kalerkantho

বুধবার । ১৩ মাঘ ১৪২৭। ২৭ জানুয়ারি ২০২১। ১৩ জমাদিউস সানি ১৪৪২

পানছড়ির সাঁওতালপাড়ায় গৃহপালিত সজারু

পানছড়ি (প্রতিনিধি) খাগড়াছড়ি    

২৬ নভেম্বর, ২০২০ ০৯:৪৩ | পড়া যাবে ২ মিনিটে



পানছড়ির সাঁওতালপাড়ায় গৃহপালিত সজারু

খাগড়াছড়ির পানছড়ি উপজেলার বড় সাঁওতালপাড়া বা প্রদীপপাড়ায় মনের মতো ঘুরে বেড়ায় গৃহপালিত সজারু।

প্রাণিটি পাহাড়ি এলাকায় বিভিন্ন সম্প্রদায়ের মাঝে ভিন্ন ভিন্ন নামে পরিচিত। চাকমা সম্প্রদায়ে খুদুক, মারমায় প্রু, ত্রিপুরায় মাসুংদুই ও সাঁওতাল সম্প্রদায়ে ঝিন্ক নামেই পরিচিত। পোষমানা এই সজারু দেখতে চেংগী নদী পার হয়ে ছুটে আসেন দর্শনার্থীরা।

সরেজমিনে দেখা যায়, সামাই সাঁওতালের ঘরের ওপর দিয়ে দৌড়ে বেড়াচ্ছে একটি সজারুছানা। তার চলার পথে কেউ বাধা দিলেই মেলে দেয় গোটা শরীরের কাটা। 

সামাই সাঁওতালের ছেলে বর্ষ সাঁওতাল জানান, সব ধরনের খাবারই খায় এ প্রাণিটি। তবে বাঁশকুড়ুল, ভাত, দুধ এসব বেশি পছন্দ করে।

সামাই সাঁওতালের স্ত্রী জবা জানান, গত ভাদ্র মাসে জঙ্গলে তরকারি খুঁজতে গিয়ে সজারুর ছানাটিকে পানিতে পড়ে থাকতে দেখেন তিনি। এর পর ছানাটি তুলে বাড়িতে নিয়ে আসেন। সেই ছোট্ট প্রাণিটি আজ অনেক বড় হয়েছে। ঘরের এক কোনে বিছিয়ে দেওয়া খড়ে মন চাইলে ঘুমায়। তবে দিনের বেশিরভাগ সময়ে পুরো বাড়ি ঘুর ঘুর করে বেড়ায়। বর্তমানে প্রাণিটি তাঁদের পরিবারের সদস্যর মতো। সবাই তাকে আদর করে। গায়ে হাত বুলিয়ে দিলে মনের আনন্দে ঘুমায়।

খাগড়াছড়ি জেলা প্রাণিসম্পদ কর্মকর্তা মো. নুরুল আফসার বলেন, এই প্রাণি তো লোকালয়ে পোষ মানার কথা না। এটার গায়ের কাটাগুলো খুবই বিপদজনক। এর থেকে দূরে থাকাই ভালো। প্রাণিটি গহীন জঙ্গলের গর্তে থাকে।

মন্তব্য



সাতদিনের সেরা