনের প্রতি দাবি জানান।

কমলগঞ্জ থানার ওসি আরিফুর রহমান বলেন, মামলা তদন্ত চলছে। ঘটনার সাথে প্রকৃত জড়িত যারা তাদেরকে আটক করা হচ্ছে। কোনো নিরপরাধ মানুষকে হয়রানি করা হচ্ছে না।

কমলগঞ্জ উপজেলা নিবাহী অফিসার আশেকুল হক বলেন, এ ঘটনায় একটি মামলা হয়েছে। পুলিশ বিষয়টি তদন্ত করছে। কোনো নিরপরাধ ব্যক্তি যেন হয়রানি না করা হয় তা বলে দেওয়া হয়েছে।

মন্তব্য



সাতদিনের সেরা