kalerkantho

সোমবার । ৩ কার্তিক ১৪২৭। ১৯ অক্টোবর ২০২০। ১ রবিউল আউয়াল ১৪৪২

ছেলেকে বাঁচাতে মায়ের পানিতে ঝাঁপ, দুজনেরই মৃত্যু

রংপুর অফিস   

১ অক্টোবর, ২০২০ ১৮:০৭ | পড়া যাবে ২ মিনিটে



ছেলেকে বাঁচাতে মায়ের পানিতে ঝাঁপ, দুজনেরই মৃত্যু

এক রাতে স্মরণকালের বৃষ্টিতে রংপুর নগরীতে সৃষ্ট জলাবদ্ধতার পানিতে ডুবে মা ও ছেলের মৃত্যু হয়েছে। আজ বৃহস্পতিবার দুপুরে নগরীর জুম্মাপাড়া এলাকায় এ ঘটনা ঘটেছে। মৃতরা হলেন- নগরীর শালবন মিস্ত্রিপাড়া এলাকার জসিম উদ্দিনের স্ত্রী রোকেয়া বেগম (৪৮) এবং তাঁর আট বছরের ছেলে রিপন।

প্রত্যক্ষদর্শীরা জানান, রংপুরের ইতিহাসের সবচেয়ে বড় জলাবদ্ধতায় নগরীর মিস্ত্রিপাড়া থেকে জুম্মাপাড়া যাওয়ার প্রায় চার কিলোমিটারের রাস্তা হাঁটুপানিতে ডুবে আছে। এর মাঝে প্রায় দুই কিলোমিটার সড়কের দুই পাশে নিচু এলাকা হওয়ায় পানি থৈ থৈ করছে। বিকল্প রাস্তা দিয়ে অনেক দূর ঘুরে যেতে হয় বলে লোকজন মাত্র চার ফুট প্রশস্ত একটি সরু রাস্তা দিয়ে চলাচল করছেন। আজ বৃহস্পতিবার দুপুরে মা রোকেয়া বেগম ছোট ছেলে রিপনকে সঙ্গে নিয়ে হাঁটুপানি মাড়িয়ে বড় ছেলে রোহান মিয়াকে পার্শ্ববর্তী মাদরাসায় পৌঁছে দেওয়ার জন্য যাচ্ছিলেন। এ সময় বড় ছেলে পা পিছলে গভীর পানিতে পড়ে যায়। তখন ছোট ছেলেকে হাঁটুপানিতে রেখে বড় ছেলেকে বাঁচাতে মা রোকেয়া পানিতে ঝাঁপ দিয়ে তাকে উদ্ধার করেন। পরক্ষণে বসিয়ে রাখা ছোট ছেলে অপর পাশের পানিতে পড়ে ডুবে যায়। তখন তাকে বাঁচাতে পানিতে ঝাঁপ দেন মা। এরপর পানি থেকে ছেলে ও মা উঠতে পারেননি। পরে এলাকাবাসী  খোঁজাখুঁজির পর তাদের মরদেহ উদ্ধার করেন।

খবর পেয়ে ফায়ার সার্ভিসের লোকজন গিয়ে মরদেহ উদ্ধার করে রংপুর মেডিক্যালে নিয়ে যায়। চিকিৎসার জন্য বড় ছেলেকে হাসপাতালে ভর্তি করা হয়েছে। 

রংপুর মেট্রোপলিটন পুলিশের কোতয়ালি থানার উপপরিদর্শক (এসআই) স্বপন রায় ঘটনাস্থল পরিদর্শন করে মা ও ছেলের মরদেহ উদ্ধারের বিষয়টি নিশ্চিত করেছেন।

উল্লেখ্য, গত শনিবার রাতে স্মরণকালের সর্বোচ্চ বৃষ্টিতে ডুবে যায় রংপুর নগরী। গত চার দিনে বেশির ভাগ এলাকার পানি নেমে গেলেও কিছু কিছু এলাকায় সৃষ্ট জলাবদ্ধতায় দুর্ভোগ পোহাতে হচ্ছে নগরবাসীকে।

মন্তব্য



সাতদিনের সেরা