kalerkantho

মঙ্গলবার । ৯ অগ্রহায়ণ ১৪২৭। ২৪ নভেম্বর ২০২০। ৮ রবিউস সানি ১৪৪২

পানির নিচে শরণখোলা

শরণখোলা (বাগেরহাট) প্রতিনিধি   

২৩ অক্টোবর, ২০২০ ২০:৪১ | পড়া যাবে ৩ মিনিটে



পানির নিচে শরণখোলা

বাগেরহাটের শরণখোলার অধিকাংশ এলাকা বৃষ্টির পানিতে তলিয়ে গেছে। গত দুইদিন ধরে লাগাতার ভারি বর্ষণে উপজেলার চারটি ইউনিয়নের কমপক্ষে ৪০টি গ্রাম এখন পানি নিচে। পানিবন্দি হয়ে পড়েছে অর্ধ লক্ষাধিক পরিবার। হাজার হাজার মানুষের বসত ঘরের মধ্যে হাঁটু পানি। দুই দিন ধরে অসংখ্য পরিবারে চুলো জ্বলেনি। সরকারি খাদ্য গুদাম, পোস্ট অফিস, টেলিফোন অফিস, হাসপাতাল চত্বর, মাঠ-ঘাটে কোমর সমান পানি। বিদ্যুৎ বিচ্ছিন্ন রয়েছে সারাদিন।

সরকারি হিসাবে দেড় হাজার ঘের ও পুকুরের মাছ ভেসে যাওয়ার তথ্য পাওয়া গেলেও স্থানীয়দের তথ্যমতে এর সংখ্যা আরো কয়েক গুণ বেশি। কয়েক হাজার হেক্টর আমন ও অন্যান্য ফসলের ক্ষেত ডুবে রয়েছে পানিতে। কয়েকটি খামারের সহস্রাধিক হাঁস-মুরগি মারা যাওয়ার খবর পাওয়া গেছে। আঞ্চলিক মহাসড়কের চারটি স্থানে ভয়াবহ ভাঙনের সৃষ্টি হয়েছে। বৃষ্টির পানিতে কয়েক কোটি টাকার ক্ষতির পাশাপাশি সীমাহীন দুর্ভোগে পড়েছে মানুষ।

সকাল থেকে উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা সরদার মোস্তফা শাহিন পানিবন্দি বিভিন্ন এলাকা পরিদর্শন করেছেন। ফায়ার সার্ভিসের টিম ও স্থানীয়দের সহযোগিতায় খাদ্য গুদামের পানি নিষ্কাশনের চেষ্টা করছে।

ধানসাগর ইউনিয়নের চেয়ারম্যান মইনুল ইসলাম টিপু জানান, তার ইউনিয়নের ৮টি গ্রামের ১০ সহস্রারাধিক পরিবারে ঘরবাড়ি তলিয়ে গেছে। বহু পরিবার রান্নাবান্না করতে পারছে না। অনেকের শুকনা খাবার খেয়ে দিন কাটছে।

খোন্তাকাটা ইউনিয়নের চেয়ারম্যান জাকির হোসেন খান মহিউদ্দিন জানান, তার ইউনিয়নের ১৩টি গ্রামের প্রায় ২০ হাজার পরিবারে ঘরবাড়িতে বৃষ্টির পানি ঢুকে পড়েছে। তিন সহস্রাধিক পুকুর এবং তিন শতাধিক ঘের তলিয়ে সমস্ত মাছ ভেসে গেছে। 

রায়েন্দা ইউনিয়ন পরিষদের চেয়ারম্যান আসাদুজ্জামান মিলন জানান, সরকারি গুরুত্বপূর্ণ বেশিরভাগ প্রতিষ্ঠান তার ইউনিয়নে অবস্থিত। এর মধ্যে পানিতে তলিয়ে গেছে পোস্ট অফিস ও খাদ্য গুদাম, টেলিফোন অফিস এবং হাসপাতাল চত্বর।

সাউথখালী ইউনিয়ন পরিষদের চেয়ারম্যান মো. মোজাম্মেল হোসেন জানান, তার ইউনিয়নের ১০টি গ্রাম তলিয়ে গেছে। পানিবন্দি হয়ে পড়েছে প্রায় ১৫ হাজার পরিবার।

উপজেলা জ্যেষ্ঠ মৎস্য কর্মকর্তা জানান, প্রাথমিক হিসাবে সরকারি তালিতাভুক্ত ১৪৫০টি ঘের ও পুকুরের মাছ ভেসে যাওয়া তথ্য পাওয়া গেছে। যার ক্ষতি পরিমান এক কোটি ২৪ লাখ টাকা নির্ধারণ করে উর্ধ্বতন কর্তৃপক্ষের কাছে পাঠানো হয়েছে।

কৃষি অফিস সূত্রে জানা যায়, প্রাথমিক হিসাবে এক হাজার হেক্টর আমন, ২০ হেক্টর সবজি ও এক হেক্টর পান ক্ষতিগ্রস্ত হয়েছে।

উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা সরদার মোস্তফা শাহিন বলেন, সকাল থেকে ক্ষতিগ্রস্ত বিভিন্ন এলাকা ঘুরে মানুষের দুর্ভোগের চিত্র দেখেছি। দ্রুত পানি নিষ্কাশনের জন্য পানি উন্নয়ন বোর্ড কর্তৃপক্ষকে বেড়ি বাঁধের সকল স্লুইস গেট খুলে দেওয়ার বলা হয়েছে।

 

মন্তব্য



সাতদিনের সেরা