kalerkantho

বুধবার । ২৮ শ্রাবণ ১৪২৭। ১২ আগস্ট ২০২০ । ২১ জিলহজ ১৪৪১

কিশোরীকে অপহরণ করে আটকে ধর্ষণের অভিযোগ, যুবক গ্রেপ্তার

লাকসাম (কুমিল্লা) প্রতিনিধি   

১৩ জুলাই, ২০২০ ২২:৩৫ | পড়া যাবে ২ মিনিটে



কিশোরীকে অপহরণ করে আটকে ধর্ষণের অভিযোগ, যুবক গ্রেপ্তার

কুমিল্লার মনোহরগঞ্জে এক কিশোরীকে অপহরণ ও ধর্ষণের অভিযোগে পুলিশ এক যুবককে গ্রেপ্তার করে গতকাল সোমবার কুমিল্লার আদালতে পাঠিয়েছে। গ্রেপ্তারকৃত ওই যুবকের নাম ইমাম হোসেন ইমন। সে নোয়াখালীর সোনাইমুড়ি উপজেলার চাষিরহাট ইউনিয়নের কৈইয়া গ্রামের বেলাল হোসেনের ছেলে।

মনোহরগঞ্জ থানা পুলিশ ও অপহৃতার পরিবারের অভিযোগ সূত্রে জানা যায়, মনোহরগঞ্জ উপজেলার বিপুলাসার ইউনিয়নের বড়কাঁছি গ্রামের মৃত হাবিবুল্লাহর ছেলে নুর মোহাম্মদ বাবলু গত ৩ জুলাই বিকেলে ওই কিশোরীকে কৌশলে বাড়ি থেকে ডেকে আনে এবং তার সহযোগী (গ্রেপ্তারকৃত) ইমনের সহযোগিতায় তাকে অপহরণ করে সোনাইমুড়ী সিটি সেন্টার মার্কেট সংলগ্ন ইমনের ভাড়া বাসায় নিয়ে যায়। সেখানে দুই দিন আটকে রেখে ওই কিশোরীকে একাধিকবার ধর্ষণ করে।

গত ৫ জুলাই ধর্ষক নুর মোহাম্মদ বাবলু ও তার সযোগী ইমন ওই কিশোরীকে নিয়ে সেনবাগ উপজেলার নাজিরহাট গ্রামে তার নানার বাড়ির পাশে রেখে আসে। পরে ওই কিশোরী তার নানার বাড়ি গিয়ে বিস্তারিত ঘটনা জানায়।

এদিকে সংবাদ পেয়ে ওই কিশোরীর অভিভাবকরা তাৎক্ষণিক সেখানে ছুটে যায়। এ সময় তার শারীরিক অবস্থার অবনতি দেখে দ্রুত তাকে ঢাকা মেডিক্যাল কলেজে হাসপাতালে নিয়ে ভর্তি করে।

গতকাল সোমবার ভুক্তভোগী কিশোরীর বাবা মো. খোরশেদ আলম বাদি হয়ে মনোহরগঞ্জ থানায় একটি মামলা দায়ের করেন। ওই মামলার প্রেক্ষিতে মনোহরগঞ্জ থানা পুলিশের পরিদর্শক (তদন্ত) মো. মাহাবুবুল কবির অভিযান চালিয়ে ঘটনার সঙ্গে জড়িত অভিযুক্ত বাবলুর সহযোগী ইমনকে সোনাইমুড়ি বাজার থেকে গ্রেপ্তার করে।

একটি সূত্র জানায়, ধর্ষক নুর মোহাম্মদ বাবলু একজন বিবাহিত যুবক। সে ইতালী প্রবাসী এবং করোনা দুর্যোগের কারণে কয়েক মাস আগে দেশে এসেছে।

এ ব্যাপারে মনোহরগঞ্জ থানার অফিসার ইনচার্জ (ওসি) মো. মেজবাহ উদ্দিন ভূঁইয়া ঘটনার সত্যতা নিশ্চিত করে বলেন, ঘটনার মূল হোতাকে গ্রেপ্তারের চেষ্টা অব্যাহত রয়েছে।

মন্তব্য



সাতদিনের সেরা