kalerkantho

রবিবার। ৫ আশ্বিন ১৪২৭ । ২০ সেপ্টেম্বর ২০২০। ২ সফর ১৪৪২

অসহায় নারী মুচি সবিতাকে দোকান উপহার

ঝালকাঠি প্রতিনিধি   

৫ আগস্ট, ২০২০ ১৩:০২ | পড়া যাবে ২ মিনিটে



অসহায় নারী মুচি সবিতাকে দোকান উপহার

কিছুদিন আগেও ঝালকাঠি সদর উপজেলার বাউকাঠি বাজারের কাছে ফুটপাতে জুতা সেলাই করে সংসার চালাতেন সবিতা রানী দাস। রোদে পুড়ে বৃষ্টিতে ভিজে চলত তাঁর নিত্যদিনের কাজ। নারী মুচির এ দুর্দশার কথা শুনে সাহায্যের হাত বাড়িয়ে এগিয়ে এলেন ঝালকাঠি পৌর যুবলীগের যুগ্ম আহ্বায়ক ছবির হোসেন। দেড় লাখ টাকায় সবিতাকে দোকানঘর, সাজসরঞ্জাম ও মালামাল কিনে দেন তিনি। বুধবার আনুষ্ঠানিকভাবে সবিতার কাছে দোকানটি হস্তান্তর করা হয়। ফলে বাবার মৃত্যুর ১২ বছর পর অবসান হলো সবিতার ফুটপাতের জীবন।

কৃতজ্ঞতা প্রকাশ করে সবিতা বলেন, বাবা মারা যাওয়ার পরে ১২ বছর ধরে আমি মানুষের জুতা সেলাই (মুচি) কাজ করে কোনো রকমের সংসার চালাচ্ছি। কখনো তিন বেলা খেয়েছি, কখনো রোজগার না হওয়ায় না খেয়েই থাকতে হয়েছে। একটি খুপড়ি ঘরে পলিথিনের বেড়া দিয়ে এখনো বসবাস করছি। আমি যেভাবে কষ্ট করে জীবন যাপন করেছি, আর কোনো নারীর যেন এমনটি না হয়। আমি একজন সফল ব্যবসায়ী হতে চাই। পলাশ রায়ের মাধ্যমে আমাকে আজকে ছবির ভাই সহযোগিতা করেছেন, আমিও চেষ্টা করব একদিন অসহায় মানুষের পাশে দাঁড়াতে। 

ব্যবসায়ী ছবির হোসেন বলেন, আমার বন্ধু পলাশ রায়ের মাধ্যমে খবর পেয়ে সবিতাকে একদিন দেখতে আসি। সে দুপুরে খাবার খাওয়ার টাকাও রোজগার করতে পারেনি দেখে খুবই কষ্ট পেলাম। নিজের বিবেকের তাড়নায় সবিতাকে একটি দোকানঘর ও মালামাল কিনে দিয়েছি। এখন নিশ্চিন্তে সে ব্যবসা করে রোজগার করতে পারবে।

সাংবাদিক পলাশ রায় বলেন, সবিতা রাষ্ট্র ও সমাজপতিদের ওপর সংক্ষুব্ধ ছিল। তাকে কেউ কখনো সহযোগিতা করেনি। আমি তাঁর দুঃখ-দুর্দশার কথা আমার বন্ধু ছবির হোসেনকে বলেছি। সে সবিতার সব খবর নিয়ে তাকে একটি দোকান ও মালামাল কিনে দিয়েছে। এখন হয়তো সবিতার কষ্টের দিন কেটে যাবে। 

নবগ্রাম ইউনিয়ন পরিষদের চেয়ারম্যান মজিবুর রহমান আকন্দ বলেন, সবিতার জীবন সংগ্রাম আমরা দেখেছি। তাকে সাধ্যমতো সহযোগিতা করেছি। তবে ছবির হোসেন তাকে প্রতিষ্ঠিত করার জন্য যে উদ্যোগ নিয়েছে, এটা প্রশংসনীয়। এখন তাকে কেউ একটি বসতঘর তুলে দিলেই রাতে নিশ্চিন্তে ঘুমাতে পারবে। 

মন্তব্য



সাতদিনের সেরা