kalerkantho

রবিবার । ১২ আশ্বিন ১৪২৭ । ২৭ সেপ্টেম্বর ২০২০। ৯ সফর ১৪৪২

জেলা আওয়ামী লীগ

মানিকগঞ্জে পৌর নির্বাচনে মনোনয়ন নিয়ে প্রতিযোগিতা, বিভেদের শঙ্কা

সাব্বিরুল ইসলাম সাবু, মানিকগঞ্জ   

১৭ সেপ্টেম্বর, ২০২০ ১১:৪১ | পড়া যাবে ৩ মিনিটে



মানিকগঞ্জে পৌর নির্বাচনে মনোনয়ন নিয়ে প্রতিযোগিতা, বিভেদের শঙ্কা

তফসিল ঘোষণা না হলেও পৌরসভার নির্বাচন ঘিরে মানিকগঞ্জে আওয়ামী লীগের রাজনীতিতে ঢেউ উঠেছে । মূল নির্বাচনের আগেই আওয়ামী লীগের মনোনয়ন যুদ্ধে বহুমুখী প্রতিদ্বন্দ্বিতার জোর আভাস পাওয়া যাচ্ছে। সম্ভাব্য প্রার্থীরা মনোনয়ন নিশ্চিত করতে গোপনে এবং প্রকাশ্যে নানামুখী তৎপরতা শুরু করেছেন। 

আওয়ামী লীগের মনোনয় কে পাচ্ছে তা নিয়ে সাধারণ কর্মীদের মধ্যে  চলছে হিসাব নিকাশ। তারা বলছেন মনোনয়ন নিয়ে গ্রুপিং, লবিং, কাদা ছোড়াছুড়ি শুরু হয়েছে। পরিস্থিতি শক্তহাতে নিয়ন্ত্রণ করতে না পারলে দলের মধ্যে বিভেদ প্রকট আকার ধারণ করবে।

কালের কণ্ঠের পক্ষ থেকে জেলা আওয়ামী লীগের বেশ কয়েকজন নেতাকর্মীর সাথে কথা হয়। পরিচয় গোপন রাখার শর্তে তারা বলেন, মাঠে প্রধান প্রতিপক্ষ বিএনপির অনুপস্থিতে মানিকগঞ্জে আওয়ামী লীগের রাজনীতি চলছে অনেটাই গৎবাঁধা নিয়মে। জাতীয় ও দলীয় কর্মসূচীর বাইরে টুকটাক সাংগঠনিক কর্মকাণ্ড ছাড়া অন্য কোনো তৎপরতা প্রায় নেই। এ অবস্থায় পৌরসভার আগামী নির্বাচনে মেয়র পদে জেলা আওয়ামী লীগের পদধারী সাত নেতা দলীয় মনোনয়ন পাওয়ার ইচ্ছা প্রকাশ করেছেন। আর এতেই দলের নেতাকর্মীদের মধ্যে চাঞ্চল্যের সৃষ্টি হয়েছে। কিন্তু দলীয় মনোনয়ন পেতে ইতোমধ্যে প্রার্থীদের মধ্যে কাদা ছোড়াছুড়ি শুরু হয়েছে। সত্য-মিথ্যা তথ্য দিয়ে পরস্পরের বিরুদ্ধে কয়েকটি অখ্যাত অনলাইন নিউজ পোর্টালে সংবাদও ছাপানো হয়েছে। এসব এখন শহরের সাধারণ মানুষের মুখরোচক আলোচনার বিষয়ে পরিণত হয়েছে। 

তারা বলেন, আওয়ামী লীগের মনোনয়ন পেলে মেয়র নির্বাচনে বিজয় নিশ্চিত এমনটি হিসাব কষে কোনো কোনো প্রার্থী বেপরোয়া হয়ে উঠছেন। ভোটারদের প্রভাবিত করার মতো কোনো কর্মকাণ্ডে জড়িত না থাকলেও মনোনয়ন পেতে মোটা অংকের টাকা নিয়ে নেমেছেন তারা। কেউ কেউ মন্ত্রী, উচ্চ পর্যায়ের প্রভাবশালী নেতাদের দারস্থ হচ্ছেন। সুযোগ সুবিধা দেয়ার আশ্বস দিয়ে দলে ভেড়াচ্ছেন নেতাকর্মীদের। প্রতিদিনের হাত খরচ দিয়ে কিনে নেয়া হচ্ছে সন্ত্রাসীদের। 

গত পঞ্চাশ বছরেরও বেশি সময় ধরে আওয়া আওয়ামী লীগের রাজনীতির সাথে জড়িত এমন একজন বলেন, পৌর নির্বাচনের  মনোনয়ন নিয়ে যে অসুস্থ প্রতিযোগীতা চলছে তাতে দলের নেতাকর্মীদের মধ্যে অনৈক্যের সৃষ্টি হবে।  সাংগঠনিক শৃঙ্খলা বলে কিছুই থাকবে না। নেতাদের উচিত দ্রুত এসবের বিরুদ্ধে ব্যবস্থা নেয়া।

এ ব্যাপারে জেলা আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক অ্যাডভোকেট আবদুস সালামের সাথে যোগাযোগ করা হলে তিনি বলেন, গণতান্ত্রীক ব্যবস্থায় দলের মধ্যে যেকোনো বিষয়ে প্রতিযোগিতা থাকতে পারে। প্রতিযোগিতা নেতৃত্বের বিকাশ ঘটায়। কিন্তু সেটা হতে হবে সুস্থ প্রতিযোগিতা। তিনি বলেন, মানিকগঞ্জ জেলা আওয়ামী লীগ সাংগঠনিকভাবে অত্যন্ত শক্তিশালী। এখানে কোনো অনিয়ম বরদাস্ত করা হবে না।

মন্তব্য



সাতদিনের সেরা