kalerkantho

শনিবার । ১১ আশ্বিন ১৪২৭ । ২৬ সেপ্টেম্বর ২০২০। ৮ সফর ১৪৪২

মাদরাসাছাত্রীকে ধর্ষণের অভিযোগে পুলিশ সদস্য কারাগারে

অনলাইন ডেস্ক   

১৭ সেপ্টেম্বর, ২০২০ ০১:৪৫ | পড়া যাবে ২ মিনিটে



মাদরাসাছাত্রীকে ধর্ষণের অভিযোগে পুলিশ সদস্য কারাগারে

ময়মনসিংহের ঈশ্বরগঞ্জে এক মাদরাসাছাত্রীকে ধর্ষণের অভিযোগে এমদাদুল হক রতন নামে এক পুলিশ সদস্যকে আটক করে কারাগারে পাঠানো হয়েছে। মঙ্গলবার রাতে স্থানীয়রা আটক করে তাকে পুলিশে সোপর্দ করে। গতকাল বুধবার বিকেলে অভিযুক্ত পুলিশ সদস্যের বিরুদ্ধে থানায় একটি ধর্ষণ মামলা দায়ের করেছে ওই ছাত্রীর বাবা।

পুলিশ ও স্থানীয়রা জানায়, ঈশ্বরগঞ্জ উপজেলার বড়হিত ইউনিয়নের রঘুনাথপুর গ্রামের আজিজুল হকের ছেলে এজাদুল হক রতন প্রায় ১ বছর আগে পুলিশ কনস্টেবল হিসেবে নিয়োগ পেয়ে বর্তমানে গাজীপুর জেলায় কর্মরত। মাদরাসা ছাত্রীটির সঙ্গে পুলিশ সদস্য রতনের দেড় বছর পূর্বে ফেসবুকের মাধ্যমে পরিচয় হয়।

ছাত্রীর বাড়ি উপজেলার রাজিবপুর ইউনিয়নের বৃ-দেবস্থান গ্রামে। পরিচয়ের সূত্র ধরে তারা প্রেমের সম্পর্কে জড়ায়। গত মঙ্গলবার রাতে ছাত্রীকে তাদের বাড়ির পাশের একটি ঝোপে নিয়ে ধর্ষণের সময় স্থানীয় লোকজন রতনকে আটক করে।

খবর পেয়ে ঈশ্বরগঞ্জ থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা মোখলেছুর রহমানের নেতৃত্বে পুলিশ ঘটনাস্থল থেকে অভিযুক্ত রতন ও নির্যাতিত ছাত্রীকে উদ্ধার করে থানায় নিয়ে আসে। এ ঘটনায় বুধবার বিকেলে নারী ও শিশু নির্যাতন দমন আইনে ছাত্রীটির বাবা ইসহাক আলী বাদী হয়ে রতনের বিরুদ্ধে ঈশ্বরগঞ্জ থানায় মামলা দায়ের করেন।

নির্যাতিত ছাত্রীটি জানায়, প্রায় দেড় বছর ধরে রতনের সঙ্গে প্রেমের সম্পর্ক চলছে। বিয়ের প্রলোভন দেখিয়ে রতন তার সঙ্গে অবৈধ সম্পর্ক গড়ে তুলে।

অভিযুক্ত পুলিশ সদস্য রতন সাংবাদিকদের জানায়, মেয়েটির সঙ্গে ফেসবুকে পরিচয় হয়। মেয়েটির সঙ্গে কোনো অবৈধ সম্পর্ক ছিল না। তাকে বিপদে ফেলতেই এমন করা হচ্ছে।

ঈশ্বরগঞ্জ থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা মোখলেছুর রহমান জানান, খবর পেয়ে রাতে অভিযুক্ত রতন ও মেয়েটিকে থানায় নিয়ে আসা হয়। এ ঘটনায় মেয়েটির বাবা বাদী হয়ে একটি মামলা দায়ের করেছেন। বিকেলে আদালতে নেওয়া হলে তাকে কারাগারে পাঠানোর নির্দেশ দেন বিচারক।

মন্তব্য



সাতদিনের সেরা