kalerkantho

বুধবার । ১৩ মাঘ ১৪২৭। ২৭ জানুয়ারি ২০২১। ১৩ জমাদিউস সানি ১৪৪২

আজ বামনা হানাদারমুক্ত দিবস

বামনা (বরগুনা) প্রতিনিধি   

২৪ নভেম্বর, ২০২০ ১১:২২ | পড়া যাবে ২ মিনিটে



আজ বামনা হানাদারমুক্ত দিবস

আজ ২৪ নভেম্বর বামনা হানাদারমুক্ত দিবস। ওই দিন কুয়াশাচ্ছন্ন ভোররাতে বামনা থানা ভবন আক্রমণ করেন মুক্তিযোদ্ধারা। মুক্তিযোদ্ধাদের একের পর এক গ্রেনেড আর বুলেটের আঘাতে ক্ষতবিক্ষত হয় থানা ভবনের প্রতিটি প্রান্তর। লেজ গুটিয়ে পালিয়ে যেতে বাধ্য হয় পাক হানাদার বাহিনী ও রাজাকাররা। বামনা থানার পতাকাস্তম্ভে ওড়ানো হয় স্বাধীন বাংলার পতাকা। ভোরের সূর্য উদিত হওয়ার আগেই বামনা থানা হয় হানাদারমুক্ত।

জানা গেছে, নবম সেক্টরের সাব-সেক্টর হেডকোয়ার্টার বামনা উপজেলার বুকাবুনিয়ায় মুক্তিযোদ্ধাদের মুক্তাঞ্চল হিসেবে এখানে জড়ো হন দক্ষিণ-পশ্চিমাঞ্চলের জওয়ানরা। বুকাবুনিয়ায় প্রশিক্ষণ নিয়ে নবম সেক্টরের বিভিন্ন অঞ্চলে যুদ্ধে অংশ নেন মুক্তিযোদ্ধারা। একে একে মুক্ত করেন বিভিন্ন থানা। তেমনি ১৯৭১ সালের ২৪ নভেম্বর ভোররাতে মুক্তিকামী যোদ্ধারা পাকিস্তানিদের হাত থেকে বামনাকে মুক্ত করার জন্য থানা ভবন আক্রমণ করেন। থানার ভেতর থেকে পুলিশ ও রাজাকার বাহিনী প্রচণ্ডভাবে তাদেরকে প্রতিহত করার চেষ্টা চালায়। কিন্তু অদম্য মুক্তিযোদ্ধারা থানার উত্তর দিকে আকনবাড়ির বাগান ও দক্ষিণ দিকে সারওয়ারজান হাই স্কুল ও পশ্চিমে সদর মসজিদের চারদিকে একটি বেষ্টনী গড়ে তুলে থানা লক্ষ্য করে তুমুল বেগে গুলি চালাতে থাকেন। বাংলাদেশ সেনাবাহিনীর নায়েক আমীর হোসেন থানা ভবনের দিকে কয়েকটি গ্রেনেড ছুড়ে মারলে হানাদার ও রাজাকার বাহিনীর মধ্যে আতঙ্ক ছড়িয়ে পড়ে। এর কিছুক্ষণ পরই পাক সেনারা আত্মসমর্পণ করে। এ সময় কয়েকজন রাজাকার ও পাকিস্তানি সেনা নিহত হয়। ওই দিনই বামনা থানার পতাকা স্তম্ভে মুক্তিযোদ্ধারা বাংলাদেশের লাল সবুজ পতাকা উত্তোলন করে বিজয় উল্লাস করেন। 

বামনা থানা হানাদারমুক্ত দিবস উপলক্ষে বামনা উপজেলা কালের কণ্ঠ শুভসংঘের বন্ধুরা স্মৃতিচারণা অনুষ্ঠানের আয়োজন করেছেন। এতে প্রধান অতিথি থাকবেন বরগুনা জেলা প্রশাসক মোস্তাইন বিল্লাহ। এ ছাড়া বাংলাদেশের ওয়ার্কার্স পার্টি বামনা উপজেলা শাখার উদ্যোগে আলোচনাসভা অনুষ্ঠিত হবে। 

মন্তব্য



সাতদিনের সেরা