kalerkantho

বৃহস্পতিবার । ১৮ অগ্রহায়ণ ১৪২৭। ৩ ডিসেম্বর ২০২০। ১৭ রবিউস সানি ১৪৪২

ম্যাচের কাঠি দিয়ে বোমা তৈরির সময় বিস্ফোরণে কিশোর আহত

বরিশাল অফিস   

৩০ অক্টোবর, ২০২০ ০৮:৩২ | পড়া যাবে ২ মিনিটে



ম্যাচের কাঠি দিয়ে বোমা তৈরির সময় বিস্ফোরণে কিশোর আহত

ছবি: আহত কিশোর রাকিব মাল।

বরিশালের মেহেন্দীগঞ্জে বোমা তৈরির সময় বিস্ফোরণে রাকিব মাল (১৮) নামের এক কিশোর আহত হয়েছে। বৃহস্পতিবার (২৯ অক্টোবর) রাত সাড়ে ৯টার দিকে উপজেলার আন্ধারমানিক এলাকায় এ ঘটনা ঘটে। আহত কিশোর ওই এলাকার দিনমজুর কালাম মালের ছেলে। সে স্থানীয় একটি ওয়ার্কশপে কাজ করে। নিজ ঘরে বোমা তৈরির সময় বিস্ফোরণে সে আহত হয়। তাকে গুরুতর অবস্থায় বরিশাল শেরে-ই-বাংলা মেডিক্যাল কলেজ হাসপাতালে ভর্তি করা হয়েছে।

স্থানীয় সূত্র জানায়, বৃহস্পতিবার রাত সাড়ে ৯টার দিকে রাকিবদের ঘরের ভেতর থেকে বিকট শব্দ শুনে আশপাশের লোকজন এগিয়ে যায়। এ সময়ে রাকিবকে রক্তাক্ত অবস্থায় ঘরের সামনে পড়ে থাকতে দেখে দ্রুত পার্শ্ববর্তী হিজলা উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে নিয়ে যাওয়া হয়। খবর পেয়ে হিজলা থানা পুলিশ তাকে সেখান থেকে উদ্ধার করে উন্নত চিকিৎসার জন্য বরিশাল শেরে-ই-বাংলা মেডিক্যাল কলেজ হাসপাতালে পাঠায়।

স্থানীয় সরদার সোহাগ বলেন, বিকট শব্দ শুনে প্রথমে আমরা ভেবেছিলাম বিদ্যুতের ট্রান্সফরমার ব্লাস্ট (বিস্ফোরণ) হয়েছে। কিন্তু রাকিবদের ঘরের কাছে গিয়ে দেখি, দুই হাত রক্তাক্ত অবস্থায় ঘরের সামনে পড়ে আছে সে। আর ঘরের ভেতর থেকে কেমন যেন একটা ঝাঁঝালো গন্ধ বের হচ্ছে।

আহত রাকিবের সঙ্গে আসা তাঁর খালা আলেয়া বেগম বলেন, রাত ১০টার দিকে রাবিকের মা আমাদের ফোন দিয়ে জানায়, ম্যাচের কাঠি দিয়ে বোমা বানাতে গিয়ে সে আহত হয়েছে। রাকিবকে যেন হাসপাতালে নিয়ে যাই। ঘটনার সময় ঘরে তার ছোট ভাইও ছিল। তবে সে অক্ষত আছে। রাকিব স্থানীয় একটি ওয়ার্কশপে কাজ করে। আর তার বাবা কালাম মাল একটি ছ-মিলে শ্রমিকের কাজ করে।

হিজলা উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সের মেডিক্যাল অফিসার শাহরাজ হায়াৎ জানান, রাকিবের দুই হাতই গুরুতর জখম হয়েছে। দুই হাতেই পোড়া ক্ষত রয়েছে। তাকে উন্নত চিকিৎসার জন্য বরিশাল শের-ই-বাংলা মেডিক্যাল কলেজ হাসপাতালে পাঠানো হয়েছে।

মেহেন্দীগঞ্জের কাজীরহাট থানার ওসি সাজ্জাদ হোসেন বলেন, রাকিব ও স্থানীয়দের ভাষ্য অনুযায়ী ম্যাচের কাঠি দিয়ে একটি কৌটায় বোমা বানানোর চেষ্টা করছিল রাকিব। এ সময় সেটা বিস্ফোরিত হয়ে গুরুতর আহত হয় সে। ঘটনার পরপরই রাকিবের বাবা-মাসহ অন্যরা ঘর তালাবদ্ধ করে আত্মগোপনে চলে গেছেন। আহত রাকিবের ঘর তালাবদ্ধ রাখা হয়েছে। এ ঘটনায় পুলিশ বাদী হয়ে থানায় একটি মামলা দায়েরের প্রস্তুতি নিয়েছে।

 

মন্তব্য



সাতদিনের সেরা