kalerkantho

বুধবার । ৯ আষাঢ় ১৪২৮। ২৩ জুন ২০২১। ১১ জিলকদ ১৪৪২

ভাগ্যবান ইউপি সদস্য, তিন বছর অনুপস্থিত তবুও টিকে আছে পদ!

ঘাটাইল (টাঙ্গাইল) প্রতিনিধি   

২৯ অক্টোবর, ২০২০ ০৯:০৩ | পড়া যাবে ৩ মিনিটে



ভাগ্যবান ইউপি সদস্য, তিন বছর অনুপস্থিত তবুও টিকে আছে পদ!

ভাগ্যবান ইউপি সদস্য মনিরুজ্জামান মনির, ফাইল ছবি।

তিন বছর ধরে ইউনিয়ন পরিষদের সভায় অনুপস্থিত তবুও টিকে আছে তার ইউপি সদস্য পদ। এই ভাগ্যবান ইউপি সদস্য হলেন টাঙ্গাইলের ঘাটাইল উপজেলার দিঘলকান্দি ইউনিয়নের ৮ নং ওয়ার্ডের সাধারণ সদস্য (মেম্বার) মোঃ মনিরুজ্জামান মনির। তার অনুপস্থিতির বিষয়টি উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তাকে জানানো হলেও কোন পদক্ষেপ গ্রহণ করা হয়নি বলে দাবী ইউপি চেয়ারম্যানের।

জানা যায়, ২০১৭ সালের ৫ জুন দেশব্যাপী মাদকবিরোধী অভিযানের সময় উপজেলার হামিদপুর বাজার থেকে পুলিশের হাতে গ্রেপ্তার হন ইউপি সদস্য মনির। গ্রেপ্তারের কিছু দিন পর আদালত থেকে জামিনে বের হওয়ার পরেই এলাকা ছাড়েন তিনি। তার পর থেকে তিনি নিখোঁজ রয়েছেন, প্রবাসে চলে গেছেন না আত্মগোপনে রয়েছেন তা সঠিকভাবে কেউ বলতে পারে না। তবে তার পরিবারের লোকজনের দাবী তিনি বিদেশে চলে গেছেন। সম্প্রতি তিনি এলাকায় অবস্থান করছেন বলে দাবি এলাকাবাসীর।

খোঁজ নিয়ে জানা যায়, ২০১৭ সালের আগষ্ট মাসে উপজেলা নির্বাহী অফিসারের কার্যালয় থেকে তিনি সর্বশেষ সম্মানী ভাতা উত্তোলন করেছেন। তার অনুপস্থিতির বিষয়টি রেজুলেশন করে লিখিতভাবে ২০১৯ সালে ২৫ সেপ্টেম্বর উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তাকে জানিয়েছেন বলে দাবি করেছেন ইউপি চেয়ারম্যান নজরুল ইসলাম। উপজেলা নির্বাহী অফিসারের কার্যালয় ২০১৯ সালের ৩ অক্টোবর বিষয়টি জেলা প্রশাসককে চিঠির মাধ্যমে অবগত করেছেন। স্থানীয় সরকারের ইউনিয়ন পরিষদের আইনের বিধিমালায় পরপর তিনটি সভায় উপস্থিত না থাকলে তার সদস্য পদ বাতিল হওয়ার বিধান আছে। অথচ দীর্ঘ তিন বছর যাবৎ পরিষদের সভায় অনুপস্থিত থাকলেও তার সদস্য পদ টিকে আছে।

মনিরুজ্জামান মনির উপজেলার নাটশালা গ্রামের শাহজাহান তালুকদারের ছেলে। তিনি ২০১৬ সালের নির্বাচনে দিঘলকান্দি ইউনিয়নের ৮ নং ওয়ার্ড থেকে ইউপি সদস্য নির্বাচিত হন। সে একজন চিহিৃত মাদক ব্যবসায়ী। তার বিরুদ্ধে ঘাটাইল থানায় মাদক দ্রব্য নিয়ন্ত্রন আইনে এক ডজনেরও বেশী মামলা রয়েছে। এলাকাবাসীর অভিযোগ এক সময় দিনমজুরের কাজ করা মনির মেম্বার মাদকের ব্যবসা করে গ্রামের বাড়িতে বহুতল ভবন নির্মাণসহ প্রচুর অর্থভিত্তের মালিক হয়েছেন।

দিঘলকান্দি ইউপি চেয়ারম্যান মোঃ নজরুল ইসলাম বলেন, তিনি গত তিন বছর যাবৎ ইউনিয়ন পরিষদের কোন সভায় উপস্থিত হননি। ইউনিয়ন পরিষদের সভায় তার অনুপস্থিতির বিষয়টি গত এক বছর আগে লিখিতভাবে উপজেলা নির্বাহী অফিসারকে জানানো হয়েছে। গত দুই আড়াই বছর তিনি এলাকায় ছিলেন না। প্রথম দিকে তার আত্বীয়স্বজনের কাছে শুনেছিলাম বিদেশ চলে গেছেন। তবে বর্তমানে তিনি মাঝে মাঝে এলাকায় আসেন বলে শুনেছি।

ইউপি সদস্য মনিরের বাবা শাহজাহান তালুকদার জানান, দুই বছরেরও বেশী সময় তিনি প্রবাসে ছিলেন। ৬/৭ মাস আগে দেশে এসেছেন। তার বিরুদ্ধে করা সকল মামলায় তিনি জামিনে আছেন।

উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা অঞ্জন কুমার সরকার বলেন, বিষয়টি আমার নজরে এসেছে । এ ব্যাপরে আইনগত ব্যবস্থা গ্রহন করার জন্য উর্ধ্বতন কতৃপক্ষকে চিঠি দিয়ে জানানো হয়েছে।



সাতদিনের সেরা