kalerkantho

শনিবার । ১৩ অগ্রহায়ণ ১৪২৭। ২৮ নভেম্বর ২০২০। ১২ রবিউস সানি ১৪৪২

সৎমা বাড়িতে নেই, তৃতীয় শ্রেণির ছাত্রী দেখল নিজ বাবা একজন পাষণ্ড

ধুনট (বগুড়া) প্রতিনিধি   

৩১ অক্টোবর, ২০২০ ১৬:২৯ | পড়া যাবে ২ মিনিটে



সৎমা বাড়িতে নেই, তৃতীয় শ্রেণির ছাত্রী দেখল নিজ বাবা একজন পাষণ্ড

বগুড়ার শেরপুর উপজেলায় আপন মেয়েকে ধর্ষণের অভিযোগে দায়ের করা মামলায় বাবা আব্দুল খালেককে (৪৫) গ্রেপ্তার করেছে পুলিশ। আব্দুল খালেকের বাড়ি শেরপুর উপজেলার কুসুম্বি ইউনিয়নের দ্বাড়কিপাড়া গ্রামে। শনিবার দুপুরের পর থানা থেকে আদালতের মাধ্যমে তাকে বগুড়া জেলা কারাগারে পাঠানো হয়।

মামলা সূত্রে জানা গেছে, আব্দুল খালেক পেশায় কুলি। ধর্ষণের শিকার মেয়েটি স্থানীয় একটি প্রাথমিক বিদ্যালয়ের তৃতীয় শ্রেণির ছাত্রী (১২)। মেয়েটি তার বাবা ও সৎমায়ের সঙ্গে শেরপুর শহর এলাকায় একটি ভাড়াবাসায় থাকে। গত ২০ অক্টোবর রাতে মেয়েটির সৎমা বাড়িতে ছিলেন না। এ সুযোগে আব্দুল খালেক রাতে ওই মেয়েকে ধর্ষণ করে। পরে এ বিষয়ে মুখ না খুলতে ভয়-ভীতি ও হুমকি দেয় তার বাবা। মেয়েটি ঘটনাটি কাউকে বলতে পারেনি।

ঘটনার পর থেকে মেয়েটি অসুস্থ হয়ে পড়ে। একপর্যায়ে তার মায়ের জিজ্ঞাসাবাদে মেয়েটি ধর্ষণের ঘটনা প্রকাশ করে। পরে ঘটনাটি নিয়ে শুক্রবার রাতে মেয়ে তার মায়ের সাথে এসে বাবার বিরুদ্ধে থানায় লিখিত অভিযোগ করে। অভিযোগের পর পুলিশ অভিযান চালিয়ে আব্দুল খালেককে নিজ গ্রাম থেকে গ্রেপ্তার করে। পরে ধর্ষণের অভিযোগটি মামলা হিসাবে গ্রহণ করে শনিবার দুপুরের পর আব্দুল খালেককে আদালতের মাধ্যমে কারাগারে পাঠায় পুলিশ।

বগুড়া শেরপুর থানার পুলিশ পরিদর্শক (তদন্ত) আবুল কালাম আজাদ বলেন, প্রাথমিক জিজ্ঞাসাবাদে মেয়েকে ধর্ষণের কথা স্বীকার করেছে আব্দুল খালেক। ধর্ষণের শিকার মেয়েটিকে পুলিশ হেফাজতে চিকিৎসা দেওয়া হচ্ছে।

মন্তব্য



সাতদিনের সেরা