kalerkantho

বৃহস্পতিবার । ৬ কার্তিক ১৪২৭। ২২ অক্টোবর ২০২০। ৪ রবিউল আউয়াল ১৪৪২

পরকীয়ার সন্দেহে নারীকে ন্যাড়া, গাছে বেঁধে নির্য়াতন!

ফুলপুর (ময়মনসিংহ ) প্রতিনিধি   

২৪ সেপ্টেম্বর, ২০২০ ১৭:৪৮ | পড়া যাবে ২ মিনিটে



পরকীয়ার সন্দেহে নারীকে ন্যাড়া, গাছে বেঁধে নির্য়াতন!

ময়মনসিংহ জেলার তারাকান্দা উপজেলায় এক নারীর সঙ্গে এক যুবককের পরকীয়ার সন্দেহে ওই নারীকে ন্যাড়া করে দেওয়ার অভিযোগ পাওয়া গেছে। পরে তাকে গাছের সঙ্গে বেঁধে মধ্যযুগীয় কায়দায় নির্যাতন করা হয় বলে জানা গেছে। উপজেলার কাকনী ইউনিয়নের পঙ্গুয়াই গ্রামে গতকাল বুধবার বিকেলে এ ঘটনা ঘটে।

এ ঘটনায় ভূক্তভোগী ওই নারী তারাকান্দা থানায় মামলা করে। মামলার পর পুলিশ আজ দুই যুবককে গ্রেপ্তার করে আদালতে পাঠিয়েছে।

অভিযোগ সূত্রে জানা যায়, পঙ্গুয়াই গ্রামের আনসার আলী চট্টগ্রামে শ্রমিকের কাজ করেন। তার স্ত্রী পাঁচ সন্তানের জননী আছিয়া খাতুনও ঢাকায় নারী শ্রমিকের কাজ করেন। আছিয়া খাতুনের সম্পর্কে ভাই হওয়ায় ফুলপুর উপজেলার ঘোমগাঁও গ্রামের আয়ুব আলীর ছেলে শাহীন মিয়া গতকাল বুধবার তার বাড়িতে যান। বিষয়টিকে স্থানীয়রা পরকীয়ার সন্দেহ করে। এ সময় গ্রামের মিরু মিয়ার ছেলে কাশেম (৩৪), হোসেন মিয়া (৪০), সোরহাব উদ্দিন (৩২), তোফায়েলসহ (৪০) ৬-৭ জন যুবক পরকীয়ার সন্দেহে আছিয়া খাতুনের বাড়িতে ওই যুবকসহ তাকে গাছের সঙ্গে বেঁধে ব্যাপক মারধর করে। পরে ওই অবস্থায় তাদেরকে রাস্তা দিয়ে চলাফেরা করানো হয়। 

পরে ভুক্তভোগী ওই নারী তারাকান্দা থানায় মামলা করলে আজ হোসেন মিয়া, সোরহাব ও কাশেমকে গ্রেপ্তার করে পুলিশ।

তবে পরকীয়া সন্দেহের অভিযোগ অস্বীকার করে যুবক শাহীন মিয়া জানান,  মধ্যবয়সী ওই মহিলা আমার সাথে বড়বোনের সম্পর্ক। সাংসারিক কাজে বাড়িতে যাওয়ার সঙ্গে সঙ্গে কয়েকজন যুবক আমাদেরকে ধরে পরকীয়ার অপবাদ দেয়। তারা চুল কেটে এবং গাছের সাথে বেঁধে ব্যাপক নির্যাতন করে। আমি সুবিচার চাই।

এ ব্যাপারে তারাকান্দা থানার ওসি আবুল খায়ের কালের কণ্ঠকে জানান, মধ্যযুগীয় বর্বতার অভিযোগে দুইজনকে গ্রেপ্তার করা হয়েছে। বাকীদেরকে দ্রুত সময়ে গ্রেপ্তার করা হবে।

মন্তব্য



সাতদিনের সেরা