kalerkantho

মঙ্গলবার । ১২ মাঘ ১৪২৭। ২৬ জানুয়ারি ২০২১। ১২ জমাদিউস সানি ১৪৪২

পাচারকালে খাদ্যবান্ধব কর্মসূচির ২৩২ বস্তা চাল উদ্ধার

সিরাজগঞ্জ প্রতিনিধি   

২৬ নভেম্বর, ২০২০ ১৯:১৩ | পড়া যাবে ২ মিনিটে



পাচারকালে খাদ্যবান্ধব কর্মসূচির ২৩২ বস্তা চাল উদ্ধার

সিরাজগঞ্জের শাহজাদপুরে খাদ্যবান্ধব কর্মসূচির (১০ টাকা কেজি দরের) ২৭ বস্তা চাল পাচারের সময় উদ্ধার করা হয়েছে। উদ্ধার করা চাল কালোবাজারে বিক্রির উদ্দেশ্যে জনৈক ডিলালের গুদামে নিয়ে যাওয়া হচ্ছিল।

সংশ্লিষ্টরা জানায়, বুধবার বিকেলে শাহজাদপুর উপজেলার কৈজুরী ইউনিয়নের জগাতলা নতুনবাজার এলাকা দিয়ে সিএনজি চালিত ৪টি অটোরিকশাযোগে পাচারের সময় এলাকাবাসী ২৪ বস্তা চালসহ সিএনজিচালকদের আটক করে স্থানীয় প্রশাসনকে খরব দেয়।

খবর পেয়ে বুধবার সন্ধ্যায় শাহজাদপুরের সহকারী কমিশনার (ভূমি) মাসুদ হোসেন ও শাহজাদপুর থানার সাব-ইন্সপেক্টর আসাদ ঘটনাস্থলে উপস্থিত হন। এ সময় তারা পাচার হওয়া ২৪ বস্তা চাল জব্দ করেন এবং অটোচালকদের থানায় নিয়ে আসেন।

জিজ্ঞাসাবাদকালে অটোচালকরা জানায়, চর-কৈজুরী গ্রামের গ্রাম পুলিশ রমজান প্রামাণিকের ছেলে আব্দুল মতিন কৈজুরী বাজার সংলগ্ন নজরুলের বাড়ি থেকে ওই চাল তাদের গাড়িতে তুলে দেন।

উদ্ধার করা চালগুলো উপজেলার ভেড়াকোলা গ্রামের চালের ডিলার আমিন উদ্দিনের গুদামে নিয়ে যাওয়ার কথা ছিল। পরে গোপন সূত্রে খবর পেয়ে সহকারী কমিশনার (ভূমি) মাসুদ হোসেন ও থানা পুলিশের একটি দল বুধবার রাত ৯টার দিকে মতিনের গুদাম থেকে আরো ৩ বস্তা চাল ও ৩৬টি সরকারি চাউলের খালি বস্তা উদ্ধার করেন।

বৃহস্পতিবার দুপুরে শাহজাদপুরের সহকারী কমিশনার (ভূমি) মাসুদ হোসেন ঘটনার সত্যতা নিশ্চিত করে জানান, সরকারের খাদ্যবান্ধন কর্মসূচির ১০ কেজি দরের চাল কালোবাজারে বিক্রির সাথে জড়িতদের কাউকে ছাড় দেওয়া হবে না।

উপজেলা খাদ্য নিয়ন্ত্রক কর্মকর্তা মনিরুল হক জানান, ১০ টাকা কেজি দরের ন্যায্যমূল্যের চাল কালোবাজারির ঘটনায় জড়িত থাকার অভিযোগে গ্রাম পুলিশ রজমান প্রামাণিক, তার ছেলে আব্দুল মতিনসহ জড়িতদের বিরুদ্ধে মামলা দায়েরের প্রস্ততি চলছে।

এদিকে বৃহস্পতিবার বিকেলে সাড়ে ৪টার দিকে সদর উপজেলার কান্দাপাড়া হাট এলাকায় এক গুদামে অভিযান চালিয়ে খাদ্যবান্ধব কর্মসূচির (১০ টাকা কেজি দরের) ২০৫ বস্তা চাল উদ্ধার করা হয়। সদর উপজেলা খাদ্য নিয়ন্ত্রক মো. রফিকুল ইসলাম জানান, কান্দাপাড়া হাট এলাকায় গুদামে সরকারি চাল মজুদ রয়েছে এমন গোপন সংবাদেও ভিত্তিতে অভিযান চালিয়ে ২০৫ বস্তা চাল উদ্ধার করা হয়। গুদামের মালিক কামারখন্দ উপজেলার বাগবাড়ী ঘোষপাড়া গ্রামের রঘুনাথ ঘোষ। তিনি পলাতক রয়েছেন। এ বিষয়ে মামলা করা হবে।

মন্তব্য



সাতদিনের সেরা