kalerkantho

রবিবার। ২১ অগ্রহায়ণ ১৪২৭। ৬ ডিসেম্বর ২০২০। ২০ রবিউস সানি ১৪৪২

সিঙ্গাইরে ১৩ ব্যবসায়ীকে অর্থদণ্ড, একজনের জেল

আঞ্চলিক প্রতিনিধি (মানিকগঞ্জ)   

২১ নভেম্বর, ২০২০ ০৪:১১ | পড়া যাবে ২ মিনিটে



সিঙ্গাইরে ১৩ ব্যবসায়ীকে অর্থদণ্ড, একজনের জেল

হেমায়েতপুর-সিঙ্গাইর-মানিকগঞ্জ আঞ্চলিক মহাসড়কের পার্শ্ববর্তী জায়গা দখল করে মালামাল রেখে যানবাহন চলাচলে প্রতিবন্ধকতা সৃষ্টির অভিযোগে ১৩ ব্যবসায়ীকে ১ লক্ষ ১০ হাজার টাকা জরিমানা ও একজনকে সাত দিনের কারাদণ্ড দিয়েছেন ভ্রাম্যমাণ আদালত।

শুক্রবার (২০ নভেম্বর) বিকালে নির্বাহী ম্যাজিস্ট্রেট ও উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা রুনা লায়লা এই দণ্ডাদেশ দেন। দণ্ডপ্রাপ্তরা হলেন- আব্দুর রাজ্জাক, আলমগীর হোসেন, মনির হোসেন, চাঁন মিয়া, আতাউর রহমান, আব্দুল মোমিন, নান্নু বেপারি, আলম হাওলাদার, কোহিনুর মল্লিক, লাঠু শেখ, সিরাজুল ইসলাম, এমদাদুল হক ও সায়েদুজ্জামান। এদের মধ্যে সায়েদুজ্জামানকে কারাদণ্ড ও বাকিদের অর্থদণ্ড করা হয়।

উপজেলা পরিষদ কার্যালয় সূত্রে জানা গেছে, হেমায়েতপুর-সিঙ্গাইর-মানিকগঞ্জ আঞ্চলিক মহাসড়কের পাশের জায়গা দখল করে কাঠ, ইট ও বিভিন্ন মালামাল রাখতেন ব্যবসায়ীরা। এতে যানবাহন চলাচলালে প্রতিবন্ধকতা সৃষ্টি হয়। এ কারণে প্রায়ই সড়কের কোনো না কোনো জায়গায় দুর্ঘটনা ঘটে জানমালের ব্যাপক ক্ষতি সাধন হতো। এমন অভিযোগের ভিত্তিতে শুক্রবার বিকালে সড়কটিতে অভিযান চালান উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা রুনা লায়লা।

এসময় সড়কের জায়গা দখল করে ব্যবসা প্রতিষ্ঠানের মালামাল রাখার অপরাধে ১৪ জনকে আটক করা হয়। পরে এদের মধ্যে ১৩ জনকে এক লাখ দশ হাজার টাকা জরিমানা ও একজনকে সাতদিনের কারাদণ্ড প্রদান করেন তিনি।

উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা রুনা লায়লা বলেন, অবৈধ দখলদারদের কারণে হেমায়েতপুর–সিঙ্গাইর-মানিকগঞ্জ আঞ্চলিক মহাসড়কটিকে মৃত্যুপুরীতে পরিণত হয়েছে। প্রায়ই সড়কের কোনো না কোনো জায়গায় দুর্ঘটনা ঘটে জানমালের ব্যাপক ক্ষতি সাধন হয়। সড়কটি নিরাপদ ও দুর্ঘটনামুক্ত করতে অবৈধ দখলদারদের উচ্ছেদ করার জন্য ভ্রাম্যমাণ আদালত পরিচালনা করা হয়। যতদিন পর্যন্ত সড়কটি দখলমুক্ত না হবে ততদিন অভিযান অব্যাহত থাকবে।

মন্তব্য



সাতদিনের সেরা