kalerkantho

মঙ্গলবার । ১২ মাঘ ১৪২৭। ২৬ জানুয়ারি ২০২১। ১২ জমাদিউস সানি ১৪৪২

মাদকাসক্ত ছেলের হাতে বাবা খুন

সাতকানিয়া (চট্টগ্রাম) প্রতিনিধি   

২৬ নভেম্বর, ২০২০ ১৯:০১ | পড়া যাবে ২ মিনিটে



মাদকাসক্ত ছেলের হাতে বাবা খুন

চট্টগ্রামের লোহাগাড়ায় মাদকাসক্ত ছেলের হাতে বৃদ্ধ বাবা খুন হয়েছে। বাবার নাম আনন্দ মোহন ধর (৬৫)। গত বুধবার রাতের যেকোনো সময় উপজেলার উত্তর আমিরাবাদ বণিকপাড়ায় নিজ বাড়িতে বাবাকে ধারালো অস্ত্র দিয়ে কুপিয়ে হত্যা করা হয়। বৃহস্পতিবার দুপুরে পুলিশ নিহতের লাশ উদ্ধার করে। এ ঘটনায় জড়িত ছেলে লিটন ধর (৪০)-কে গ্রেপ্তার করা হয়।

নিহতের প্রতিবেশী আঁখি ধর জানান, আমিরাবাদ ইউনিয়নের উত্তর আমিরাবাদ বণিকপাড়ার মৃত সচিন্দ্র ধরের ছেলে আনন্দ মোহন ধর বাড়িতে একা থাকেন। মাঝেমধ্যে তার মাদকাসক্ত ছেলে লিটন ধর বাড়িতে আসে। ঘটনার দিন রাতে লিটন মাতাল অবস্থায় বাড়িতে এসে দরজা খোলার জন্য বাবাকে ডাকাডাকি করতে শুনেছি। সকাল ১০টা পর্যন্ত ঘরের দরজা বন্ধ থাকায় আমি একাধিকবার ডাকি। কিন্তু কোনো সাড়া শব্দ পায়নি। পরে দেখি দরজার পাশে টিনের বেড়া কাটা অবস্থায় রয়েছে। এরপর আশপাশের লোকজনকে ডাকাডাকি করে ঘরের দরজা ভেঙে প্রবেশ করে দেখি আনন্দ মোহন ধর রক্তাক্ত অবস্থায় খাটের নিচে পড়ে আছে। বিষয়টি জানাজানি হওয়ার পর পুলিশকে খবর দেওয়া হয়।

খবর পেয়ে লোহাগাড়া থানা পুলিশ দুপুরে ঘটনাস্থলে গিয়ে আনন্দ মোহনের লাশ উদ্ধার করে। বিকেলে আমিরাবাদ এলাকা থেকে ঘাতক ছেলে লিটন গ্রেপ্তার করে পুলিশ।

নিহতের পুত্রবধূ ও ঘাতক ছেলের স্ত্রী ঝিনু ধর জানান, আমার স্বামী মাদকাসক্ত। অনেক সময় বন্ধুদের সাথে নিয়ে ঘরে বসে জুয়া খেলত ও মদ খেত। এসবের প্রতিবাদ করায় আমাকে অনেক নির্যাতন করেছে। নেশাগ্রস্ত স্বামীর অত্যাচারে আমাকে বেশির ভাগ সময় ঘরের বাইরে থাকতে হয়েছে। লিটন তার বাবাকে ইতিপূর্বে একাধিকবার মারধর করেছে।

আমিরাবাদ ইউপি চেয়ারম্যান এস এম ইউনুস জানান, দুপুরে গ্রাম পুলিশের মাধ্যমে জানতে পেরেছি মাদকাসক্ত এক ছেলে কুপিয়ে তার বাবাকে হত্যা করেছে। বিষয়টি খুব দূঃখজনক।

লোহাগাড়া থানার ওসি মো. জাকির হোসাইন মাহামুদ জানান, নিহতের লাশ উদ্ধার করে ময়নাতদন্তের জন্য চমেক হাসপাতালের মর্গে প্রেরণ করেছি। এ ঘটনায় জড়িত ঘাতক ছেলে লিটন ধরকে গ্রেপ্তার করা হয়েছে। গ্রেপ্তারের পর লিটন ধর পুলিশের প্রাথমিক জিজ্ঞাসাবাদে কুপিয়ে বাবাকে হত্যার কথা স্বীকার করেছে। এ ঘটনায় একটি হত্যা মামলা প্রক্রিয়াধীন।

মন্তব্য



সাতদিনের সেরা