kalerkantho

সোমবার । ৩ কার্তিক ১৪২৭। ১৯ অক্টোবর ২০২০। ১ রবিউল আউয়াল ১৪৪২

কাঁঠালবাড়ি-শিমুলিয়া নৌরুট

আবারো ডুবোচরে আটকে গেল ফেরি, পঞ্চম দফায় চলাচল বন্ধ

শিবচর (মাদারীপুর) প্রতিনিধি   

১ অক্টোবর, ২০২০ ২০:০৫ | পড়া যাবে ২ মিনিটে



আবারো ডুবোচরে আটকে গেল ফেরি, পঞ্চম দফায় চলাচল বন্ধ

নাব্যতা-সংকটের কারণে ডুবোচরে ফেরি আটকে আবারো কাঁঠালবাড়ি-শিমুলিয়া নৌপথে ফেরি চলাচল বন্ধ করে দেওয়া হয়েছে। বৃহস্পতিবার সকালে নৌ-চ্যানেলের প্রবেশমুখে সৃষ্টি হওয়া ডুবোচরে একটি ফেরি আটকে যায়। এর আগে সেপ্টেম্বর মাসে চার দফায় অন্তত ১৫ দিন বন্ধ ছিল ফেরি চলাচল।

বিআইডব্লিউটিসি কাঁঠালবাড়ি ফেরি ঘাট সূত্র জানায়, নৌপথে বর্তমানে ১৪টি ফেরি সচল রয়েছে। বৃহস্পতিবার ভোরে উভয় ঘাট থেকে ৬টি কেটাইপ ফেরি চলাচল শুরু করে। সকাল ৭টার দিকে কাঁঠালবাড়ি ঘাট থেকে কে-টাইপ ফেরি কুমিল্লা স্বল্পসংখ্যক যানবাহন ও যাত্রী নিয়ে শিমুলিয়া ঘাটে যাচ্ছিল। ফেরিটি পদ্মা সেতুর কাছাকাছি চায়না নৌ-চ্যালেনে প্রবেশ করলে সেখানে সৃষ্টি হওয়া ডুবোচরে আটকে যায়। দীর্ঘ সময় চেষ্টা চালিয়ে ডুবোচর থেকে নিজে নিজে উদ্ধার হয়ে ফেরিটি সকাল ১০টার দিক শিমুলিয়া ঘাটে পৌঁছায়। এরপর বিআইডব্লিউটিএর সিদ্ধান্ত অনুযায়ী ঘাট কর্তৃপক্ষ ফেরি চলাচল সম্পূর্ণ বন্ধ ঘোষণা করে।

এদিকে হঠাৎ ফেরি চলাচল বন্ধ থাকায় চরম দুর্ভোগে পড়েছেন যাত্রী ও পরিবহন শ্রমিকেরা। উভয় ঘাটেই আটকা পড়েছে কয়েকশ যানবাহন।

শিমুলিয়া থেকে বরিশালগামী একটি প্রাইভেট কারের যাত্রী কাইয়ুম ব্যাপারী বলেন, সকাল ১০টা থেকে ঘাটে ফেরি পারাপারের জন্য বসে আছি। ১২টার পরে শুনি ফেরি নাকি আর চলবে না। এখন গাড়ি নিয়ে কিভাবে পদ্মা পাড়ি দেব? ঘাটের লোকদের কাছে জানতে চাইলাম তারা পাটুরিয়া হয়ে যেতে বলে।

বিআইডব্লিউটিসি কাঁঠালবাড়ি ফেরিঘাটের ব্যবস্থাপক আব্দুল আলিম বলেন, নৌপথের বিভিন্ন স্থানে নাব্যতা-সংকট থাকায় আমরা ঠিক মত ফেরি চলাতে পারছিলাম না। গত মাসে আমরা চার দফায় ফেরি চলাচল বন্ধ রেখেছি। দুর্ঘটনার ঝুঁকি থাকার সত্ত্বেও আমরা খুব কষ্টে ৫-৬টি ছোট ও মাঝারি ফেরি চলাচল অব্যাহত রেখেছিলাম। কিন্তু আজ (বৃহস্পতিবার) সকালে নৌ-চ্যালেনের মুখে পানি কমে নাব্যতা পরিস্থিতি ভয়াবহ আকার ধারন করেছে। ডুবোচরে প্রায় প্রতিটি ফেরি আটকে যাচ্ছিল। তাই ফেরি বন্ধ রাখা হয়েছে।

কাঁঠালবাড়ি ফেরি ঘাটের ট্রাফিক পুলিশের পরির্দশক (টিআই) মনিরুল ইসলাম বলেন, ফেরি বন্ধ হওয়ার আগে যানবাহনের ভালো চাপ ছিল। টার্মিনাল ও সংযোগ সড়কের লাইনে ছিল ছোট-বড় সব ধরণের যানবাহন। ফেরি চলাচল স্থগিত রাখার পর আমরা হ্যান্ড মাইকিং করে যাত্রী ও পরিবহন শ্রমিকদের বিকল্প নৌপথ হিসেবে দৌলতদিয়া-পাটুরিয়া নৌপথ ব্যবহার করতে অনুরোধ জানিয়েছি।

মন্তব্য



সাতদিনের সেরা