kalerkantho

শুক্রবার। ১৯ অগ্রহায়ণ ১৪২৭। ৪ ডিসেম্বর ২০২০। ১৮ রবিউস সানি ১৪৪২

ঝড়ে গাছ পড়ে, কেটে নেন সভাপতি!

কাশিয়ানী (গোপালগঞ্জ) প্রতিনিধি   

২২ অক্টোবর, ২০২০ ১৬:৫৩ | পড়া যাবে ২ মিনিটে



ঝড়ে গাছ পড়ে, কেটে নেন সভাপতি!

গোপালগঞ্জের কাশিয়ানীতে কোনো প্রকার অনুমতি ছাড়াই গোপনে সামাজিক বনায়ন কর্মসূচির সভাপতির বিরুদ্ধে গাছ কাটার অভিযোগ উঠেছে। উপজেলার ফুকরা-গোপালপুর অংশের ঢাকা-খুলনা মহাসড়কের দুই পাশের অর্ধশতাধিক নিম, আকাশমনি, শিশু, কদমসহ বিভিন্ন প্রজাতির বনজ গাছ কেটে ফেলেছেন ওই কর্মসূচির সভাপতি এস এম দেলোয়ার হোসেন দুলু।

সামাজিক বনায়ন কর্মসূচির উপকারভোগীদের অভিযোগ, সামাজিক বনায়ন কর্মসূচির 'সৃজিত স্টিপ' কমিটির সভাপতি এস এম দেলোয়ার হোসেন দুলু ঝড়ে পড়ে যাওয়ার এবং মরে যাওয়ার অজুহাত দেখিয়ে গাছ কেটে নেন। এ বিষয়ে উপকারভোগীদের জানানো হয়নি। এমনকি বন বিভাগের কোনো ধরণের অনুমতি ছাড়াই মহাসড়কের দুই পাশে রোপণ করা বিভিন্ন প্রজাতির প্রায় অর্ধশতাধিক গাছ কেটে ফেলেছেন। গাছগুলো তিনি গোপনে বিক্রি করার চেষ্টাকালে সদস্যদের তোপের মুখে ব্যর্থ হয়েছেন বলেও অভিযোগ তাদের।

উপকারভোগী বদরুল সরদার, তোফায়েল আহমেদ ও হোসেন আলী সরদার জানান, কমিটির সভাপতি এস. এম দেলোয়ার হোসেন দুলু ও সদস্য ছলেমান সরদার দুইজনে যোগসাজশ করে ঝড়ে পড়ে যাওয়ার কথা বলে বনায়ন কর্মসূচির বেশ কিছু গাছ কেটে ফেলেছেন। বিষয়টি তারা জানতে পেরে বাঁধা দেন এবং বিষয়টি কাশিয়ানী উপজেলা নির্বাহী অফিসারকে জানালে কাটা গাছগুলো তিনি গাছগুলি গ্রাম পুলিশ দিয়ে জব্দ করেন।

সামাজিক বনায়ন কর্মসূচীর গাছ কাটার কথা স্বীকার করে কমিটির সভাপতি এস এম দেলোয়ার হোসেন দুলু বলেন, গাছগুলো ঝড়ে পড়ে ছিল। আমি কেটে এনে স্তুপ করে রেখে দিয়েছি। পরে বিষয়টি আমি বন কর্মকর্তাকে জানিয়েছি।

গোপালগঞ্জ জেলা বন কর্মকর্তা মো. জাহাঙ্গীর আলম বলেন, আমি গাছ কাটার বিষয়টি জানতে পেরে সরেজমিনে গিয়ে গাছগুলো জব্দ করি। ঘটনার সাথে জড়িতদের বিরুদ্ধে ব্যবস্থা নেওয়া হবে।

কাশিয়ানী উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা (ইউএনও) রথীন্দ্রনাথ রায় ঘটনার সত্যতা নিশ্চিত করে বলেন, 'গাছ কাটার বিষয়টি জানতে পেরে আমি স্থানীয় চেয়ারম্যান-মেম্বারদেরকে জানিয়েছি। গাছগুলো এখন তাদের জিম্মায় আছে। তদন্তপূর্বক ব্যবস্থা নেওয়া হবে।

মন্তব্য



সাতদিনের সেরা