kalerkantho

সোমবার। ৪ মাঘ ১৪২৭। ১৮ জানুয়ারি ২০২১। ৪ জমাদিউস সানি ১৪৪২

প্রবাসীকে ইয়াবা দিয়ে ফাঁসানোর অভিযোগ বোয়ালখালী থানা পুলিশের বিরুদ্ধে

বোয়ালখালী (চট্টগ্রাম) প্রতিনিধি   

২৭ নভেম্বর, ২০২০ ১৭:৪০ | পড়া যাবে ২ মিনিটে



প্রবাসীকে ইয়াবা দিয়ে ফাঁসানোর অভিযোগ বোয়ালখালী থানা পুলিশের বিরুদ্ধে

চট্টগ্রামের বোয়ালখালীতে এক প্রবাসী যুকককে ইয়াবা দিয়ে ফাঁসানো অভিযোগ উঠেছে বোয়ালখালী থানা পুলিশের বিরুদ্ধে। বোয়ালখালী পৌরসভার পূর্ব গোমদন্ডী মৌলানা নুরুল হকের ছেলে মো. সাদেকের (২৭) সাথে এ ঘটনা ঘটেছে।

এ ঘটনায় গতকাল বৃহস্পতিবার পুলিশ কর্মকর্তা মো. ওমর ফারুকসহ সংশ্লিষ্টদের বিরুদ্ধে প্রবাসীর পিতা মৌলানা নুরুল হক বাংলাদেশ মহা পুলিশ পরিদর্শক বরাবর প্রতিকার চেয়ে ডাকযোগে অভিযোগ দায়ের করেছেন।

স্থানীয়দের বয়ান ও অভিযোগ সূত্রে জানা গেছে, পূর্ব গোদন্ডীর বাসিন্দা ওমান প্রবাসী মো. সাদেক ৮ মাস আগে ছুটিতে দেশে আসেন। করোনা ভাইরাস পরিস্থির কারণে সময়মতো কর্মস্থলে ফিরতে না পারায় তার ভিসার মেয়াদ উত্তীর্ণ হয়ে যায়। পরে করোনা পরিস্থিতি একটু শিথিল হলে আবার দেশের বাইরে যাওয়ার জন্য পুলিশ ভেরিফিকেশনসহ যাবতীয় কার্যাদি সম্পন্ন করার প্রক্রিয়া শেষ হতেই তার জীবনে নেমে আসে সংকট। এলাকার এক নারীর সাথে তার প্রেমের সম্পর্ক আছে দাবি করে একটি মহল ওই নারীকে বিয়ের করার জন্য চাপ সৃষ্টি শুরু করে সাদেককে। তার পরিবার ওই মেয়ের সাথে বিয়ে দিতে অনীহা প্রকাশ করে। এরপর সাদেকের বিদেশ যাওয়া আটকাতে কুচক্রি মহলটি কতিপয় রাজনৈতিক নেতা ও থানা পুলিশকে ম্যানেজ করে। তাদের ষড়যন্ত্রে গত ২১ নভেম্বর রাতে পুলিশ দিয়ে আটক করা হয় সাদেককে।

অভিযোগ উঠেছে, আটকের পর সাদেকের হাতে ইয়াবা দিয়ে তাকে ইয়াবা ব্যবসায়ী বলে স্বীকারোক্তি আদায় করে থানা পুলিশ। ৫১ পিস ইয়াবাসহ তাকে গ্রেপ্তার দেখিয়ে বোয়ালখালী থানার পুলিশ পরিদর্শক ওমর ফারুক বাদী হয়ে মাকদ্রব্য নিয়ন্ত্রণ আইনের ৩৬(১) ধারায় মামলা নং ১১ দায়ের করে আদালতে প্রেরণ করেন।

বোয়ালখালী থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) মো. আবদুল করিম বলেন, তদন্তে যদি এ ধরনের ঘটনার সত্যতা পাওয়া যায় তাহলে তদন্ত করে আইনগত ব্যবস্থা নেয়া হবে।

অভিযুক্ত বোয়ালখালী থানার উপ পরিদর্শক মো ওমর ফারুক বলেন, ফাঁসানোর কিছুই নাই। তার কাছ থেকে ইয়াবা উদ্ধার করা হয়েছে।

ভুক্তভোগী সাদেকের পিতা মৌলানা মো. নুরুল হক বলেন, আমি মসজিদের ইমামতি করে জীবিকা নির্বাহ করে সন্তানদের খেয়ে না খেয়ে মানুষ করেছি। মূলত এক নারীকে বিয়ে না করায় প্রভাবশালীরা পুলিশকে ম্যানেজ করে তার ছেলেকে ইয়াবা দিয়ে ফাঁসিয়েছেন বলে অভিযোগ করেন।

মন্তব্য



সাতদিনের সেরা