kalerkantho

মঙ্গলবার । ১৪ আশ্বিন ১৪২৭ । ২৯ সেপ্টেম্বর ২০২০। ১১ সফর ১৪৪২

ক্রসফায়ারের ভয় দেখিয়ে টাকা আদায়, ৫ পুলিশের বিরুদ্ধে অভিযোগ

ব্রাহ্মণবাড়িয়া প্রতিনিধি   

১২ আগস্ট, ২০২০ ১৮:৪৫ | পড়া যাবে ২ মিনিটে



ক্রসফায়ারের ভয় দেখিয়ে টাকা আদায়, ৫ পুলিশের বিরুদ্ধে অভিযোগ

ব্রাহ্মণবাড়িয়া আখাউড়া থানার পাঁচ পুলিশের বিরুদ্ধে ক্রসফায়ারের ভয় দেখিয়ে অর্থ আদায়ের অভিযোগ পাওয়া গেছে। বুধবার এমন অভিযোগ এনে সিনিয়র জুডিসিয়াল ম্যাজিস্ট্রেট (আখাউড়া) আদালতে আখাউড়া মসজিদ পাড়ার হারুণ মিয়া নামে একব্যক্তি বাদী হয়ে অভিযোগ দায়ের করেন। অভিযোগের প্রেক্ষিতে আদালত ইন্সপেক্টরের নীচে নয় এমন কাউকে দিয়ে তদন্ত করিয়ে একমাসের মধ্যে প্রতিবেদন দেওয়ার জন্য পুলিশ সুপারকে নির্দেশ দিয়েছেন।

অভিযুক্তরা হলেন, আখাউড়া থানা পুলিশের উপপরিদর্শক মতিউর রহমান, এসআই হুমায়ুন, এএসআই খোরশেদ, কনস্টেবল প্রশান্ত এবং সৈকত। এরআগে পুলিশ সুপার বরাবর একই অভিযোগ করা হলে এর তদন্ত চলছে।

মামলায় উল্লেখ করা হয়, আখাউড়ার পৌর এলাকার মসজিদ পাড়ার বাসিন্দা হারুনের প্রতিবেশী হাসিনা বেগম (চিকুনী বেগম) ও তাঁর মেয়ে তানিয়া এবং তানজিনার সঙ্গে যোগসাজশে অভিযুক্ত পুলিশ সদস্যরা মাদক ব্যবসা করে আসছে। হারুন মিয়া এতে বাঁধা দিলে চিকুনী ক্ষুদ্ধ হয়ে পুলিশ সদস্যদের পিছনে লাগিয়ে দেয়। গত ২৬ মে গভীর রাতে অভিযুক্ত পাঁচ পুলিশ সদস্য হারুনের বাড়িতে প্রবেশ করে তল্লাশি নামে শারীরিক ও মানসিক নির্যাতন করে। এ সময় ক্রসফায়ার ও হত্যার ভয় দেখিয়ে ঘরে থাকা নগদ ৪০ হাজার টাকা ছিনিয়ে নেয়। এ ছাড়াও তারা ঘরের আসবাবপত্র উলট পালট করে। পরবর্তীতে ওই দিনের ভোর চারটার দিকে পুনরায় ওই পুলিশ সদস্যারা এসে হারুন ও তার স্ত্রীকে মিথ্যা মাদক মামলা ও যাবজ্জীবন কারাদণ্ডের ভয় দেখিয়ে তাদেরকে আটক করে এক লক্ষ টাকা দাবি করে। অভিযুক্ত পুলিশ সদস্যদের ৫০ হাজার
টাকা দিয়ে রফা দফা হলে হারুন ও তার স্ত্রীকে ছাড়া পান। 

বিষয়টি উপরের অফিসারদের জানালে হারুনকে ক্রসফায়ার দেওয়া হবে বলে হুমকি দেওয়া হয়।

আখাউড়ার থানার ওসি মো. রসুল আহমেদ নিজামী জানান, এরআগেও এ বিষয়ে অভিযোগ
হলে তদন্ত চলছে। আদালতে দেওয়া অভিযোগের প্রেক্ষিতে তদন্ত হলে আসল ঘটনা বেরিয়ে আসবে।

মন্তব্য



সাতদিনের সেরা