kalerkantho

শনিবার । ৮ কার্তিক ১৪২৭। ২৪ অক্টোবর ২০২০। ৬ রবিউল আউয়াল ১৪৪২

স্কুলছাত্রী নীলা হত্যা মামলা

মা-বাবার পর প্রধান আসামি ছেলে গ্রেপ্তার

বিচার দাবিতে বিক্ষোভ মানববন্ধন আলটিমেটাম

নিজস্ব প্রতিবেদক, সাভার (ঢাকা)   

২৬ সেপ্টেম্বর, ২০২০ ০৩:০১ | পড়া যাবে ৪ মিনিটে



মা-বাবার পর প্রধান আসামি ছেলে গ্রেপ্তার

সাভারে স্কুলছাত্রী নীলা রায় (১৪) হত্যা মামলার প্রধান আসামি মিজানুর রহমানকে (২০) গ্রেপ্তার করেছে পুলিশ। গতকাল শুক্রবার রাত ৮টার দিকে সাভারের তেঁতুলঝোড়া ইউনিয়নের রাজফুলবাড়িয়ার কর্নেল ব্রিকফিন্ডের পাশ থেকে তাঁকে গ্রেপ্তার করা হয়।

এর আগে বৃহস্পতিবার দিবাগত গভীর রাতে মিজানুরের মা ও বাবাকে মানিকগঞ্জের সিংগাইর উপজেলার চারিগ্রাম থেকে গ্রেপ্তার করেন র্যাব-৪-এর সদস্যরা। ২৩ সেপ্টেম্বর সকালে মানিকগঞ্জের আরিচা থেকে সেলিম পালোয়ান নামে অন্য এক সন্দেহভাজন যুবককে গ্রেপ্তার করা হয়। এ নিয়ে এই মামলায় এজাহারভুক্ত তিন আসামিসহ চারজনকে গ্রেপ্তার করা হলো। 

সাভার মডেল থানার পরিদর্শক (তদন্ত) সাইফুল ইসলাম বলেন, রাতে গোপন সংবাদের ভিত্তিতে প্রযুক্তি ব্যবহার করে আলোচিত স্কুলছাত্রী নীলা রায়কে হত্যার ঘটনায় মূল আসামি মিজানুর রহমানকে গ্রেপ্তার করে সাভার মডেল থানা পুলিশ। এ সময় পুলিশ তাঁর কাছ থেকে হত্যাকাণ্ডে ব্যবহূত ছুরি উদ্ধার করেছে। মাদক সেবনরত অবস্থায় তাঁকে গ্রেপ্তার করা হয়। আজ শনিবার মিজানুরকে আদালতে পাঠানো হবে বলে জানান তিনি।

এ হত্যা মামলায় মিজানুরের মা নাজমুন্নাহার সিদ্দিকা (৫৫) ও বাবা আবদুর রহমানও (৬০) আসামি। মিজানুরের পাশের বাসায় বসবাসরত সেলিম হত্যাকাণ্ডের সময় ঘটনাস্থলে উপস্থিত ছিলেন বলে পুলিশের ধারণা। এরই মধ্যে গ্রেপ্তার হওয়া সেলিম ও মিজানুরের মা-বাবার দুই দিনের রিমান্ড মঞ্জুর করেছেন আদালত।

মামলার তদন্ত কর্মকর্তা সাভার মডেল থানার উপপরিদর্শক (এসআই) নির্মল চন্দ্র ঘোষ গ্রেপ্তারকৃত দুজনকে আদালতে হাজির করে সাত দিনের রিমান্ড আবেদন করেন। আসামিপক্ষের আইনজীবী রিমান্ড বাতিল চেয়ে জামিন আবেদন করেন। রাষ্ট্রপক্ষ জামিনের বিরোধিতা করে। উভয় পক্ষের শুনানি শেষে আদালত জামিনের আবেদন খারিজ করে রিমান্ড মঞ্জুর করেন।

