kalerkantho

মঙ্গলবার  । ২০ শ্রাবণ ১৪২৭। ৪ আগস্ট  ২০২০। ১৩ জিলহজ ১৪৪১

সাত পরিবারের রাস্তায় প্রভাবশালীর ইটের দেয়াল

মুরাদনগর (কুমিল্লা) প্রতিনিধি   

১১ জুলাই, ২০২০ ১৬:০২ | পড়া যাবে ৩ মিনিটে



সাত পরিবারের রাস্তায় প্রভাবশালীর ইটের দেয়াল

এক প্রভাবশালী গ্রামবাসীর পায়ে হাটার ৫০ বছরের পুরনো রাস্তা বন্ধ করে দিয়েছেন। ফলে ৭টি পরিবারের লোকজন বাড়ি থেকে বের হতে পারছেন না। এমন অভিযোগ পাওয়া গেছে স্থানীয় প্রভাবশালী জানু মিয়ার বিরুদ্ধে। ভূক্তভোগিরা বিষয়টির প্রতিকার চেয়ে ইউনিয়ন পরিষদে লিখিত অভিযোগ দিয়েছেন। কুমিল্লার মুরাদনগর উপজেলার নবীপুর গ্রামে এ ঘটনা ঘটে।

অভিযুক্ত জানু মিয়া নবীপুর পূর্ব ইউনিয়নের গুঞ্জুর গ্রামের মৃত ছায়েদ আলীর ছেলে। অভিযোগকারী আবুল কাশেম বলেন, প্রভাবশালী জানু মিয়া দীর্ঘদিন যাবত এলাকার লোকজনকে জিম্মি করে খাল দখল, ভূমির মাটি কেটে ইটভাটায় বিক্রিসহ নানান অপকর্ম করছেন। ভয়ে কেউ প্রকাশ্যে তাঁর কাজে বাঁধা দেয় না। এখন তিনি ৫০ বছরের পুরনো রাস্তা বন্ধ করে ওয়াল দিয়েছেন। যার ফলে আমিসহ আরো ৭টি পরিবার ঘর থেকে বের হতে পারছি না। এখন নিরূপায় হয়ে জীবনের পরোয়া না করে তাঁর বিরুদ্ধে মুখ খুলেছি। কারণ, এভাবে জীবন যাপন করা অসম্ভব।

ভূক্তভোগি জয়নাল মিয়া, ওয়াজেদুল হক বাবু, দুলাল মিয়া ও মনির মিয়া, মিনুয়ারা বেগম ও হালিমা বেগমসহ আরো অনেকে বলেন, যাতায়াতের সুবিধা থাকায় জমি ভরাট করে বাড়ি করেছি। এখন এই রাস্তা প্রভাব খাটিয়ে দখল করায় আমরা ৭টি পরিবার বাড়ি থেকে বের হতে পারছি না। এই গ্রামের অনন্ত ২০০ লোকের পায়ে হাটার একমাত্র রাস্তা এটি। এ রাস্তা বন্ধ হওয়ায় গ্রামবাসীর মধ্যে ক্ষোভ বিরাজ করছে। আমাদের দেখাদেখি আরো ৪/৫ জন লোক বাড়ি করার জন্য জমি কিনেছে। রাস্তাটি পুনরুদ্ধার হলে সবার ভোগান্তি দূর হবে।

নবীপুর গ্রামের ইউপি সদস্য মনিকা বেগম বলেন, ৫০ বছরের পুরনো রাস্তা বন্ধ করে দেওয়া হয়েছে। যার ফলে এলাকাবাসী ভোগান্তিতে পরেছে। জানু মিয়ার পুকুরের পূর্বপাশে সরকারি খাল ছিল। ওই খালটি মাটি ভরাট করে ওয়াল দেওয়ার সময় বলেছিল মানুষ চলাফেরা করার জন্য রাস্তাটি থাকবে। এখন রাস্তা বন্ধ করে দেওয়ায় ওই ৭টি পরিবার গৃহবন্দি হয়ে পড়েছে।

অভিযুক্ত জানু মিয়ার সাথে মুঠোফোনে কথা হলে তিনি বলেন, এটা গ্রামের মানুষের পায়ে হাটার রাস্তা ছিল। কিন্তু এটা ছিল আমার নিজস্ব জায়গার উপর দিয়ে। আমার এখন জায়গার দরকার হয়েছে, তাই রাস্তা বন্ধ করে দিয়েছি।

নবীপুর পশ্চিম ইউপি চেয়ারম্যান হাজী কামাল উদ্দিন বলেন, ভুক্তভোগিরা আমার কাছে অভিযোগ দিয়েছেন। আমি উভয় পক্ষকে নোটিশ দিয়েছি।

মন্তব্য



সাতদিনের সেরা