kalerkantho

বুধবার । ৮ আশ্বিন ১৪২৭ । ২৩ সেপ্টেম্বর ২০২০। ৫ সফর ১৪৪২

আহত ৪, আটক ৫

সালিসে চেয়ারম্যানের ওপর হামলা!

ঠাকুরগাঁও প্রতিনিধি   

১১ আগস্ট, ২০২০ ১৬:১৫ | পড়া যাবে ৩ মিনিটে



সালিসে চেয়ারম্যানের ওপর হামলা!

ঠাকুরগঁওয়ে পারিবারিক বিষয় নিয়ে গ্রাম্য সালিস চলাকালীন সময়ে বড়গাঁও ইউনিয়ন পরিষদের চেয়ারম্যান প্রভাত কুমার সিং-এর ওপর হামলার ঘটনা ঘটেছে। এতে আহত হয়েছেন, গ্রাম্য পুলিশসহ আরো ৩ জন। এ ঘটনায় পুলিশ ঘটনাস্থল থেকে ৫ জনকে আটক করেছে। সোমবার বিকালে ঠাকুরগাঁও সদর উপজেলার বড়গাঁও ইউনিয়ন পরিষদের হলরুমে এ ঘটনা ঘটে।

আহতরা হলেন- বড়গাঁও ইউনিয়ন পরিষদ চেয়ারম্যান প্রভাত কুমার সিং (৫৫), গ্রাম পুলিশ আতাউর রহমান (৫৫), কুলসুম আক্তার (২৭) ও ফিরোজ (২৫)।

সদর থানার ওসি তানভিরুল ইসলাম ঘটনার সত্যতা স্বীকার করেছেন। স্থানীয়দের বরাত দিয়ে ওসি জানান, উপজেলার বড়গাঁও ইউনিয়নের সোহেল রানার সাথে প্রায় দশবছর পূর্বে দেবীপুর ইউনিয়নের কুলসুম আক্তারের বিয়ে হয়। গত দেড়মাস পূর্বে সোহেল বজ্রপাতে মারা যায়। সোহেল রানার মৃত্যুর পর শ্বশুরবাড়ির লোকজনের কাছ থেকে মেয়ের জন্য এক বিঘা জমি দাবি করে কুলসুম আক্তার। জমি দাবি করায় শ্বশুরবাড়ির লোকজন কুলসুমকে বিভিন্নভাবে নির্যাতন শুরু করে। এবিষয় নিয়ে কুলসুমের পরিবার ও প্রয়াত স্বামীর পরিবার একাধিকবার বিষয়টি নিয়ে সমঝোতা করার চেষ্টা করেও ব্যার্থ হয়। সর্বশেষ প্রয়াত সোহেলের বাবা আব্দুল হামিদ বিষয়টি সমাধানের জন্য বড়গাঁও ইউনিয়ন পরিষদের চেয়ারম্যান প্রভাত কুমার সিং বরাবর একটি লিখিত আবেদন করলে সোমবার উভয় পক্ষকে নিয়ে ইউনিয়ন পরিষদ চত্ত্বরে সালিস বৈঠকের আয়োজন করেন চেয়ারম্যান। সালিশে কুলসুম তার মেয়ের জন্য নিজ স্বামীর ক্রয়কৃত পাঁচটি গরু ও এক বিঘা সম্পত্তি দাবি করেন। কিন্তু শশুরবাড়ির লোকজন তা দিতে রাজি না হয়ে উল্টো বিভিন্ন হুমকি ধামকি দেয়। এতে উভয় পক্ষের মধ্যে বাগবিতন্ডা সৃষ্টি হয় এবং একপর্যায়ে মারামারি শুরু হয়। 

এসময় পরিস্থিতি শান্ত করতে চেয়ারম্যান প্রভাত কুমার সিং এগিয়ে গেলে তাঁর ওপর হামলা চালানো হয়। এতে তিনিসহ ৪জন আহত হন। ওসি আরো জানান, পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রণ রাখতে ঘটনাস্থল থেকে পাঁচজনকে থানায় নিয়ে আসা হয়েছে। অভিযোগ পেলে তদন্ত সাপেক্ষে আইনগত ব্যবস্থা নেওয়া হবে।

প্রয়াত সোহেল এর স্ত্রী কুলসুম জানান, আমার মেয়ের ভবিষ্যতের জন্য আমার যৌতুকের টাকা দিয়ে ক্রয়কৃত পাঁচটি গরু ও এক বিঘা জমি দাবি করি। বিষয়টি নিয়ে ইউনিয়ন পরিষদে সালিসে বসলে তারা কোন কিছু দিতে পারবে না বলে চেয়ারম্যানকে জানায়। কিন্তু চেয়ারম্যান প্রতিবাদ করতে গেলে তারা চেয়ারম্যানের ওপর হামলা চালায় এবং আমাকে মারধর করে। আমি এর সুষ্ঠ বিচার চাই।

হামলার বিষয়ে বড়গাঁও ইউনিয়ন পরিষদের চেয়ারম্যান প্রভাত কুমার সিং বলেন, সালিসে দুই পক্ষের মধ্যে সংঘর্ষ হয়। এতে আমিও আহত হই।

এদিকে চেয়ারম্যানের ওপর হামলার ঘটনাটি এলাকায় মুহুর্তের মধ্যে ছড়িয়ে গেলে ইউনিয়ন পরিষদের সামনে স্থানীয়রা উত্তেজিত হয়ে পরে। এসময় সোহেলের পরিবারের ওপর স্থানীয়রা চড়াও হয় এবং পুলিশের হাত থেকে কয়েকজনকে ছিনিয়ে নেওয়ার চেষ্টা করে।

মন্তব্য



সাতদিনের সেরা