গত ২০ সেপ্টেম্বর রাত ৮টার দিকে ভাইয়ের সঙ্গে রিকশায় করে হাসপাতালে যাওয়ার পথে দশম শ্রেণিতে পড়ুয়া নীলাকে টেনেহিঁচড়ে পালপাড়া মহল্লার একটি পরিত্যক্ত বাড়িতে নিয়ে যান মিজানুর। সেখানে নীলাকে উপর্যুপরি ছুরিকাঘাত করে তিনি পালিয়ে যান। নীলার পরিবারের দাবি, প্রেমের প্রস্তাব প্রত্যাখ্যান করায় নীলাকে হত্যা করেন মিজানুর। এ ঘটনার পরের দিন রাতে নীলার বাবা নারায়ণ রায় হত্যা মামলা করেন। এতে মিজানুর ও তাঁর মা-বাবাসহ অজ্ঞাতপরিচয় আরো চারজনকে আসামি করা হয়েছে।

বিচার দাবিতে বিক্ষোভ মানববন্ধন
এদিকে নীলা রায় হত্যায় প্রধান অভিযুক্ত মিজানুর রহমানকে গ্রেপ্তার ও বিচারের দাবিতে বাংলাদেশ জাতীয় হিন্দু ছাত্র মহাজোট ৭২ ঘণ্টা এবং বাংলাদেশের সমাজতান্ত্রিক দল (বাসদ) সাভার উপজেলা শাখা এক সপ্তাহের আলটিমেটাম দিয়ে পৃথক বিক্ষোভ ও মানববন্ধন করেছে। 
গতকাল থানা বাসস্ট্যান্ডের মুক্তির মোড়ে ছাত্র মহাজোট এবং ধসে পড়া রানা প্লাজার সামনে বাসদ এসব কর্মসূচি পালন করে। ছাত্র মহাজোটের সভাপতি সজীব বৈদ্যর সভাপতিত্বে বক্তব্য দেন হিন্দু মহাজোটের ছাত্রবিষয়ক সম্পাদক ফণী ভূষণ হালদার। হিন্দু যুব মহাজোটের সভাপতি প্রদীপ কান্তি দেসহ অনেকে উপস্থিত ছিলেন। বক্তারা বলেন, পুলিশ প্রশাসনের ব্যর্থতার কারণে নীলা রায় খুন হয়েছে। মিজানুরকে পুলিশ এখনো গ্রেপ্তার করতে না পারায় বক্তারা ক্ষোভ প্রকাশ করেন।

বাসদ সাভার উপজেলা শাখার আহ্বায়ক সৌমিত্র কুমার দাসের সভাপতিত্বে এবং সদস্যসচিব আহমেদ জীবনের সঞ্চালনায় বিক্ষোভ ও মানববন্ধনে বক্তব্য দেন বাসদ ঢাকা নগর শাখার সদস্য খালেকুজ্জামান লিপন, সমাজতান্ত্রিক ছাত্রফ্রন্ট জাহাঙ্গীরনগর বিশ্ববিদ্যালয় শাখার আহ্বায়ক শোভন রহমান, সমাজতান্ত্রিক শ্রমিক ফ্রন্ট আশুলিয়া থানার সভাপতি মাফিজুল ইসলাম। 

বক্তারা বলেন, ক্ষমতার সঙ্গে জড়িত ব্যক্তিরা নিজেদের অপকর্ম চরিতার্থ করার জন্য এই বখাটে কিশোর গ্যাং উত্পাদন ও লালন-পালন করে, গ্যাং কালচারকে জারি রাখে। সমাজে সুস্থ সাংস্কৃতিক-রাজনৈতিক চর্চা নেই। সেই চর্চা গড়ে তোলার আন্দোলন ব্যতীত এই খুন, ধর্ষণ, চাঁদাবাজি, গুণ্ডামির হাত থেকে কারো নিস্তার নেই। মিজানুরকে এক সপ্তাহের মধ্যে গ্রেপ্তার না করলে বৃহত্তর আন্দোলন গড়ে তোলার হুঁশিয়ারি দেওয়া হয় কর্মসূচি থেকে।

মন্তব্য



সাতদিনের সেরা