kalerkantho

শনিবার । ২৪ শ্রাবণ ১৪২৭। ৮ আগস্ট  ২০২০। ১৭ জিলহজ ১৪৪১

পরকীয়া করতে এসে বয়াতি ধরা, বাটামপেটায় মৃত্যু

গোয়ালন্দ (রাজবাড়ী) প্রতিনিধি   

১৩ জুলাই, ২০২০ ১৭:১০ | পড়া যাবে ২ মিনিটে



পরকীয়া করতে এসে বয়াতি ধরা, বাটামপেটায় মৃত্যু

রাজবাড়ীর গোয়ালন্দে পরকীয়া প্রেমের কারণে প্রতিপক্ষের বাটামপেটায় প্রেমিক শাহীন খান নিহত হয়েছেন। গতকাল রবিবার রাতে ঢাকার একটি হাসপাতালে চিকিৎসাধীন অবস্থায় তার মৃত্যু হয়। খবর পেয়ে ওই রাতেই প্রেমিকার বাবা জামাল মোল্লাসহ দুই ভাই আমানত মোল্লা ও শামীম মোল্লাকে গ্রেপ্তার করেছে পুলিশ। তাদের সবার বাড়ি গোয়ালন্দের সিদ্দিক কাজীরপাড়া গ্রামে।

পুলিশ, সংশ্লিষ্ট পরিবার ও স্থানীয় সূত্রে জানা যায়, গোয়ালন্দ উপজেলার দৌলতদিয়া ১ নম্বর ফেরিঘাটের পাশে সিদ্দিক কাজীরপাড়া গ্রামের মৃত রহমত আলী খানের ছেলে বয়াতী শাহীন খান (৩৯)। তিনি বিভিন্ন এলাকায় ‘গাজীর গান’ গেয়ে বেড়াতেন। একই গ্রামের প্রতিবেশি কৃষক জামাল মোল্লার মেয়ে স্কুলছাত্রী আঙ্গুরী আক্তার (১৭)। এবার এসএসসি পরীক্ষা দিয়ে সে অকৃতকার্য হয়। এক বছর যাবত তার সঙ্গে শাহীনের পরকীয়া প্রেমের সম্পর্ক চলছিল। এ নিয়ে তাদের দুই পরিবারের মাঝে অশান্তি হয়।

গত ২৯ জুন রাতে শাহীন জামাল মোল্লার বাড়িতে গিয়ে আঙ্গুরীর সঙ্গে দেখা করতে যান। বিষয়টি টের পেয়ে জামাল ও তার দুই ছেলে মিলে শাহীনকে ধরে ফেলে। পরে বাড়ির পাশে বন্ধ থাকা ১ নম্বর ফেরিঘাটের সংযোগ সড়কের উপরে নিয়ে তারা কাঠের বাটাম দিয়ে শাহীনকে বেদম পেটায়। এতে আহত হয়ে সেখানে মাটিতে লুটিয়ে পড়েন শাহিন। পরে শাহীনকে উদ্ধার করে প্রথমে গোয়ালন্দ উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে নিয়ে যাওয়া হয়। সেখানে অবস্থার অবনতি হলে কর্তব্যরত চিকিৎসক তাকে ফরিদপুর মেডিক্যাল কলেজ হাসপাতালে পাঠান। পরে শুক্রবার (১০ জুলাই) তাকে ঢাকার ন্যাশনাল ইনস্টিটিউট অব নিউরোসায়েন্স ও হাসপাতালে নিয়ে ভর্তি করা হয়। সেখানে চিকিৎসাধীন অবস্থায় গতকাল রবিবার (১২ জুলাই) রাতে তার মৃত্যু হয়।

গোয়ালন্দ ঘাট থানার পরিদর্শক (তদন্ত) মোহাম্মদ আব্দুল্লাহ আল তায়াবীর বিষয়টি নিশ্চিত করে কালের কণ্ঠকে বলেন, এ ঘটনায় নিহত শাহীন খানের মামা মো. সোবাহান মোল্লা বাদী হয়ে জামাল মোল্লাসহ তার দুই ছেলে আমানত মোল্লা ও শামীম মোল্লার বিরুদ্ধে থানায় মামলা করেছেন।

এদিকে বয়াতী শাহীন খানের মৃত্যু সংবাদ জেনে ওই রাতেই অভিযুক্ত জামাল মোল্লাসহ তার দুই ছেলে আমানত মোল্লা ও শামীম মোল্লাকে গ্রেপ্তার করে পুলিশ।

মন্তব্য



সাতদিনের সেরা