kalerkantho

সোমবার । ৩ কার্তিক ১৪২৭। ১৯ অক্টোবর ২০২০। ১ রবিউল আউয়াল ১৪৪২

বাঁধ কেটে দিল দুর্বৃত্তরা!

কুড়িগ্রাম প্রতিনিধি   

১ অক্টোবর, ২০২০ ১৭:০২ | পড়া যাবে ২ মিনিটে



বাঁধ কেটে দিল দুর্বৃত্তরা!

কুড়িগ্রামের ফুলবাড়ীতে ধরলা নদীর তীর রক্ষা বাঁধটি রাতের আঁধারে কেটে দিয়েছে দুর্বৃত্তরা। এতে যোগাযোগ বিচ্ছিন্ন হয়েছেন প্রায় ২০ হাজার মানুষ। বাঁধটি কেটে দেওয়ায় ওই এলাকার হাজার হাজার মানুষের ভোগান্তিতে পড়ায় সবার মাঝে চাপা ক্ষোভ বিরাজ করছে।

বৃহস্পতিবার দুপুরে সরেজমিনে দেখা গেছে, উপজেলার বড়ভিটা ইউনিয়নের পূর্বধনিরাম গ্রামের স্লুইস গেটের পশ্চিম পাশে ছাটকুঠি এলাকায় গত সোমবার গভীর রাতের কে বা কারা ওয়াপদা বাধঁটি কেটে দেয়। পরে মুহূর্তের মধ্যে বাঁধের প্রায় ৩০০ ফুট অংশ ভেঙে গিয়ে প্রচন্ড বেগে বন্যার পানি ঢুকে পড়ে লোকালয়ে। এরই মধ্যে ওই এলাকার নুর মোহাম্মদের বসত বাড়ি ভেঙে গেছে। হুমকির মধ্যে রয়েছে সিরাজুল ইসলাম, বাবলু মিয়া, বজলে ও ফজলের বসতবাড়ি।

এ ছাড়াও কেটে দেওয়া ওয়াপদা বাঁধের মাঝখানে দাঁড়িয়ে আছে লাখ লাখ টাকা ব্যয়ে নির্মিত ছাটকুঠি সেতুটি। ফলে চারদিন ধরে পূর্ব-ধনিরাম ও পশ্চিম ধনিরাম সম্পূর্ণভাবে যোগাযোগ বিছিন্ন।

বাঁধ কেটে দেওয়ায় পার্শ্ববর্তী গ্রাম বাঘ খাওয়ার চর, পূর্ব ধনিরাম আবাসন প্রকল্প, গেটের বাজার, ব্যাপারী টারী, সাহেব বাজার, ঘাটিয়ালটারী, ঘোঘারকুঠি, ছাটকুটি গ্রামের ২০ হাজার মানুষের যোগাযোগ বিছিন্নতায় পড়েছেন।

স্থানীয় জহুরুল হক, রহমত আলী, মজিবর রহমান ও রাকিবুল হাসানসহ অনেকে জানান, এ নিয়ে ওই এলাকায় তিন থেকে চার বার ওয়াপদা বাঁধ কেটে দিয়েছে। কিন্তু পাশেই স্লুইস গেট দিয়ে পানি নিয়মিতভাবে নিষ্কাশন হলেও কেন বাধঁটি কেটে দেওয়া হলো তা নিয়ে প্রশ্ন তুলেছেন অনেকেই।

বড়ভিটা ইউনিয়ন পরিষদের চেয়ারম্যান খয়বর আলী জানান, রাতের আঁধারে কে বা কারা এই বাধঁটি কেটে দিলো আমার জানা নেই। তবে যারা এ কাজটি করেছে তারা এটা অন্যায় করেছে। তবে এনিয়ে ওয়াপদা বাঁধটি তিন থেকে চার বার কেটে দিলো। এখন সাধারণ মানুষ চরম ভোগান্তিতে রয়েছে। বিষয়টি সংশ্লিষ্ট কর্তৃপক্ষকে জানানো হয়েছে।

ফুলবাড়ী উপজেলা নির্বাাহী অফিসার (ইউএনও) তৌহিদুর রহমান জানান, আমরা বিষয়টি কুড়িগ্রাম পানি উন্নয়ন বোর্ডকে জানিয়েছি। তারা পরবর্তী ব্যবস্থা গ্রহণ করবেন।

মন্তব্য



সাতদিনের সেরা