kalerkantho

বৃহস্পতিবার । ১৩ কার্তিক ১৪২৭। ২৯ অক্টোবর ২০২০। ১১ রবিউল আউয়াল ১৪৪২

সরকারি বিধিনিষেধ ও স্বাস্থ্যবিধি মেনে নবীনগরে এবার দুর্গোৎসব

নবীনগর (ব্রাহ্মণবাড়িয়া) প্রতিনিধি   

২৬ সেপ্টেম্বর, ২০২০ ০২:০১ | পড়া যাবে ২ মিনিটে



সরকারি বিধিনিষেধ ও স্বাস্থ্যবিধি মেনে নবীনগরে এবার দুর্গোৎসব

চলমান করোনা পরিস্থিতির কারণে নবীনগর উপজেলায় এবার এক ভিন্ন আঙ্গিকে সরকারি ২৬টি বিধিমালা ও স্বাস্থ্যবিধি মেনে আসন্ন শারদীয় দুর্গোৎসব পালনের সিদ্ধান্ত নেওয়া হয়েছে। 

শুক্রবার নবীনগর হরিসভা (সাহাপাড়া) প্রাঙ্গণে বাংলাদেশ পূজা উদযাপন পরিষদ, নবীনগর উপজেলা শাখা আয়োজিত এক চূড়ান্ত প্রস্তুতিমূলক সভায় সর্বসম্মতভাবে এ সিদ্ধান্ত নেওয়া হয়।

পূজা উদযাপন পরিষদের সভাপতি অজন্ত ভদ্র এতে সভাপতিত্ব করেন। পূজা উদযাপন পরিষদের সাধারণ সম্পাদক অ্যাডভোকেট বিনয় চক্রবর্তী ও যুগ্ম সাধারণ সম্পাদক সঞ্জয় সাহার যৌথ উপস্থাপনায় এতে প্রধান অতিথি ছিলেন নবীনগর পৌরসভার মেয়র অ্যাডভোকেট শিব শংকর দাস। সভায় বক্তব্য রাখেন পরিষদের উপদেষ্টা অ্যাডভোকেট সুজিত দেব, সুবীর সাহা, প্রবীর ভট্টাচার্য, সিনিয়র সহ সভাপতি গৌরাঙ্গ দেবনাথ অপু, সাংগঠনিক সম্পাদক মানিক বিশ্বাস, আইন সম্পাদক বিপুল সাহা, প্রভাষক অঞ্জন নাগ, রতন চন্দ্র চন্দ, মিঠু সূত্রধর, সরস্বতী বর্মন প্রমুখ।

সভায় গত বছর অনুষ্ঠিত শারদীয় দুর্গোৎসবে উপজেলার পাঁচটি সেরা দূর্গা পূজামন্ডপকে উপজেলা প্রশাসনের পক্ষ থেকে বিশেষ সম্মাননা ক্রেষ্ট প্রদান করা হয়। মেয়র শিব শংকর দাস প্রধান অতিথি হিসেবে ওইসব ক্রেস্ট মন্দির কমিটির নেতৃবৃন্দের হাতে তুলে দেন।

গত বছর উপজেলায় সেরা নির্বাচিত শ্রেষ্ঠ দুর্গা পূজামন্ডপগুলো হলো- গোসাইপুরে যামিনী ডাক্তারের বাড়ি (উত্তারাঞ্চল), লাউর ফতেপুরে বনিক পাড়া (দক্ষিণাঞ্চল), বিটঘরে স্বর্ণ কমল সাহার বাড়ি (পূর্বাঞ্চল), শ্যামগ্রামে হিমাংসু সাহার বাড়ি (পশ্চিমাঞ্চল) ও ভোলাচংয়ে ঘাটি বাড়ি (পৌরসভা)।

এর আগে সম্প্রতি প্রয়াত ভারতের সাবেক রাষ্ট্রপতি, বাংলাদেশের অকৃত্রিম বন্ধু প্রণব মুখার্জি এবং বাংলাদেশ পূজা উদযাপন পরিষদের প্রতিষ্ঠাতা সভাপতি ও মুক্তিযুদ্ধের অন্যতম সেক্টর কমান্ডার বীরউত্তম খেতাবপ্রাপ্ত মেজর জেনারেল (অব) সি আর দত্তসহ বিগত দিনে মৃত্যুবরণ করা পূজা উদযাপন পরিষদের সকল নের্তৃবৃন্দের মৃত্যুতে শোক প্রস্তাব আনেন পূজা উদযাপন পরিষদের সিনিয়র সহ সভাপতি সাংবাদিক গৌরাঙ্গ দেবনাথ অপু। 

এ সময় প্রয়াতদের স্মৃতির প্রতি গভীর সম্মান জানিয়ে এক মিনিট দাঁড়িয়ে নীরবতা পালন করা হয়। 

প্রাণবন্ত এই প্রস্তুতিমূলক সভায় উপজেলার ২১টি ইউনিয়ন থেকে প্রায় ২০০ পূজা কমিটির নেতারা স্বতঃস্ফুর্তভাবে উপস্থিত ছিলেন।

মন্তব্য



সাতদিনের সেরা