kalerkantho

সোমবার । ৩ কার্তিক ১৪২৭। ১৯ অক্টোবর ২০২০। ১ রবিউল আউয়াল ১৪৪২

৫০ টাকা চাঁদা না দেওয়ায় পাথর শ্রমিককে পিটিয়ে হত্যা

পাটগ্রাম (লালমনিরহাট) প্রতিনিধি   

১ অক্টোবর, ২০২০ ১৯:০৮ | পড়া যাবে ২ মিনিটে



৫০ টাকা চাঁদা না দেওয়ায় পাথর শ্রমিককে পিটিয়ে হত্যা

লালমনিরহাটের পাটগ্রামে ৫০ টাকা চাঁদা না দিয়ে ধরলা নদী থেকে নুড়ি পাথর উত্তোলন করায় এক পাথর শ্রমিককে (২৮) রড দিয়ে পিটিয়ে হত্যার অভিযোগ উঠেছে। নিহত পাথর শ্রমিকের নাম মজনু হোসেন (২৮)। তিনি উপজেলার পাটগ্রাম ইউনিয়নের ৫ নম্বর ওয়ার্ডের ধবলসুতি মাঝিপাড়া গ্রামের আলতাব হোসেনের ছেলে। এ ঘটনায় থানা পুলিশ দুজনকে আটক করেছে।

পুলিশ ও প্রত্যক্ষদর্শী জানিয়েছে, উপজেলার পাটগ্রাম ইউনিয়নের ধবলসুতি মাঝিপাড়া এলাকার আলতাব হোসেনের ছেলে দিনমজুর মজনু হোসেন ধরলা নদী থেকে নুড়ি পাথর উত্তোলন করে জীবিকা নির্বাহ করে আসছে। পাথর উত্তোলনের সময় প্রতিদিন একই এলাকার সাহাজ উদ্দিন (সাদ্দিন) কে নৌকাপ্রতি ৫০ টাকা করে চাঁদা দিতে হয়।

বৃহস্পতিবার সকালে মজনু হোসেন চাঁদার টাকা দিতে অস্বীকার করলে সাহাজ উদ্দিন (সাদ্দিন) ক্ষিপ্ত হয়ে লোহার রড দিয়ে তার মাথায় আঘাত করে। এতে ঘটনাস্থলেই মজনু পানিতে লুটিয়ে পড়ে। এ সময় প্রতিবেশী রাসেল, মোহাম্মদ ও সাহাজ উদ্দিনের ছোট ভাই মোজাম্মেল হক মজনুকে বাঁচাতে এগিয়ে আসলে তাদেরকে সাহাজ উদ্দিন (সাদ্দিন) ও তার স্ত্রী রহিমা বেগম লাঞ্চিত এবং মারপিট করে।

সাহাজ উদ্দিনের ছোট ভাই মোজাম্মেল হক বলেন, আমার ভাই অত্যন্ত নির্দয়ভাবে লোহার রড দিয়ে মজনুকে আঘাত করে। এতে মজনু গুরতর অসুস্থ হলে উন্নত চিকিৎসার জন্য রংপুর নেওয়ার পথে তার মৃত্যু হয়।

পাটগ্রাম থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) সুমন কুমার মহন্ত বলেন, নদী থেকে নুড়ি পাথর উত্তোলনকে কেন্দ্র করে মারপিটের ঘটনায় মজনু হোসেন মারা যায়। পুলিশ দুজনকে আটক করেছে।

মন্তব্য



সাতদিনের সেরা