kalerkantho

মঙ্গলবার । ৯ অগ্রহায়ণ ১৪২৭। ২৪ নভেম্বর ২০২০। ৮ রবিউস সানি ১৪৪২

সিরাজগঞ্জ-১ আসনের উপনির্বাচন

'হুনছি কিসে টিপ দিয়া ভোট হইবো, ওইল্লা তো বুজি না বাপু'

কাজিপুর (সিরাজগঞ্জ) প্রতিনিধি   

৩০ অক্টোবর, ২০২০ ১২:২২ | পড়া যাবে ৩ মিনিটে



'হুনছি কিসে টিপ দিয়া ভোট হইবো, ওইল্লা তো বুজি না বাপু'

ছবি: ভোটারদের সঙ্গে শুভেচ্ছা বিনিময় করছেন আওয়ামী লীগ প্রার্থী তানভির শাকিল জয়।

'হুনছি কিসে টিপ দিয়া ভোট হইবো। ওইল্লা তো বুজি না বাপু। আগে তো ওবা হয় নাই।' সদরজান বিবি। বয়স সত্তর। সংসারে তাঁর এক নাতি ছাড়া আর কেউ নেই। আসন্ন সংসদ উপনির্বাচনের ভোট-ভাবনার কথা জানতে চাইলে তেকানিচরের এই বৃদ্ধা এভাবেই নিজের কথা বলছিলেন। শুভগাছার দিনমজুর আখের আলীর আক্ষেপ অন্যখানে। তিনি বলেন, 'আগে ভোট আইসলে মেলা মানুষ বাড়িত আইসা ভোট চাইছে। ভোটের কয়েক দিন আমগোরে আদর বাইড়া গেছে। এহন সব জানি কেমন হই গেছে।'

সিরাজগঞ্জ-১ (কাজিপুরের ১২ ইউনিয়ন, ১ পৌরসভা ও সদরের ৫ ইউনিয়ন) আসনের উপনির্বাচন ঘিরে প্রচার-প্রচারণা চালাচ্ছে আওয়ামী লীগ। দলের নেতাকর্মীরা টিম গঠন করে গ্রামে গ্রামে ওয়ার্ডসভা করছেন। এ ছাড়া ইভিএম সম্পর্কেও তাঁরা ভোটারদের বোঝাচ্ছেন বলে জানিয়েছেন দলটির সাধারণ সম্পাদক ও কাজিপুর উপজেলা চেয়ারম্যান খলিলুর রহমান সিরাজী। তিনি বলেন, 'বাড়ি বাড়ি দলের লোকজন গিয়ে ছবি দেখিয়ে দেখিয়ে ভোট চাচ্ছেন এবং ইভিএম সম্পর্কে বোঝাচ্ছেন।'

প্রতীক বরাদ্দের পর থেকেই মাঠে রয়েছেন নৌকার প্রার্থী তানভির শাকিল জয়। উপজেলার চরবিড়া আর সদরের পাঁচ ইউনিয়নে পথসভা ও ভোটারদের সঙ্গে শুভেচ্ছাবিনিময় করছেন। দলীয় নেতাকর্মীরাও আলাদা দলে ভাগ হয়ে দিন-রাত প্রচারণা চালিয়ে যাচ্ছেন। এরই মধ্যে গত বুধবার (২৮ অক্টোবর) প্রয়াত মোহাম্মদ নাসিম স্মরণে এক শোকসভা অনুষ্ঠিত হয়। সেখানে পিতার অসমাপ্ত উন্নয়ন কর্মকাণ্ড শেষ করতে তিনি ভোটারদের কাছে ভোট চান। একই দিন মাইজবাড়ি ইউনিয়নের ঢেকুরিয়ায় বিশাল এক জনসভা করেন। বৃহস্পতিবার ( ২৯ অক্টোবর) তিনি চরের নাটুয়ারপাড়া ইউনিয়নে পথসভা করেছেন।

অন্যদিকে বিএনপির প্রার্থী সেলিম রেজা অত্যন্ত কৌশলে নিজেই কয়েকটি জায়গায় গিয়ে ভোট চেয়েছেন বলে জানান। তিনি বলেন, ‘এখনো দলের নেতাকর্মীদের নিয়ে মাঠে নামিনি। আগামী ৩ নভেম্বর নির্বাচনের প্রধান সমন্বয়কারী রুহুল কুদ্দুস তালুকদার দুলু ভাই আসবেন। তাঁকে নিয়ে কাজ করব।’

এসব প্রচারণার মাঝেও অনেক ভোটারই ভোট সম্পর্কে জানতে চাইলে নিশ্চুপ থাকেন। অনেকেই ভোটকেন্দ্রে যেতে অনীহার কথাও জানিয়েছেন। তাদের ধারণা, আ. লীগের ঘাঁটি কাজিপুরে নৌকা ছাড়া অন্য মার্কার জামানত বাতিল হয়। বিপক্ষ দল মাঠেও নেই। তাই নৌকা মার্কার জয় হবেই। অনেকেই বলছেন, আমি না গেলেও নৌকার জয় হবে।

এ বিষয়ে উপজেলা আ. লীগের সভাপতি আলহাজ শওকত হোসেন জানান, ‘আমরা এবার সর্বোচ্চ ভোট কাস্ট করার আশা করছি। সে লক্ষ্যে নেতাকর্মীরা ভোটারদের বাড়ি বাড়ি যাচ্ছেন।’

এ আসনে ২০০৮ সালে নবম জাতীয় সংসদ নির্বাচনে মামলার কারণে মোহাম্মদ নাসিম নির্বাচনে অংশ নিতে না পারায় ছেলে তানভির শাকিল জয় প্রতিদ্বন্দ্বিতা করেন এবং নির্বাচিত হন।

মন্তব্য



সাতদিনের সেরা