kalerkantho

বৃহস্পতিবার । ২২ শ্রাবণ ১৪২৭। ৬ আগস্ট  ২০২০। ১৫ জিলহজ ১৪৪১

এবার হুইল চেয়ারে বসেই স্কুলে যাবে ওরা

বিরামপুর (দিনাজপুর) প্রতিনিধি   

১৩ জুলাই, ২০২০ ১৭:৩৮ | পড়া যাবে ২ মিনিটে



এবার হুইল চেয়ারে বসেই স্কুলে যাবে ওরা

মনিরুজ্জামান মনির (৮)। ছোট্ট বয়সে ছুটে বেড়ার কথা থাকলে ও তার জীবন চাকা ঘোরে অন্যভাবে। কখনো ঝুপড়ি ঘরের মেঝেতে শুয়ে আবার কখনো মায়ের কোলে। এভাবেই কেটে যায় দিনের অনেকটা সময়। জন্ম থেকে হাঁটতে, চলতে ও কথা বলতে পারে না। ইশারায় মায়ের সাথে কথা বলে। মনিরুজ্জমানা বিরামপুর অটিস্টিক ও প্রতিবন্ধী বিদ্যালয়ে ৩য় শ্রেণির ছাত্র।

আজ সোমবার বিকেলে ছোট্ট শিশু মনিরুজ্জামান মনিরকে একটি হুইল চেয়ার প্রদান করেন দিনাজপুর-৬ আসনের সাংসদ ও সমাজকল্যাণ মন্ত্রণালয়ে স্থায়ীকমিটির সদস্য এমপি শিবলী সাদিক। হুইল চেয়ার পেয়ে দু’চোখ বেয়ে পানি পড়ে মনিরুজ্জামানের। একই বিদ্যালয়ের নূরে আলম, রাতুল ইসলাম, নাসরীন বেগমকেও দেওয়া হয় হুইল চেয়ার।

বাবা জাহিরুল ইসলাম ও মা মনিরা খাতুনের কোল আলো করে আসে তিন সন্তান। তাদের মধ্যে দুই মেয়ে এক ছেলে। দুই মেয়েকে বিয়ে দিয়েছেন অনেক আগেই। অভাবের সংসারে বাড়ির পাশে একটি পান দোকান করে কোনো মতে সংসার চলে জহিরুলের। একটি হুইল চেয়ার কেনার মতো টাকাও তার কাছে ছিল না।

জাহিরুল ইসলাম কালের কণ্ঠকে বলেন, আমার সন্তানকে নিয়ে কোথায় যাওয়ার সামর্থ্য ছিল না। গ্রামের সম্পূর্ণ দৃশ্যটিও সে চোখে দেখেনি। এখন হুইল চেয়ার বসে সে স্কুলে যাবে, গ্রাম ঘুরবে এর চেয়ে আনন্দ আর কি আছে। আল্লাহ এমপিক আরো সম্মান দান করুক।

সোমবার বিকেলে উপজেলার বিকলাঙ্গদের ৩৪টি হুইল চেয়ার, ৬৪৬ জনকে বয়স্ক ভাতা, ৬৮২ জন বিধবা ও স্বামী নিগৃহীতা, ১১৬০ জন অস্বচ্ছল প্রতিবন্ধীকে ভাতা ও হতদরিদ্র নারীদের মাঝে ১৯টি সেলাই মেশিন বিতরণ করেন সাংসদ শিবলী সাদিক। বিতরণ শেষে করোনাসংক্রমণ রোধে ইমামদের নিয়ে করোনা বিষয়ক সচেতনতামূলক সভা করা হয়েছে।

এমপি বলেন, করোনাসংক্রমণ ঠেকাতে সবাইকে এক হয়ে কাজ করতে হবে। করোনার মাঝেও সমাজের ভালো কাজগুলোকে এগিয়ে নিতে হবে। ভালো কাজের এখনই সময়। মানুষের মাঝে ভালো কথাগুলো পৌঁছে দেওয়ার একমাত্র মাধ্যম হলে ইমামগণ।

এ সময় উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা পরিমল কুমার সরকার, উপজেলা চেয়ারম্যান খায়রুল আলম রাজু, পৌর মেয়র লিয়াকত আলী সরকার টুটুল, ভাইস চেয়ারম্যান মেজবাউল ইসলাম, ইমাম সমিতির সভাপতি মোখলেছার রহমান উপস্থিত ছিলেন।

মন্তব্য



সাতদিনের সেরা