kalerkantho

শুক্রবার । ১২ অগ্রহায়ণ ১৪২৭। ২৭ নভেম্বর ২০২০। ১১ রবিউস সানি ১৪৪২

লাকসামে ৩৪টি পূজামণ্ডপে দুর্গোৎসব শুরু

লাকসাম (কুমিল্লা) প্রতিনিধি   

২২ অক্টোবর, ২০২০ ২২:১০ | পড়া যাবে ৩ মিনিটে



লাকসামে ৩৪টি পূজামণ্ডপে দুর্গোৎসব শুরু

কুমিল্লার লাকসামে সনাতন ধর্মাবলম্বীদের সর্ববৃহৎ উৎসব শারদীয় দুর্গাপূজা শুরু হয়েছে। শান্তিপূর্ণ ও সুষ্ঠুভাবে পূজা উদযাপনে উপজেলা ও থানা প্রশাসনের পক্ষ থেকে ব্যাপক প্রস্তুতি নেওয়া হয়েছে।

আজ বৃহস্পতিবার মহাষষ্ঠী পূজার মধ্য দিয়েই দুর্গাপূজার মূল আনুষ্ঠানিকতা শুরু হয়। ঢাকের বোল, কাঁসর ঘণ্টা ও শাঁখের ধ্বনিতে মুখর হয়ে উঠে পূজামণ্ডপ। সাধারণত শুক্লা ষষ্ঠীর সন্ধ্যায় বোধন হলেও এবার তিথি অনুযায়ী পঞ্চমীতেই বোধন পড়েছে। তাই গতকাল বুধবার সন্ধ্যায় সকল মণ্ডপে দেবীর বোধন হয়েছে। তবে করোনাভাইরাস মহামারির কারণে পূজায় অনেকটা সীমাবদ্ধতা রয়েছে মণ্ডপগুলোতে। পরিস্থিতি বিবেচনায় সন্ধ্যা আরতির পর মণ্ডপে দর্শনাথী প্রবেশ বন্ধের সিদ্ধান্ত নিয়েছে লাকসাম পূজা উদযাপন পরিষদ।

এবার করোনাভাইরাসের প্রভাবে শারদীয় দুর্গোৎসব উপলক্ষে লাকসামে সনাতন ধর্মাবলম্বীদের মধ্যে উৎসবের আমেজে কিছুটা ভাটা পড়েছে। লাকসাম জগন্নাথ দেবালয়, কালিবাড়ি, পশ্চিমগাঁও সাহাপাড়া, উত্তর বাজার বণিক্য বাড়ি, সুভাষ বনিকের বাড়ি, রাজ রাজেশ্বরী মন্দির, ধামৈচা, উত্তর লাকসাম জেলেপাড়া, মিশ্রী, রেলওয়ে জংশন, কোঁয়ার, উদইরসহ উপজেলার ৩৪টি মন্ডপে শারদীয় দূর্গোৎসব উদযাপিত হচ্ছে।

এবার করোনাভাইরাসের প্রভাবের কারণে স্বাস্থ্যবিধি মেনে শারদীয় দুর্গোৎসব উদযাপনের লক্ষ্যে উপজেলা ও থানা প্রশাসন সংশ্লিষ্ট পূজামন্ডপের দায়িত্বশীলদের যাবতীয় নির্দেশনা দিয়েছেন। শান্তিপূর্ণ ও সুষ্ঠুভাবে পূজা উদযাপনে প্রশাসন সব ধরনের সহযোগিতার আশ্বাস দিয়েছেন।

লাকসাম থানার অফিসার ইনচার্জ (ওসি) মো. নিজাম উদ্দিন জানান, চলমান করোনা পরিস্থিতির মধ্যে সুন্দর ও শান্তিপূর্ণভাবে দুর্গাপূজা উদযাপনের জন্য পর্যাপ্ত নিরাপত্তা ব্যবস্থা গ্রহণ করেছে আইন-শৃঙ্খলা রক্ষাকারী বাহিনী। পূজা মণ্ডপগুলো অতিরিক্ত পুলিশ, আনসার, সাদা পোশাকের পুলিশ নিয়োজিত থাকবে। এ ছাড়া মন্দির কমিটির পক্ষ থেকে নিরাপত্তা ও স্বাস্থ্যবিধি নিশ্চিত করতে স্বেচ্ছাসেবক বাহিনী কাজ করবে।

লাকসাম উপজেলা পূজা উদযাপন কমিটির সাধারণ সম্পাদক দুর্জয় সাহা জানান, প্রতিবছরের ন্যায় এবার লাকসামে ব্যাপক আনুষ্ঠানিকতার মাধ্যমে দুর্গোৎসব উদযাপনের কথা থাকলেও মহামারি করোনাভাইরাসের কারণে সীমিত পরিসরে এ উৎসব পালিত হবে।

তিনি জানান, পুজামন্ডপে আগতদের মাস্ক পরিধানসহ স্বাস্থ্যবিধি মেনে চলার পাশাপাশি প্রত্যেকটি মন্ডপে হ্যান্ডস্যানিটাইজার ও হাতধোয়ার ব্যবস্থা থাকবে। এছাড়া, নিরাপদ দূরত্ব বজায় রেখে পূজামন্ডপ পরিদর্শন ও প্রতিদিন রাত ৮টার মধ্যে আনুষ্ঠানিকতা শেষ করার নির্দেশনা দেয়া হয়েছে।

লাকসাম পূজা উদযাপন পরিষদের ভারপ্রাপ্ত সভাপতি সচীন্দ্র চন্দ্র দাস জানায়, এ বছর দুর্গা মা দোলায় চড়ে আগমন ও গজে চড়ে গমন (প্রস্থান) করবেন। আগামী ২৬ অক্টোবর মহাদশমীতে প্রতিমা বিসর্জনে শেষ হবে দুর্গোৎসবের আনুষ্ঠানিকতা।

মন্তব্য



সাতদিনের সেরা