kalerkantho

শুক্রবার। ১৯ অগ্রহায়ণ ১৪২৭। ৪ ডিসেম্বর ২০২০। ১৮ রবিউস সানি ১৪৪২

আবারও এমভি আবে জমজমের কেবিনে অজ্ঞাতপরিচয় তরুণীর লাশ

চাঁদপুর প্রতিনিধি   

২২ অক্টোবর, ২০২০ ১৫:৫৯ | পড়া যাবে ২ মিনিটে



আবারও এমভি আবে জমজমের কেবিনে অজ্ঞাতপরিচয় তরুণীর লাশ

চাঁদপুরে যাত্রীবাহী লঞ্চের কেবিনে অজ্ঞাতপরিচয় এক তরুণীর লাশের সন্ধান মিলেছে। বৃহস্পতিবার দুপুরে চাঁদপুর লঞ্চ টার্মিনালে অবস্থানকারী এমভি আবে জমজম নামে একটি লঞ্চ থেকে এই তরুণীর লাশ উদ্ধার করে নৌ পুলিশ। এই মৃত্যুর ঘটনায় জড়িত সন্দেহে কাউকে আটক করা হয়নি।

পুলিশ জানিয়েছে, বৃহস্পতিবার ভোররাতে রাজধানীর সদরঘাট থেকে এমভি আবে জমজম চাঁদপুর লঞ্চ টার্মিনালে পৌঁছে। এ সময় সব যাত্রী নেমে গেলেও লঞ্চের গ্রিজারম্যানের নির্ধারিত কেবিন তালাবদ্ধ পাওয়া যায়। আর সেই কেবিনেই তরুণীর লাশের সন্ধান মেলে।

লঞ্চের গ্রিজারম্যান সুমন মোল্লা জানান, গত রাতে রাজধানীর সদরঘাট থেকে লঞ্চটি ছাড়ার আগে ৬০০ টাকার বিনিময়ে কেবিনটি একজন পুরুষকে ভাড়া দেন। এ সময় ওই পুরুষের সঙ্গে একজন তরুণীও ছিলেন। কিন্তু ভোরে লঞ্চ থেকে সবাই নেমে গেলেও কেবিনটি তালাবদ্ধ পাওয়া যায়। সুমন মোল্লা দাবি করেন, বিষয়টি তাঁর কাছে সন্দেহজনক হলে লঞ্চের অন্য স্টাফদের জানান তিনি। পরে তারা এসে তালা খুলে দেখেন, বিছানায় এক তরুণীর মৃতদেহ পড়ে আছে। তবে সঙ্গী পুরুষ লোকটিকে আর খুঁজে পাওয়া যায়নি। 

নৌ ও থানা পুলিশকে বিষয়টি জানানো হয়। দুপুরে পুলিশ তরুণীর লাশ উদ্ধার করে। চাঁদপুর সদর সার্কেলের অতিরিক্ত পুলিশ সুপার স্নিগ্ধা সরকার লঞ্চে সিসি ক্যামেরা না থাকায় কর্তৃপক্ষকে ভর্ৎসনা করেন। তিনি বলেন, সিসি ক্যামেরা থাকলে তরুণীর সঙ্গে আসা পুরুষ লোকটিকে খুব সহজে চিহ্নিত করা যেত।

ধারণা করা হচ্ছে, ধর্ষণ শেষে তরুণীকে গলায় ফাঁস দিয়ে হত্যা করেছে সঙ্গী পুরুষটি। পরে লাশ কেবিনে রেখে বাইরে তালা দিয়ে লঞ্চ থেকে নেমে গেছে।

অভিযোগ আছে, প্রতিরাতেই রাজধানীর সদরঘাট থেকে ছেড়ে আসা যাত্রীবাহী লঞ্চগুলোতে অসংখ্য তরুণ-তরুণী কেবিন ভাড়া নিয়ে চাঁদপুর আসে। পরে আবার তারা বিনা বাধায় গন্তব্যে ফিরে যায়। প্রসংগত এর আগেও চাঁদপুর লঞ্চ টার্মিনালে এমভি আবে জমজম নামে যাত্রীবাহী এই লঞ্চে আরো এক তরুণীর লাশ পাওয়া গেছে। তবে তিন বছর আগে পাওয়া হতভাগ্য সেই তরুণীর আজও কোনো পরিচয় পাওয়া যায়নি।

মন্তব্য



সাতদিনের সেরা