kalerkantho

মঙ্গলবার  । ২০ শ্রাবণ ১৪২৭। ৪ আগস্ট  ২০২০। ১৩ জিলহজ ১৪৪১

সীতাকুণ্ডে মডেল মসজিদের ফলক ভাঙচুর, ইউপি সদস্য গ্রেপ্তার

সীতাকুণ্ড (চট্টগ্রাম) প্রতিনিধি   

১০ জুলাই, ২০২০ ২১:২০ | পড়া যাবে ২ মিনিটে



সীতাকুণ্ডে মডেল মসজিদের ফলক ভাঙচুর, ইউপি সদস্য গ্রেপ্তার

চট্টগ্রামের সীতাকুণ্ডে মডেল মসজিদ ও ইসলামী সাংস্কৃতিক কেন্দ্রের উদ্বোধনী ফলক ভাঙচুরের ঘটনায় এক ইউপি সদস্যকে গ্রেপ্তার করেছে পুলিশ। আজ শুক্রবার তাকে কোর্ট হাজতে চালান করা হয়েছে। সীতাকুণ্ড থানার ওসি ফিরোজ হোসেন মোল্লা সত্যতা নিশ্চিত করেন।

জানা যায়, প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার নির্দেশনায় সারা দেশের মতো সীতাকুণ্ডের মুরাদপুর ইউনিয়নের ফকিরহাট এলাকায় মডেল মসজিদ ও ইসলামী সাংস্কৃতিক কেন্দ্রের নির্মাণ কাজ শুরু হয়েছে। গত ২৩ জুন এটির নির্মাণ কাজের ভিত্তিপ্রস্তর উদ্বোধন করেন স্থানীয় সাংসদ দিদারুল আলম। কিন্তু উদ্বোধনের দু’দিন পর ২৫ জুন রাতে দুষ্কৃতিকারীরা মসজিদের নিরাপত্তা প্রহরীকে মারধর করে উদ্বোধনী ফলকটি ভেঙে দেয়। এ ঘটনায় পরদিন সীতাকুণ্ড থানায় এমপির পিএস মো. নজরুল ইসলাম বাদী হয়ে একটি মামলা দায়ের করেন। এতে অজ্ঞাতনামা দুস্কৃতিকারীদের আসামি করা হয়।

এ ঘটনার পর থেকে আসামিদের গ্রেপ্তারে উপজেলা ছাত্রলীগ পৌরসদর, ভাটিয়ারী ও কুমিরায় মানববন্ধন করে। এদিকে মামলার তদন্তকারী কর্মকর্তা সীতাকুণ্ড থানার এসআই মো. মামুন বৃহস্পতিবার রাতে অভিযান চালিয়ে মসজিদ ভাঙার সাথে জড়িত থাকার অভিযোগে উপজেলার মুরাদপুর ইউনিয়নের ৮নং ওয়ার্ডের ইউপি সদস্য মো. একরামুল হক টিটুকে গ্রেপ্তার করেন। শুক্রবার দুপুরে তাকে কোর্ট হাজতে প্রেরণ করা হয়। উদ্বোধনী ফলকে এমপির নাম থাকায় সেটি ভাঙচুর করা হয় বলে পুলিশ জানিয়েছে। 

জানতে চাইলে মামলার তদন্তকারী অফিসার এসআই মামুন বলেন, মডেল মসজিদ ও সাংস্কৃতিক কেন্দ্র ভাঙচুরের ঘটনায় চট্টগ্রাম ৪ আসনের এমপি আলহাজ দিদারুল আলমের পিএস নজরুল ইসলাম বাদী হয়ে মামলা দায়ের করেন। আমি ঘটনার তদন্তে ইউপি সদস্য একরামুল হক টিটুর সম্পৃক্ততা পেয়ে তাকে গ্রেপ্তার করেছি। এ ঘটনায় আরো কেউ জড়িত থাকলে তাকেও গ্রেপ্তার করা হবে।

এ বিষয়ে চট্টগ্রাম-৪ আসনের এমপি আলহাজ দিদারুল আলম বলেন, মাননীয় প্রধানমন্ত্রীর নির্দেশনায় সারাদেশের মত সীতাকুণ্ডে ও মডেল মসজিদ ও সাংস্কৃতিক কেন্দ্র নির্মাণ করা হচ্ছে। এটি আমি উদ্বোধন করেছি। এর পরেই একটি মহল এটি ভেঙে দিয়েছি। আমরা মামলা করেছি। কিন্তু নির্দ্বিষ্ট কোনো আসামির নাম দিইনি। পুলিশ তদন্তের মাধ্যমে আসামি গ্রেপ্তার করেছে। এমপি বলেন, ঘটনার সাথে অন্য কেউ জড়িত থাকলে তাকেও দ্রুত আইনের আওতায় আনা হোক।

মন্তব্য



সাতদিনের সেরা